জানুয়ারিতে রেশন কার্ডে গম, চাল নেওয়ার নিয়মে আমূল বদল! অমান্য হলে আর মিলবে না সামগ্রী

যারা ভারতের (India) বাসিন্দা শুধুমাত্র তারাই জানবে রেশন কার্ডের (Ration Card) গুরুত্ব কতটা। কিছু কিছু মানুষের জন্য এই রেশন কার্ড শুধুমাত্র একটি গুরুত্বপূর্ণ নথি হিসেবে ব্যবহৃত হয়, আবার কিছু কিছু মানুষের কাছেই রেশন কার্ড তাদের মুখে অন্ন যোগানোর একটি অন্যতম মাধ্যম।

রেশন কার্ড হল সংশ্লিষ্ট রাজ্য সরকার (State Government) বা কেন্দ্রের (Central Government) কর্তৃক জারি করা সরকারী নথি। এই কার্ডের মাধ্যমে যোগ্য পরিবারগুলি খুব কম হারে রেশন নিতে পারেন। এর আগে, রাজ্য সরকারগুলির চিহ্নিতকরণের ভিত্তিতে, যোগ্য পরিবারগুলিকে টার্গেটেড পাবলিক ডিস্ট্রিবিউশন সিস্টেম (টিপিডিএস) এর মাধ্যমে কম দামে রেশন কেনার অনুমতি দেওয়া হয়।

   

যাইহোক এবার এই রেশন কার্ড নিয়েই প্রকাশ্যে এল বড় তথ্য যা শুনে চমকে যেতে পারেন আপনিও। অনেকেই রেশন কার্ড পাচ্ছেন না বলে অভিযোগ। পাত্র গৃহস্থি এবং অন্ত্যোদয় রেশন কার্ডের কোটা পূরণ হয়ে যাওয়ার কারণে ১৮ হাজার পরিবারের রেশন কার্ড তৈরি হচ্ছে না। অন্ত্যোদয় রেশন কার্ড যাচাইয়ের কাজে নিয়োজিত কর্মচারীরা যোগ্য পরিবার ও ব্যক্তিদের খুঁজে পাননি। এর পরিপ্রেক্ষিতে সরবরাহ বিভাগ এখন ইউনিট যাচাইয়ের জন্য প্রস্তুতি শুরু করেছে।

গণবন্টন ব্যবস্থার আওতায় গরিব কল্যাণ অন্ন যোজনার আওতায় ৫ লক্ষ ৪০ হাজার পরিবারের যোগ্য পরিবার রয়েছে এবং ৬৫ হাজার পরিবারের অন্ত্যোদয় রেশন কার্ড রয়েছে। ১৭৮৯ কোটেদারের মাধ্যমে তারা প্রতি মাসে বিনামূল্যে গম ও চাল পান। এর মধ্যে এক লক্ষেরও বেশি সুবিধাভোগী অযোগ্য যারা বাংলো, যানবাহন এবং বড় বড় বাড়ির মালিক হয়েও গরিব কল্যাণ যোজনার সুবিধা নিচ্ছেন।

free ration

সরবরাহ বিভাগ তাদের শনাক্তকরণের জন্য যাচাই-বাছাই করেছিল, তবে এটি সম্পন্ন হয়েছে।
আপনি জানলে অবাক হবেন, যাচাইকরণে নিযুক্ত কর্মীরা অযোগ্যদের অযোগ্যতার কথা জানাননি। এমন পরিস্থিতিতে আবেদন করা ১৮ হাজার পরিবার রেশন কার্ড পাচ্ছে না। আর এই নিয়ে মাথায় হাত পড়েছে হাজার হাজার পরিবারের। তাদের আবেদনপত্র সরবরাহ বিভাগে দেওয়া হলেও কোটা পূর্ণ হয়েছে বলে ফেরত দিচ্ছেন বিভাগীয় কর্মকর্তারা।

অযোগ্য ব্যক্তিদের চিহ্নিত না করার পরিপ্রেক্ষিতে, সরবরাহ বিভাগ এখন ইউনিট যাচাইয়ের জন্য প্রস্তুতি শুরু করেছে। এতে কোটেদার পালা করে সেই সমস্ত সদস্যের আঙুলের ছাপ পাবে, যাদের নামে রেশন বাড়ানো হচ্ছে। প্রথম মাসে বাড়ির একজন সদস্য রেশন নেবেন, দ্বিতীয় মাসে অন্য সদস্যকে আঙুলের ছাপ দিয়ে রেশন নিতে হবে। এভাবে প্রতি মাসে নতুন সদস্যরা শুধু আঙুল ঘুরিয়ে রেশন নেবেন। সব ইউনিট ভেরিফাই না হওয়া পর্যন্ত এটি অব্যাহত থাকবে। ভেরিফিকেশনের এই নতুন ব্যবস্থা চালু করতে ই-লুপ মেশিনকে আরও উন্নত করার প্রস্তুতি চলছে। এর ফলে আঙুলের ছাপ মিলে গেলেই রেশন পাবেন সকলে।

সম্পর্কিত খবর