অকেজো এয়ার ডিফেন্স দিয়ে পাকিস্তানকে চরম ঠকাল চিন! বারবার দেশে ঢুকে হচ্ছে হামলা

নতুন করে আন্তর্জাতিক মহলে মুখ পুড়ল পাকিস্তান (Pakistan) ও চিনের (China)। এখন নিশ্চয়ই ভাবছেন কেন? তাহলে বিস্তারিত জানতে ঝটপট পড়ে ফেলুন আজকের এই প্রতিবেদনটি। সম্প্রতি পাকিস্তানে ইরানের (Iran) ক্ষেপণাস্ত্র ও ড্রোন হামলার পর প্রশ্ন উঠছে, গত কয়েক বছরে বারবার পাকিস্তানের আকাশসীমা লঙ্ঘন করায় পাকিস্তানের সেনাবাহিনী (Pakistan Army) নিজেদের আকাশসীমা রক্ষা করতে পারছে কি না।

পাকিস্তানের সেনাবাহিনীর দাবি, তাদের শক্তিশালী বিমান প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা আছে, অনেক খরচ করে তাদের জিনিসপত্র কিনতে হয়েছে। যে ভারী অস্ত্রশস্ত্র আছে তার বেশিরভাগই নেওয়া হয়েছে চিনের কাছ থেকে। তবে ইরানের হামলার পর এটা স্পষ্ট, পাকিস্তানের আকাশসীমা রক্ষা করতে ব্যর্থ হয়েছে চিনের তৈরি জিনিস।

   

২০১১ সালের মে মাসে ওসামা বিন লাদেনকে হত্যা করতে অ্যাবোটাবাদে হামলার সময় মার্কিন বিমান বাহিনী পাকিস্তানের অভ্যন্তরে তিন ঘণ্টা ছয় মিনিট অবস্থান করেছিল। পাকিস্তানের এয়ার ডিফেন্স সিস্টেম তাদের আগমন বা চলে যাওয়ার বিষয়টি শনাক্ত করতে পারেনি। মার্কিন বিমান বাহিনী আফগানিস্তান সীমান্ত দিয়ে পাকিস্তানের আকাশসীমায় প্রবেশ করে এবং ওসামাকে হত্যা করে ফিরে আসে।

একইভাবে, ২০১৯ সালের ফেব্রুয়ারিতে যখন ভারতীয় বিমানবাহিনীর বিমান সন্ত্রাসবাদী সংগঠন জইশ-ই-মহম্মদের প্রশিক্ষণ শিবিরগুলিকে হামলা চালানোর উদ্দেশ্যে পাকিস্তানের আকাশসীমায় প্রবেশ করেছিল, তখন পাকিস্তান বিমানবাহিনীর প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা সময়মতো তাদের জবাব দিতে পারেনি। ২০২২ সালের মার্চ মাসে দুর্ঘটনাবশত উৎক্ষেপণ করা ভারতীয় ব্রহ্মস ক্ষেপণাস্ত্রটি ৩ মিনিট ৪৪ সেকেন্ডে পাকিস্তানের ভূখণ্ডের ১২৪ কিলোমিটার ভিতরে অতিক্রম করে। হরিয়ানার সিরসা থেকে উৎক্ষেপিত ক্ষেপণাস্ত্রটি রাজস্থানের সুরতগড় থেকে পাকিস্তানে প্রবেশ করে এবং সন্ধ্যা ১৮.৫০ মিনিটে পাকিস্তানের অভ্যন্তরে পড়ে।

pakistan china

পরে পাক সেনার দাবি, পাকিস্তানের আকাশসীমায় থাকাকালীন ব্রহ্মস ক্ষেপণাস্ত্র উৎক্ষেপণের কথা তাদের প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা ৭ মিনিট পর্যন্ত জানত। তবে পাকিস্তানের আকাশ প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা কেন তা জেনেও পাকিস্তানের আকাশসীমায় ক্ষেপণাস্ত্র ঢুকতে বাধা দিতে পারল না, তা নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে বিবৃতিতে। গত ১৬ জানুয়ারি ইরানের ইসলামিক রেভল্যুশনারি গার্ড কর্পস পাকিস্তানের বেলুচিস্তান প্রদেশে জঙ্গি গোষ্ঠী জইশ-উল-আদলের প্রশিক্ষণ শিবির লক্ষ্য করে হামলা চালায়। ফলে আবারও পাকিস্তানের আকাশ প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা এসব হামলা ঠেকাতে পারেনি।

