বাংলাদেশের ৩০ হাজার কোটি টাকার পদ্মা সেতুর একটি বড় খুঁত, যা বয়ে চলবে আজীবন

সাম্প্রতিক কালে যে বিষয়টি দেশ-বিদেশে আলোড়ন তুলেছে তা হলো প্রতিবেশী রাষ্ট্র বাংলাদেশের (Bangladesh) পদ্মা সেতু (Padma Multipurpose Bridge)। সেই দেশের মানুষ তো বটেই মায় এদেশের মানুষও আবেগপ্রবণ হয়ে পড়েছে এই সেতু নিয়ে। কিন্তু জানেন কি এই বহুল আলোচিত সেতুতেও রয়েছে একটি বড় খুঁত। বিশেষজ্ঞদের মতে বহুমুখী পদ্মা সেতুটি স্থায়িত্ব হবে প্রায় ১০০ বছর।

প্রসঙ্গত, বাংলাদেশের এই বহুমুখী পদ্মা সেতুটির রেলপথ রয়েছে তা হবে সিঙ্গেল লাইনের। অর্থাৎ সেতুর উপর দিয়ে একটা ট্রেন চলাকালীন অপেক্ষা করতে হবে অপরদিকের ট্রেনটিকে। কোনোভাবেই এই সেতুতে তৈরি করা যাবেনা ডবল রেল পথ‌।

জানিয়ে রাখি বাংলাদেশের এই সেতুটি নির্মাণ করার আগে ২০০৩ সালের মে থেকে ২০০৫ সালের মার্চ অর্থাৎ প্রায় দীর্ঘ দুই বছর ধরে চলেছিলো পরীক্ষা নিরিক্ষা। প্রথমে ঠিক করা হয় যে, রেলপথের সমস্ত সুযোগ সুবিধা সহ ২৫ মিটার প্রসস্থ হবে পদ্মাসেতু। কিন্তু পরবর্তীকালে আবার মত বদলায় বাংলাদেশ সরকার। ২০০৭ সালের প্রকল্প অনুমোদনে দেখা যায় রেল পথের বিষয়টি পুরোপুরি বাদ দিয়েছে সরকার।

যদিও এটিই সর্বশেষ সিদ্ধান্ত ছিলনা। পরবর্তীকালে আবারো মত পালটান বাংলাদেশ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তার নির্দেশে আবার রেলপথ তৈরি করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। যমুনা নদীর উপর নির্মিত এই সেতুটিতে বর্তমানে রয়েছে একটিই রেলপথের সুবিধা। জানিয়ে রাখি, পদ্মা সেতুর উপর দিনে খুব বেশি হলে ২৪ টি ট্রেন যাতায়াত করতে পারবে। যদিও এতেও রয়েছে শর্ত, সেতুর ক্ষমতা অনুযায়ী ঘন্টা প্রতি মাত্র ২০ কিঃমিঃ গতিবেগেই ছুটতে পারবে ট্রেন। এই সমস্ত সমস্যা থেকে রেহাই পেতে এর বিকল্প ব্যবস্থা খোঁজে সরকার। ২০০৯ সালের আলোচনা সভায় স্থির করা হয় যে, দ্বিতল সেতু বানানো হবে, যেখানে নিচ তলায় চলবে ট্রেন এবং ওপরতলায় চলবে গাড়ি।

উল্লেখ্য, যখন এই সেতু নির্মাণের পরিকল্পনা করা হয় সেই সময় সমস্ত কিছু বিচার করে সম্ভাব্য খরচ ধরা হয় ১০ হাজার ১৬২ কোটি টাকা। তবে পরবর্তীকালে রেলপথের ব্যাপারটা যোগ হওয়ায় খরচ বেড়ে হয় ২০ হাজার ৫০৭ কোটি টাকা। রেল কর্তৃপক্ষ তরফ থেকে ডবল লাইনের ডুয়েলগেজ রেলপথ নির্মাণের জন্য আবেদন করা হলেও সেই সিদ্ধান্ত বাতিল করা হয়। যদিও পদ্মা সেতুর, স্টেক কন্টেইনারবাহী ট্রেন, ১৬০ কিঃমিঃ প্রতি ঘন্টায় যাত্রীবাহী ট্রেন, ১২৫ কিঃমিঃ প্রতি ঘন্টায় পণ্যবাহী ট্রেন, এই সবকিছুর ধকল সইবার ক্ষমতা থাকলেও, সিঙ্গেল লাইনের রেলপথ হওয়ায় চালানো যাবেনা একসাথে দুটি ট্রেন।

padma bridge, november2021(2)

উল্লেখ্য, পদ্মা সেতুর এই তিক্ত অভিজ্ঞতার কারণে আবার নতুন করে প্রায় ১৭ হাজার কোটি টাকা খরচ করে বঙ্গবন্ধু রেল সেতু নির্মাণের পরিকল্পনা করা হচ্ছে বলে খবর।

➦ আপনার জন্য বিশেষ খবর

Back to top button