‘চিনের থেকে উপার্জন করুন’, ফের EaseMyTrip-র নিশানায় মলদ্বীপ! ফাটাল বড় বোমা

ভারত (India) ও মলদ্বীপের (Maldives) মধ্যে এখনো অবধি তুমুল অচলাবস্থা বজায় রয়েছে। বলা ভালো যত সময় এগোচ্ছে ততই যেন দুই দেশের মধ্যে সম্পর্কের অবনতি ঘটছে একসময় যখন এই দ্বীপ রাষ্ট্রটি ভারতীয়দের উপস্থিতির কারণে গমগম করত এখন একপ্রকার খাঁ খাঁ করছে। এর কারণ বহু ভারতীয় পর্যটক (Tourist) মলদ্বীপের থেকে মুখ ফিরিয়ে নিয়েছেন।

ইতিমধ্যে শয়ে শয়ে ফ্লাইট, হাজার হাজার হোটেল বুকিং অবধি বাতিল করে দেওয়া হয়েছে। এদিকে ভারতকে পাল্টা জবাব দিতে একপ্রকার তৎপর হয়েছে মলদ্বীপ সম্প্রতি চীন সফর করে এসেছেন এই দ্বীপ রাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট মোহাম্মদ মুইজ্জু (Mohamed Muizzu)। এদিকে চিন সফর শেষেই মালদ্বীপ থেকে ভারতীয় সেনা প্রত্যাহারের হুঁশিয়ারি দিয়েছেন মুইজ্জু। এরই মাঝে ফের একবার আসরে নামলেন EaseMyTrip-র সিইও।

   

ভারতের ট্রাভেল এজেন্সি কোম্পানি ইজমাইট্রিপের সিইও নিশান্ত পিটি (Nishant Pitti) মালদ্বীপে ফ্লাইট স্থগিতের সিদ্ধান্তের বিষয়ে একটি বিবৃতি দিয়েছেন। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে নিশান্ত পিট্টি। তিনি লিখেছেন- মলদ্বীপের নতুন সরকার চিনপন্থী, তাই এখন তাদের উচিত চীনা পর্যটকদের কাছ থেকে অর্থ উপার্জন করা, ভারত নয়। প্রসঙ্গত, মালদ্বীপের প্রেসিডেন্ট মোহাম্মদ মুইজ্জু সম্প্রতি চিন সফর করে বেইজিংয়ের কাছে পর্যটকের সংখ্যা বাড়ানোর আবেদন জানিয়েছেন। ইজি মাই ট্রিপের সিইও তার পোস্টে জানিয়েছেন, মলদ্বীপে উড়ান বন্ধ করা কীভাবে খুব কঠিন সিদ্ধান্ত ছিল, কিন্তু দেশকে অগ্রাধিকার দিয়ে তিনি এই পদক্ষেপ নিয়েছেন।

নিশান্ত বলেন, ‘ইন্ডিয়া আউট স্লোগান দিয়ে মুইজ্জু জিতেছেন। ২০২৩ সালের নভেম্বরে প্রেসিডেন্ট মুইজ্জু ইন্ডিয়া আউট স্লোগান দিয়েছিলেন এবং তিনি সংখ্যাগরিষ্ঠতা নিয়ে ক্ষমতায় এসেছিলেন। তারা গত কয়েক বছর ধরে ভারত এবং মলদ্বীপ থেকে পর্যটকদের সরিয়ে নিতে চেয়েছিল। তাই মলদ্বীপের জনগণ যা চেয়েছিল আমরা তাই করেছি।’

maldives

Ease My Trip-এর সিইও লিখেছেন, ‘উত্তেজনা শুরু হওয়ার পর মলদ্বীপে ফ্লাইট স্থগিত করা অত্যন্ত কঠিন ছিল, কারণ তারা আমাদের উপার্জনের একটি বড় অংশ ছিল। তবে আমরা ভারতের প্রায় ৯৫ শতাংশ মানুষের কাছে কৃতজ্ঞ, যারা আমাদের সমর্থন করেছেন। গত এক সপ্তাহে আমাদের অ্যাপটি ২৮০% বেশি ডাউনলোড হয়েছে।’ নিশান্ত আরও বলেন, ‘দেশের প্রায় ৫ শতাংশ মানুষ আমাদের এই পদক্ষেপকে রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিত বলে অভিহিত করেছেন। দেশের মর্যাদার কথা মাথায় রেখেই আমরা এই সিদ্ধান্ত নিয়েছি। বিরোধ যে সরকারই হোক না কেন, এটাই আমাদের সিদ্ধান্ত।’

প্রধানমন্ত্রী মোদীর লাক্ষাদ্বীপ সফরের পর থেকেই বিতর্ক শুরু

সম্প্রতি লাক্ষাদ্বীপ সফর করেছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। এখানকার সৈকতে তাঁর ছবি সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়। গত ৭ জানুয়ারি মলদ্বীপের তিন মন্ত্রী এ বিষয়ে মন্তব্য করেন। তাঁরা প্রধানমন্ত্রী মোদী, ভারত ও ইসরায়েলের সাথে সম্পর্ক নিয়ে আপত্তিকর শব্দ ব্যবহার করেছিলেন। বিতর্ক শুরু হওয়ার পরের দিনই ইজমাইট্রিপ মলদ্বীপে সমস্ত ফ্লাইট বুকিং স্থগিত করে। মোদীকে নিয়ে আপত্তিকর মন্তব্যের পর ভারতে #BoycottMaldives ট্রেন্ডিং শুরু হয়।

সম্পর্কিত খবর