বড় পরিবর্তন আনল WBCHSE! পরীক্ষার আগেই উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষার্থীদের জন্য বিরাট সুখবর

আর মাত্র হাতেগোনা কয়েকটা দিন বাকি, তারপরেই শুরু হয়ে যাবে উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষা (Higher Secondary Exam)। এদিকে আসন্ন এই পরীক্ষাকে কেন্দ্র করে পড়ুয়াদের প্রস্তুতি জোরকদমে চলছে। শেষ মুহূর্তে বইয়ের পাতায় চোখ বুলিয়ে নিচ্ছে সকলে। তবে এদিকে এই উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষা শুরু হওয়ার আগেই বড় খবর প্রকাশ্যে উঠে এল, যা সকলেরই শুনে রাখা জরুরী বৈকি।

যত সময় এগোচ্ছে ততই যেন শিক্ষা ব্যবস্থায় (Education System) আমূল পরিবর্তন ঘটছে। প্রশ্নপত্র থেকে শুরু করে পরীক্ষার খাতা দেখার নিয়ম সহ একাধিক জিনিসে আমূল পরিবর্তন ঘটছে। এবার তেমনই একটি বড় পরিবর্তন ঘটতে চলেছে উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষার আগে। এতে করে উপকৃত হবে পরীক্ষার্থীরাই। উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষার ফলাফল প্রক্রিয়াকরণের গতি বাড়ানোর লক্ষ্যে রাজ্যের শিক্ষামন্ত্রী ব্রাত্য বসু (Bratya Basu) শুক্রবার পশ্চিমবঙ্গ উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা কাউন্সিলের (West Bengal Council of Higher Secondary Education) অফিসে অনলাইন মার্কস সাবমিশন পোর্টালের উদ্বোধন করেন।

   

পোর্টাল ব্যবহার করে, উচ্চ মাধ্যমিকের নম্বর সরাসরি কাউন্সিলের পোর্টালে প্রধান পরীক্ষকদের দ্বারা আপলোড করা হবে এবং তারপরে ম্যানুয়ালি আঞ্চলিক অফিসের মাধ্যমে কাউন্সিলে প্রেরণ করা হবে। কাউন্সিলের সভাপতি চিরঞ্জীব ভট্টাচার্যের মতে, ডাবল এন্ট্রি প্রক্রিয়া যেখানে প্রধান পরীক্ষককে দু’বার একটি নম্বর আপলোড করতে হবে তাও ভুল হ্রাস করবে, কারণ তারা আপলোড করার সময় ডেটা কপি পেস্ট করতে পারবেন না এবং কোনও ত্রুটি থাকলে একটি সতর্কতা জারি করা হবে।

চিরঞ্জীব ভট্টাচার্যের মতে, আগের প্রক্রিয়ায় হাতে লেখা, আঞ্চলিক অফিসে নম্বর সংগ্রহ, পরিষদে পাঠানো, স্ক্যান করা এবং আপলোড করা বিবেচনায় এই ব্যবস্থায় কাউন্সিলের সময় সাশ্রয় হবে। এরপরে, ত্রুটিগুলি চিহ্নিত করা হত এবং ফলাফল প্রক্রিয়া শুরু করার আগে পরীক্ষা করতে হত।

কাউন্সিলের অন্যান্য কাজে এ ধরনের দক্ষতা নিশ্চিত করতে তারা আরও ডিজিটালি সজ্জিত কার্যক্রমের দিকে অগ্রসর হচ্ছে। এর মধ্যে রয়েছে ১৯৭৮ থেকে ১৯৯৫ সালের মধ্যে প্রাপ্ত মার্কশিট এবং শংসাপত্রগুলি ডিজিটাইজ করা। কাউন্সিল ডিজিলকারে ২০১২ থেকে ২০২৩ সালের মধ্যে প্রাপ্ত মার্কশিট এবং শংসাপত্রগুলি সফলভাবে আপলোড করেছে এবং ১৯৯৭ থেকে ২০১২ সালের মধ্যে প্রাপ্ত শংসাপত্রগুলির জন্যও এটি আশা করা যেতে পারে।

তারা একটি একাডেমিক পোর্টালও চালু করেছে যেখানে স্কুলগুলি একটি নতুন বিষয় অন্তর্ভুক্তি, অধিভুক্তি পুনর্নবীকরণ এবং অন্যদের মধ্যে অধিভুক্তির আবেদন করার জন্য আবেদন করতে পারে। কাউন্সিল ভবিষ্যতে জেলা অফিসগুলির সাথে যোগাযোগ রাখতে একটি ভার্চুয়াল বা হাইব্রিড কনফারেন্সিং সুবিধা দিয়ে সজ্জিত করার পরিকল্পনা করেছে। শিক্ষামন্ত্রী ব্রাত্য বসু নিজেদের ডিজিটালি সজ্জিত করার জন্য কাউন্সিলের প্রচেষ্টার প্রশংসা করেছেন।

সম্পর্কিত খবর