সামান্য বিনিয়োগে বাড়িতে বসেই শুরু করুন এই লাভজনক ব্যবসা, প্রতিমাসে হবে লাখ লাখ টাকা আয়

বর্তমান প্রজন্মের কাছে দশটা-পাঁচটার চাকরির চেয়ে নিজস্ব ব্যবসা (Business) বা স্টার্টআপ অনেক বেশি গ্রহণযোগ্য বলে মনে হচ্ছে। তবে ব্যবসার জন্য আপনার মধ্যে এই দুটি জিনিসের অন্তত একটি থাকতেই হবে। প্রযুক্তিগত স্কিল বা কমিউনিকেশন স্কিল। আপনার কাছে যদি আধুনিক প্রযুক্তিবিদ্যা থাকে তাহলে আপনি অনেক নতুন কিছু উৎপাদনের কাজ করতে পারেন এবং কমিউনিকেশন স্কিল যদি আপনার দূর্দান্ত হয় তাহলে অল্প পুঁজিতে শুরু করেও লাখ লাখ টাকার টার্ন ওভারে পৌঁছাতে পারেন। আজকের এই প্রতিবেদনে এমনই এক ব্যবসার আইডিয়া দেবো যা থেকে আপনি ভালো আয় কোর্টে পারবেন। ব্যবসাটি হলো ডিজিটাল অ্যাডভার্টাইজিং এজেন্সি ।

ডিজিটাল অ্যাডভার্টাইজিং এজেন্সি কি?

সহজ কথায়, বিজ্ঞাপনী সংস্থাগুলি বিভিন্ন কোম্পানির কাছ থেকে বিজ্ঞাপন নিয়ে কাজ করা এবং সেগুলিকে এমন একটি উপযুক্ত জায়গায় উপস্থাপিত করে যেখান থেকে সেই বিজ্ঞাপনের প্রতি প্রচুর গ্রাহককে আকৃষ্ট করতে সক্ষম হয় তারা। এইভাবে একাধারে ইউজারদের থেকে ভিউজ, লাইক অপরদিকে ক্লায়েন্টের কাছে পারিশ্রমিক পান।

টিভি চ্যানেল, সংবাদপত্র থেকে শুরু করে রাস্তার পাশের বিলবোর্ড পর্যন্ত যে বিজ্ঞাপনগুলি সর্বত্র প্রদর্শিত হয়, তা সংবাদ সংস্থার মাধ্যমে প্রকাশিত ও সম্প্রচার করা হয়। একইভাবে, একটি ডিজিটাল বিজ্ঞাপন সংস্থা ইন্টারনেটে বিভিন্ন সোশ্যাল মিডিয়া প্লাটফর্মে বিজ্ঞাপনের প্রকাশনা এবং প্রচারের জন্য কাজ করে এবং সবচেয়ে উল্লেখযোগ্য বিষয় হলো খুবই কম পুঁজি লগ্নি করে করা যায় এই ব্যবসা।

ডিজিটাল অ্যাডভার্টাইজিং এজেন্সিতে কী করতে হবে

যদিও ইন্টারনেট একটি ছোট্ট শব্দ মাত্র কিন্তু এর ভিতরেই রয়েছে একটা গোটা পৃথিবী। ফেসবুক, ইনস্টাগ্রাম, টুইটার, ইউটিউব এবং নিউজ পোর্টালগুলি ছাড়াও রয়েছে হাজার হাজার ওয়েবসাইট। এই সমস্ত সামাজিক মাধ্যমগুলির ভিউয়ারস সংখ্যাও আকাশছোঁয়া। কোনো বড়ো কোম্পানিই এই বিষয়টির খোঁজ লাগাতে পারেনা যে, ফেসবুকে তাদের বিজ্ঞাপন দর্শকদের মধ্যে বেশি সাড়া ফেলবে নাকি স্থানীয় পোর্টাল, ওয়েবসাইটে বেশি হবে। এই গবেষণার কাজটি ডিজিটাল অ্যাডভার্টাইজিং এজেন্সি করে এবং তার বিনিময়ে তারা মোটা সার্ভিস চার্জ দাবি করে থাকে কমপক্ষে ১৫%।

একটি ডিজিটাল বিজ্ঞাপন সংস্থা চালু করতে কি করতে হবে?

১. প্রথমে একটি ল্যাপটপ প্রয়োজন, এবং সাথে সাথে নিজের শহরের প্রতিটি জায়গা সম্পর্কে খুঁটিনাটি জেনে নিতে হবে।

২. নিজের সংস্থার একটা ভালো দেখে নাম ঠিক করুন এবং নাগরিক সংস্থায় নথিভুক্ত করুন।

৩. একটি আকর্ষণীয় ভিজিটিং কার্ড প্রিন্ট করান।

৪. স্থানীয় সংবাদপত্র, স্থানীয় টিভি চ্যানেলে প্রদর্শিত বিজ্ঞাপনদাতাদের একটি তালিকা তৈরি করুন।

৫. ক্লায়েন্ট তালিকা প্রস্তুত হলে এবার ক্লায়েন্টের সাথে মিটিংয়ের ব্যবস্থা করুন।

৬. বিজ্ঞাপন ডিজাইন করার জন্য ইন্টারনেটে অনেক অনলাইন টুল পাওয়া যায়।

৭. প্রথমে ছোট বাজেটের বিজ্ঞাপন দিয়ে কাজ শুরু করুন।

৮. অভিজ্ঞতা বাড়লে বড় ক্লায়েন্ট এবং বড় বিজ্ঞাপনগুলিতে কাজ করার চেষ্টা করুন।

➦ আপনার জন্য বিশেষ খবর

Back to top button