পাকিস্তানের এয়ার ডিফেন্সের কাছে বেশির ভাগ অস্ত্রই চীন থেকে কেনা। ২০২১ সালে পাকিস্তান চীনের তৈরি এইচকিউ-৯ এয়ার ডিফেন্স সিস্টেম কেনে, যা এফডি-২০০০ নামেও পরিচিত, এটি আকাশে নিক্ষেপযোগ্য ক্ষেপণাস্ত্র ব্যবস্থা। এটি বিমান ও ক্রুজ ক্ষেপণাস্ত্র ভূপাতিত করার জন্য ডিজাইন করা হয়েছে। পাকিস্তান বিমান বাহিনী আমেরিকান টিপিএস-৭৭ লং রেঞ্জ এয়ার সার্ভিলেন্স রাডার এবং চীনা ওয়াইএলসি-১৮এ মাল্টি-রোল রাডার ব্যবহার করে। উভয়ই দূরপাল্লার রাডার সিস্টেম যা একটি বৃহত অঞ্চল জুড়ে প্রতিকূল বিমান সনাক্ত এবং ট্র্যাক করার দাবি করে।

২০১৭ সালের মার্চ মাসে, পাক সেনাবাহিনী চীনা এলওয়াই -৮০ লো টু মিডিয়াম অ্যালটিচিউড এয়ার ডিফেন্স সিস্টেমকেও অন্তর্ভুক্ত করেছিল, যা দাবি করে যে কম এবং মাঝারি উচ্চতায় উড়ে যাওয়ার সময় দীর্ঘ পরিসরে বিভিন্ন আকাশ লক্ষ্যবস্তুকে ট্র্যাক করতে এবং ধ্বংস করতে সক্ষম। পাকিস্তান ও চীনের সামরিক বিশেষজ্ঞরা বলেছেন, তারা যুদ্ধবিমান, ক্রুজ ক্ষেপণাস্ত্র ও ড্রোন ভূপাতিত করতে পারে। বিশেষজ্ঞদের মতে, একটি এলওয়াই-৮০ ব্যাটারি ৮ হাজার বর্গ কিলোমিটার পর্যন্ত সুরক্ষা দিতে পারে। প্রতিটি ব্যাটারিতে লাইট ও পয়েন্টিং রাডার এবং চারটি লঞ্চার রয়েছে। পাকিস্তানি সামরিক বাহিনী দুটি পৃথক এয়ারবোর্ন আর্লি ওয়ার্নিং অ্যান্ড কন্ট্রোল এয়ারক্রাফট সিস্টেম পরিচালনা করে। এগুলো হলো সুইডিশ কোম্পানি সাব দ্বারা নির্মিত সাব ২০০০ আরিয়ে এবং চীনা জেডডিকে-০৩ যার মধ্যে ওয়াই-৮এফ৬০০ বিমানে বসানো এইএসএ রাডার রয়েছে।

পাকিস্তানি সেনাবাহিনীর এত উন্নত বিমান প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা ও অস্ত্রশস্ত্র থাকা সত্ত্বেও তারা তাদের আকাশসীমা রক্ষা করতে পারছে না। এর আকাশসীমা বারবার লঙ্ঘন করা হচ্ছে। এটি ইঙ্গিত দেয় যে হয় এই সিস্টেমগুলি রক্ষণাবেক্ষণের অভাবে ত্রুটিযুক্ত, বা নির্মাতারা যতটা ভালো জিনিসের দাবি করে সেটা ততটাও ভালো না। অথবা এমনও হতে পারে যে, অপ্রশিক্ষিত কর্মীরা এগুলো পরিচালনা করছে।

সম্পর্কিত খবর