টলিউডে স্বজনপোষণ! এবার প্রসেনজিৎ-ঋতুপর্ণাকে নিয়ে মুখ খুললেন এই অভিনেত্রী

বহুদিন হলো ইহলোক ত্যাগ করেছেন অঞ্জন চৌধুরী (Anjan Choudhury)। তার মৃত্যুর সাথে সাথেই বড়পর্দা থেকে নিজেদের গুটিয়ে নিয়েছেন তার মেয়ে অভিনেত্রী চুমকি চৌধুরী(Chumki Chowdhury)। তবে আবারো প্রায় দুই দশক পরে পর্দায় ফিরছেন তিনি। তবে এবার ‘কুলপি” ছবির মধ্য দিয়ে পুনরায় ইন্ডাস্ট্রিতে পা দিলেও, এবার তিনি নেগেটিভ চরিত্রে অভিনয় করতে চলেছেন।

আর সেই সিনেমার প্রমোশন করতে গিয়েই এক সাক্ষাৎকারে উঠে আসে বেশ কিছু অজানা গল্প। সবার প্রথমেই তার দিকে প্রশ্ন আসে যে, এতদিন পর তিনি কেন অভিনয়ের জন্য রাজি হয়েছেন। জবাবে অঞ্জনকন্যা বলেন যে, “গল্পটা বেশ আলাদা। যদিও আমি প্রথমে রাজি হইনি কারণ এটা নেগেটিভ চরিত্র, আমি আগে কখনও করিনি, দর্শক কীভাবে নেবে? তবে পরিচালক বর্ষালি জোরাজুড়ি করে, দর্শক ভালোবাসবে। ও আমাকে জোর করেই রাজি করিয়ে ফেলেছ।”

তবে সেই প্রশ্নের উত্তরের পরেই তাকে প্রশ্ন করা হয় যে, সবসময় শান্ত, ধীর-স্থির চরিত্রের চুমকির কাছে নেগেটিভ চরিত্রে অভিনয় করাটা কতটা চ্যালেঞ্জিং ছিল? চুমকি স্পষ্টই উত্তর দেন যে, বিষয়টা বেশ শক্ত ছিল তার কাছে। এছাড়া দর্শক কিভাবে ব্যাপারটাকে কিভাবে নেবে তাই নিয়েও চিন্তিত তিনি। তবে এরপরই আসে সেই প্রশ্ন যার উত্তর অনেকেই জানতে চায় তার কাছ থেকে। তাকে প্রশ্ন করা হয় যে, প্রথমসারির নায়িকা হয়েও কেন তিনি সিনেমা থেকে সরে দাঁড়িয়েছিলেন?

প্রশ্নের উত্তরে চুমকি জানান যে, “ বাবা চলে যাওয়ার পর আমি একদমই সিনেমার জগত থেকে সরে গিয়েছিলাম। আমার পুরো পৃথিবীটাই ছিল বাবা। বাবার হাত ধরেই ইন্ডাস্ট্রিতে আসা, অভিনয় করা, সেখানে বাবা ছাড়া আমি কাজ করছি ভাবতেই পারিনি। বাবা যখন চলে গেল তখন এরাও শত্রু চলছিল, ওটা ভাই দায়িত্ব নিল। আমি সেটে গিয়ে ঘণ্টার পর ঘণ্টা কাঁদতাম। সেট বসে থাকত। সেটা তো ঠিক নয়। বাবাকে ছাড়া আমি ক্যামেরার সামনে দাঁড়াতেই পারছিলাম না। তাই ভাবলাম, আর দরকার নেই, ছেড়ে দিই। ২০০৭ সালে বাবা চলে যাওয়ার পর ২০১৮ অবধি কাজই করিনি। এরপর ধারাবাহিক করি, তারপর এই ছবি।”

বাবার ছবি ছাড়া অন্য কোনো ছবি না করার কারণ সম্পর্কে চুমকি বলেন যে, আসলে তার বাবা কোনোদিন চাননি যে অন্য কারোর সেটে তার মেয়েরা কাজ করুক। এছাড়া অন্য ছবির অফার পেয়ে যেতে ইচ্ছে করতো কীনা সেই প্রশ্নে চুমকি জানান যে, তার সমস্ত সিদ্ধান্ত নিতেন তার বাবা। তবে অফার পেলেও তার বাবার ছবি থেকেই তিনি এতটা সাফল্য পেয়েছিলেন যে, আর অন্য কোনো ছবিতে কাজ করার দরকারই পড়েনি।

তবে এই দুই দশকে যে ইন্ডাস্ট্রি অনেকটা বদলে গিয়েছে সেই ব্যাপারে সহমত চুমকি চৌধুরি। বদলেছে ছবির প্রোডাকশন থেকে ছবির মেকিং। এছাড়া আগে পরিবারিক গল্প হলেও এখন সেই ছবির আর চল নেই বাজারে। এছাড়া ছবি চলার প্রশ্নে তিনি জানান যে, আগে এত টিভি বা মোবাইলের চল ছিলনা। এখন বিনোদন মানুষের হাতের মুঠোয় আসায় ছবি আর আগের মত চলছে না।

untitled

সবশেষে তাকে প্রশ্ন করা হয় যে, স্বজনপোষণ নিয়ে তার কী মতামত? অনেকেই তো এখন সেই ব্যাপারে প্রশ্ন তুলছেন। চুমকি তার জবাবে উত্তর দেন যে, সেরকম কিছু না। আসলে প্রযোজক যেমন চাইবে ঠিক তেমনই তো হবে। যেমন আগে প্রসেনজিৎ এবং ঋতুপর্ণা খুবই হিট জুটি ছিল। কিন্তু ওদের এক দুটো ছবি মুখ থুবড়ে পড়লে কী আর করা যাবে। সেটাকেও সফল হিসেবেই ধরে নেওয়া যায়। তাই সেটাকে স্বজনপোষণ বলে মনে করেন না তিনি।

➦ আপনার জন্য বিশেষ খবর

Back to top button