হিন্দু ও সেনাবাহিনীকে অপমানের অভিযোগ! আমিরের বিরুদ্ধে দায়ের FIR, বন্ধ হল সিনেমার স্ক্রিনিং

লাল সিং চাড্ডা নিয়ে যে বিতর্কের মেঘ পুঞ্জীভূত হয়েছিল এবার তাই যেন তুমুল বর্ষণের সাথে নেমে এসেছে ধরিত্রীর বুকে। সিনেমাটি মুক্তি পাওয়ার বহু আগে থেকেই বয়কটের ডাক উঠতে থাকে। কিন্তু একেবারে হতে পায়ে ধরে ক্ষমা প্রার্থনা করে ছবি রিলিজ করেন আমির। কিন্তু দেখা গেল শেষরক্ষা হলনা। মুক্তির দিন থেকেই চূড়ান্ত ব্যর্থ এই সিনেমা।

প্রথমে দেশ বিরোধী, তারপর হিন্দু বিরোধী আর এখন তার বিরুদ্ধে অভিযোগ উঠেছে সেনাবাহিনীকে অপমান করার। সেনাবাহিনীর অপমান এবং হিন্দু ধর্মাবেগে আঘাত দেওয়ার তার বিরুদ্ধে আইনত অভিযোগ আনা হয়েছে। বিনীত জিন্দল নামের ওই আইনজীবী এদিন দিল্লী পুলিশ কমিশনারের কাছে অভিযোগ দায়ের করে জানান যে লাল সিং চাড্ডায় ভারতীয় সেনাবাহিনীকে যেভাবে চিত্রিত করা হয়েছে তাতে সেনাবাহিনীর অপমান হয়েছে।

ইতিমধ্যেই আইনজীবীর দায়ের করা অভিযোগের ওপর ভিত্তি করে ছবির অন্যতম প্রযোজক আমির, পরিচালক অদ্বৈত চন্দন এবং প্যারামাউন্ট পিকচার্সের বিরুদ্ধে ভারতীয় দণ্ডবিধির ১৫৩, ১৫৩ এ, ২৯৮ এবং ৫০৫ ধারায় মামলা দায়ের করেছেন। বিনীত জিন্দল এদিন স্পষ্টই বলেন যে, ছবিতে যথেষ্ট আপত্তিকর বস্তু দেখানো হয়েছে, তাই অবিলম্বে এই ছবি বন্ধ করতে হবে।

নিজের দায়ের করা অভিযোগে আইনজীবী সিনেমার নির্মাতাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ করেছেন যে, সিনেমাতে দেখানো হয়েছে এক মানসিক প্রতিবন্ধী কর্গিলের যুদ্ধে যোগ দিতে চেয়ে যোগ দেয় ভারতীয় সেনায়। তবে আমরা সবাই জানি ভারতীয় সেনা কতটা দক্ষতা সম্পন্ন সেনা। কার্গিলের যুদ্ধে খুবই দক্ষ সৈনিকদেরই পাঠানো হয়েছিল যুদ্ধ করতে। সেখানে তারা নিজেদের সর্বশক্তি দিয়ে লড়াই করেছিলেন। এখন লাল সিং চাড্ডা এই সিনেমায় সেই সমস্ত বীর জওয়ানদের অপমান এবং বিদ্রুপ করে চলেছেন।

এছাড়া ছবিতে চূড়ান্ত অপমান করা হয়েছে হিন্দু ধর্মকেও। সেখানে দেখা যায় এক পাকিস্তানি জওয়ান লাল সিং কে নামাজ পড়ে প্রার্থনা করার পরামর্শ দিয়েছিলেন। আর সেই কথার উত্তরে লাল সিং চাড্ডা উত্তর দেন যে, তাঁর মা বলেছেন এইসব পূজাপাঠ ম্যালেরিয়ার মতো। এতে দাঙ্গা হয়। এই বক্তব্য যে হিন্দু সম্প্রদায়কে নিশানা করেই বলা হয়েছে সেই ব্যাপারে কোনো সন্দেহ নেই, আর এই বক্তব্য তুলেই হিন্দু সম্প্রদায়কে অপমান করার অভিযোগ আনেন ওই আইনজীবী।

তবে দেশজুড়ে বয়কটের সুর বেড়েই চলায় একের পর এক শো পুরো ফাঁকা যাচ্ছে। বিগ বাজেটের এই সিনেমা চূড়ান্ত ফ্লপ হয়ে চলেছে একের পর এক শোতে। প্রসঙ্গত জানিয়ে রাখি যে, প্রথম দিনেই বহু শো বাতিল হয় দর্শকদের অনুপস্থিতিতে। আর গতকাল একেবারে ২,৩০০ শো কমিয়ে দেওয়া হয় এই সিনেমার। অনেক হিসেব নিকেশ করেও ছবিকে বাঁচাতে পারলেন না আমির খান। এছাড়া প্রথম দুই দিন মিলিয়েও ২০ কোটি টাকার ব্যবসা করতে পারলো না এই সিনেমা। এছাড়া পাঞ্জাবের জলন্ধরে ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত দেওয়ায় বন্ধ করে দেওয়া হয় এই শো।

➦ আপনার জন্য বিশেষ খবর

Back to top button