ফাইটার জেট থেকে লাক্সারি গাড়ির শখ, কত টাকার মালিক রতন টাটা? জানুন তার সম্পত্তির পরিমান

টাটা গ্রুপ ভারতের অন্যতম জনপ্রিয় কোম্পানি। আর এই কোম্পানির সবচেয়ে বড় অবদান রতন টাটার। অর্ধশত বছর ধরে তিনি নিরলস পরিশ্রম করে গেছেন টাটা গ্রুপের জন্য, তিলে তিলে বড় করেছেন গ্রুপকে। মানবিকতার প্রতিমূর্তি এই ব্যক্তি নিঃসন্দেহে আমাদের দেশের অন্যতম প্রিয় মানুষ। জেনে অবাক হবেন বিশ্বের অন্যতম সেরা ধনী ব্যক্তি হয়েও ফোর্বসের তালিকায় তার নাম থাকেনা। এমনকি আইআইএফএল ওয়েলথের মতে, ইন্ডিয়া রিচ লিস্ট ২০২১ এ ৪৩২ জন এর পরে রয়েছে টাটার কর্ণধার রতন টাটা। আসুন জেনে নিই রতন টাটার মোট সম্পত্তির পরিমাণ।

গত ৬০ বছর ধরে ভারতে নুন থেকে এরোপ্লেন, সবকিছুতেই একটাই নাম শোনা যায় আর তা হল ‘টাটা এন্ড সন্স’। বর্তমানে এই প্রতিষ্ঠানের অধীনে রয়েছে মোট ৯৬টি কোম্পানি। টাটা স্টিল, টাটা মোটর্স, টাটা কনসালটেন্সি সার্ভিসেস। টাটা পাওয়ারসহ বেশ কয়েকটি উল্লেখযোগ্য প্রতিষ্ঠান। রেসপন্সিবল বিজনেস প্রতি ৫টার মধ্যে ৪টি টাটার।

২০০০ সালে বিখ্যাত চা কোম্পানি টেটলি’কে কিনে নেয় টাটা কোম্পানি। তবে তাদের অন্যতম মাইলফলক হলো ২০০৭-এ ১ হাজার ২০০ কোটি ডলারে ইস্পাত বহুজাতিক কোরাসকে অধিগ্রহণ। এছাড়া ২০০৮-এ ২৩০ কোটি ডলারে ব্রিটিশ গাড়ি প্রস্তুতকারী বহুজাতিক প্রতিষ্ঠান জাগুয়ার-ল্যান্ড রোভারের মালিকানা অর্জনও তার আর একটি অনন্য কীর্তি। এছাড়া টাটা গ্রুপের টিসিএসকে প্রতিষ্ঠা করা হয়েছে ভারতের অন্যতম বৃহত্তম তথ্য প্রযুক্তি সংস্থা হিসেবে।

কিছু মিডিয়া রিপোর্ট অনুসারে, বলা হয় যে আজ রতন টাটার মোট সম্পদের পরিমাণ প্রায় ৭৪১৬ কোটি টাকা, এবং আজ তিনি মুম্বাইতে যে বিলাসবহুল বাড়িতে থাকেন, তার দাম প্রায় ১৫০ কোটি টাকা, যা তিনি ২০১৫ সালে নিজের নামে করেছিলেন। তার গাড়ির সংগ্রহও নেহাত কম নয়। আজ রতন টাটার সংগ্রহে রয়েছে মার্সিডিজ বেঞ্জ, ফেরারি, রেঞ্জ রোভার, হোন্ডা সিভিক, ক্যাডিল্যাক এক্সএলআর, জাগুয়ার এবং মাসেরতি কোয়াট্রোপোর্ট।

টাটা সন্সের মোট ইক্যুইটির ৬৬ শতাংশ রয়েছে টাটা ট্রাস্টের হাতে। এবং এই লভ্যাংশ সরাসরি খরচ করা হয় ট্রাস্টের জনহিতকর কাজের জন্য। প্রায় ৬টি দেশে ১০০ টিরও বেশি অপারেটিং কোম্পানি রয়েছে তার। টাটা গ্রুপ তাদের মানবিকতার পরিচয় প্রতি পদক্ষেপে দেয়। তার কর্মীদের আধুনিক পেনশন সিস্টেম, চিকিৎসা সেবা, মাতৃত্বকালীন ছুটি আর আরো অনেক সুবিধার ব্যবস্থা করেছে। ভারত ছাড়িয়ে বিদেশেও পৌঁছে গেছে তাদের এই অনুদান। টাটা গ্রুপ হার্ভার্ড বিজনেস স্কুলে ৫০ মিলিয়ন ডলার অনুদান দিয়েছে। এটাই কোনো আন্তর্জাতিক ডোনারের কাছ থেকে পাওয়া সর্বোচ্চ অনুদান।

অসাধারণ ব্যবসায়িক দূরদর্শিতার অধিকারী ভারতীয় বিজনেস টাইকুন রতন টাটা নিঃসন্দেহে আমাদের দেশের সবচেয়ে প্রিয় এবং প্রশংসিত ব্যক্তিত্বদের একজন। সমস্ত বিতর্কের উর্দ্ধে থাকা এই মানুষটি তার দীর্ঘ কর্মজীবনে লাভ করেছেন অসংখ্য স্বীকৃতি। ব্যবসায়িক সাফল্যের স্বীকৃতিও পেয়েছেন ঢের। বিশ্বের বিভিন্ন নামি বিশ্ববিদ্যালয়ের সম্মানিক ডক্টরেট থেকে শুরু করে ২০০০ সালে ভারতের সর্বোচ্চ বেসামরিক সম্মাননা পদ্মভূষণ। ২০০৮ সালে পান পদ্ম বিভূষণ। রকফেলার ফাউন্ডেশনের আজীবন সম্মাননাও পান তিনি।

রতন টাটা সম্পর্কে আরও একটি আশ্চর্য তথ্য জেনে অবাক হবেন যে, ২৮ ডিসেম্বর, ১৯৩৭ সালে, তার জন্মের পরপরই তার বাবা-মা আলাদা হয়ে যান, তারপরে তাকে তার দাদী নওয়াজবাই টাটা দত্তক নেন। তথ্য সূত্রে জানা যায়, রতন নেভাল টাটা প্রতী সম্প্রদায়ের একটি বিখ্যাত পরিবারে জন্মগ্রহণ করেছিলেন।

➦ আপনার জন্য বিশেষ খবর

Back to top button