ছুটবে বাংলাতেও! কেমন হবে ভারতের প্রথম বুলেট ট্রেন, ফার্স্ট লুক প্রকাশ্যে আনলেন রেলমন্ত্রী

খুব দ্রুত ভারতবাসীর স্বপ্ন পূরণ হতে চলেছে বুলেট ট্রেন (Bullet Train) নিয়ে। জোর কদমে কাজ এগিয়ে চলেছে। মনে করা হচ্ছে, আর কিছু সময়ের মধ্যেই বুলেট ট্রেনে উঠতে পারবেন ভারতীয়রা। যত সময় এগোচ্ছে ততই ভারতীয় রেলের (Indian railways) রূপরেখাই বদলে দেওয়ার চেষ্টা করছে কেন্দ্রীয় রেলমন্ত্রক। দেশে বুলেট ট্রেন চালানোর স্বপ্ন পূরণ হতে চলেছে।

মুম্বই-আহমেদাবাদের মধ্যে বুলেট ট্রেন প্রকল্পের কাজ চলছে। এমনিতে কেন্দ্রীয় রেলমন্ত্রী অশ্বিনী বৈষ্ণব (Ashwini Vaishnaw) প্রায়শই ভারত জুড়ে রেল স্টেশনগুলির আকর্ষণীয় ছবি শেয়ার করেন এবং রেলওয়েতে ঘটে যাওয়া উন্নয়নের সাথে অনুগামীদের আপ টু ডেট রাখেন। তেমনই সোমবার তিনি টুইটারে মুম্বই-আহমেদাবাদ ট্রেন করিডরের একটি দর্শনীয় ভিডিও শেয়ার করেছেন যা দেখে সকলের চোখ কার্যত কপালে উঠে গিয়েছে। অনেকেই মনে করছেন এটি ‘বুলেট ট্রেন’-এর প্রথম ঝলক। ভিডিওটি উচ্চাভিলাষী ট্রেন প্রকল্পের কিছু আশ্চর্যজনক, অত্যাধুনিক বৈশিষ্ট্য তুলে ধরেছে।

   

মুম্বই ও আহমেদাবাদের মধ্যে ৫০৮ কিলোমিটার দূরত্ব অতিক্রম করে বুলেট ট্রেনটি প্রতি ঘণ্টায় সর্বোচ্চ ৩২০ কিলোমিটার গতি ধরবে বলে আশা করা হচ্ছে, যা ভ্রমণের সময় কমিয়ে মাত্র ২ ঘণ্টায় নামিয়ে আনবে। বুলেট ট্রেন রুটের জন্য ২৪ টি নদী সেতু এবং ২৮ টি স্টিল ব্রিজ তৈরি করা হচ্ছে।
ভিডিওটিতে এই প্রকল্পটিকে “বিশ্বমানের ইঞ্জিনিয়ারিংয়ের এক বিস্ময়” এবং “ভারতের ভবিষ্যত” হিসাবে বর্ণনা করা হয়েছে। ভিডিওটি শেয়ার করে রেলমন্ত্রী লেখেন, ‘আমরা স্বপ্ন নয়, বাস্তবতা বুনি। মোদী ৩.০-তে বুলেট ট্রেনের জন্য থাকুন।’

২০২১ সালের নভেম্বরে কাজ শুরু হওয়ার পর থেকে মুম্বই-আহমেদাবাদ করিডোরের কাজ ক্রমাগত এগিয়ে চলেছে। গত বছর, রেলমন্ত্রী ঘোষণা করেছিলেন যে ভারতের প্রথম বুলেট ট্রেন বিভাগ – গুজরাটের বিলিমোরা এবং সুরাটের মধ্যে ৫০ কিলোমিটার দীর্ঘ – ২০২৬ সালের আগস্টে শেষ হবে।

রেলওয়ে যখন কাজ শুরু করবে তখন ৩৫টি বুলেট ট্রেন চালাবে এবং প্রতিদিন প্রায় ৭০টি ট্রিপ দেবে। ২০৫০ সালের মধ্যে ট্রেনের সংখ্যা ১০৫টিতে উন্নীত করার পরিকল্পনা রয়েছে। অপারেশন শুরু হলে প্রতি বছর প্রায় ১.৬ কোটি মানুষ ট্রেনে ভ্রমণ করবেন বলে আশা করা হচ্ছে। ভিডিওটির প্রতিক্রিয়া জানিয়ে একজন ব্যবহারকারী লিখেছেন, ‘আমরা এটির জন্য অধীর আগ্রহে অপেক্ষা করছি স্যার। ‘ আরেকজন মন্তব্য করেছেন, ‘এই রূপান্তরিত যাত্রার সাক্ষী হওয়ার অপেক্ষায় রয়েছি।’

এসবের মাঝে আরো একটি বিষয় নিয়ে কানাঘুষো শোনা যাচ্ছে যা শুনলে আপনিও খুশিতে লাফিয়ে উঠবেন। শুধুমাত্র নাকি মুম্বই-আহমেদাবাদ রুটে নয়, কলকাতাতেও ছুটবে নাকি বিশ্বমানের প্রযুক্তিতে নির্মিত এই ট্রেন। শুনে চমকে গেলেন তো? শোনা যাচ্ছে, নাকি রেলমন্ত্রী অশ্বিনী বৈষ্ণব ইতিমধ্যে বুলেট ট্রেনের জন্য ৩টি গোল্ডেন রুটের রূপরেখা স্থির করেছেন। যার মধ্যে রয়েছে তিলোত্তমা। এমনকি হাওড়া স্টেশনের উপর দিয়েও বুলেট ট্রেন নিয়ে যাওয়ার পরিকল্পনা রয়েছে রেলের।

সম্পর্কিত খবর