নোটবন্দি থেকে ব্যবসার আইডিয়া, গড়েন ৭০০ কোটি টাকার কোম্পানি! আপনিও নেন সমীরের পরিষেবা

দেশে যবে থেকে মোবাইল ওয়ালেট এবং অন্যান্য ডিজিটাল পেমেন্ট সিস্টেম চালু হয়েছে মানুষ নগদ টাকা বহন করতে প্রায় ভুলেই গেছে। মোবাইল রিচার্জ হোক বা বিদ্যুতের বিল পেমেন্ট বা মুদির দোকানে কেনাকাটা করা, অনলাইন পেমেন্ট এর কারণে নগদে লেনদেন প্রায় হয়না বললেই চলে। আর এই অনলাইন পেমেন্টের জমানায় বিখ্যাত এক পেমেন্ট অ্যাপ হলো PhonePe।

জানেন কি কীভাবে তৈরি হয় এই অ্যাপ? আজ আমরা দেশের পেমেন্ট সিস্টেমের সংজ্ঞা বদলে দেওয়া PhonePe এবং তার মালিক সমীর নিগমের ব্যাপারে জানাতে চলেছি আপনাদের। কীভাবে তার একটি ধারণার কারণে এর জনপ্রিয় হয়েছে PhonePe এর মত UPI অ্যাপ। সেই গল্পই বলবো আপনাদের।

   

গত ২০১৫ সালে সমীর নিগম PhonePe কোম্পানির সূচনা করেন। এখনও তিনি এই কোম্পানির CEO এর পদেই রয়েছেন। ফোন পে তে কাজ করার আগে সমীর নিগম ফ্লিপকার্টে ইঞ্জিনিয়ারিং ডিপার্টমেন্টের সিনিয়র ভাইস প্রেসিডেন্ট হিসেবে কাজ করেছেন। ২০০৯ সালে সমীর নিগম তার প্রথম কোম্পানি Mime360 শুরু করেন। সেই কোম্পানির কাজ ছিল বিষয়বস্তুর মালিকদের সামগ্রী সরবরাহকারীদের সাথে সংযুক্ত করা।

সমীর নিগমের বিজনেস ট্রিপ ছিল এরকম যে, তিনি এর আগে শপজিলার সার্চ প্রোডাক্ট ডেভেলপমেন্টের পরিচালক ছিলেন। আর তার এই Mime360 ছিল একটি অনলাইন সোশ্যাল মিডিয়া ডিস্ট্রিবিউশন প্ল্যাটফর্ম কোম্পানি। ২০০৯ সালে এই কোম্পানিটি প্রতিষ্ঠা করেন তিনি যা পরে ফ্লিপকার্ট কিনে নেয়। তারপর ২০১৫ সালে তিনি PhonePe এর প্রতিষ্ঠা করেন।

কীভাবে প্রতিষ্ঠাতা হয় PhonePe এর: সমীর নিগম তার দুই বন্ধু রাহুল চারি এবং বুর্জিন ইঞ্জিনিয়ারের সাহায্যে তিনি UPI এর উপর ভিত্তি করে একটি অনলাইন পেমেন্ট পেমেন্ট সফ্টওয়্যার তৈরি করেন। ২০১৬ সালে এই কোম্পানি গ্রাহকদের ব্যবহারের জন্য খুলে দেওয়া হয়। আর আজ এক কোম্পানি ভারতের ১১ টি ভাষায় উপলব্ধ রয়েছে।

phonepe money

সমীর নিগমের মোট সম্পদ কত এখন? সমীর নিগমের মোট সম্পদ রয়েছে ১৭.৭ কোটি টাকারও বেশি। ২০১৬ সালের সময় যখন দেশে নোটবন্দি হয় তখন PhonePe খুবই উপকারী প্রমাণিত হয়েছিল। আজকে অনেক অ্যাপ উপলব্ধ থাকলেও তখন মানুষের কাছে UPI ব্যাবহার করার এত বিকল্প থাকেনি। তখন থেকেই ভারতে জনপ্রিয় হয়ে ওঠে এই অ্যাপ।

সম্পর্কিত খবর