পলিহাউসে চাষ করেই কোটি কোটি টাকা কামাচ্ছেন এই যুবক! ফলন বেড়েছে চারগুণ, প্রশিক্ষণ দিচ্ছেন বহু চাষীকেও

আমাদের দেশের প্রায় ৯০ শতাংশ মানুষ সাধারন কৃষিকাজের সাথে যুক্ত। আর সাধারন মানুষের প্রধান পেশা কৃষিকাজ হওয়ায় ভারতকে বলা হয় কৃষিনির্ভর দেশ। কিন্তু আগে বা বলাভালো এখনো বেশ কিছু জায়গায় চাষে কমেছে ঝুঁকির পরিমাণ, আর সাথে বেড়েছে কৃষিতে উপার্জন এমনকি দেশের শীর্ষ শিক্ষার্থীদের জন্যও কৃষি একটি দুর্দান্ত ক্ষেত্র হয়ে উঠেছে। আজকের প্রতিবেদনে সেরকমই এক যুবকের কথা বলতে চলেছি জিনি এমন এক প্রকৌশল বার করেছেন যে, তার চাষের থেকেই আয়ের পরিমাণ দাঁড়িয়েছে কোটি কোটি টাকা (Crore Indian Rupee)।

এই কৃষকের নাম লক্ষ্য। তার এই কৌশলের ফলে চাষের পরিমাণ বেড়েছে প্রায় ৪ গুণ। লক্ষ্য আসলে একপ্রকার পলিহাউস তৈরি করেছেন যা তার ফসলকে বেড়ে উঠতে বিশেষ সাহায্য করে। পলিহাউসের ধারনা নতুন কিছু না হলেও, ভারতের আবহাওয়াতে সেগুলি বেশীদিন টেকে না। এর ফলে কৃষকদেরও যাবতীয় ক্ষতি হয়। কিন্তু লক্ষ্য বলেন যে, কৃষক যদি পলিহাউস বানানোর সময় কিছু গুরুত্বপূর্ণ দিকে নজর দেন তাহলে তিনি সফল হবেনই।

এই পলিহাউস সম্বন্ধে লক্ষ্য বলেন যে, প্রথমেই আপনাকে একটি এক না দেড় ইঞ্চির পাইপ নিতে হবে। তারপর পাইপটিকে মাটির ভিতরে ২ ইঞ্চি মত পুঁতে দিতে হবে। এরপর সেই পাইপকে লু আকৃতি করে মাটির মধ্যে পুঁতে দিতে হবে। তবে খেয়াল রাখবেন যে, আপনি যে শেডটি বানাচ্ছেন তা যেন অন্তত ১২ ফুট লম্বা এবং ৬.৫ ফুট চওড়া হয়। এর কল হলে কেও সেখানে বসে কাজ করতে পারবেনা। এছাড়া লক্ষ্য বলেন যে, তার পলিহাউস পিভিসি পাইপ এবং পোকার জাল দিয়ে তৈরি। আর এরমধ্যে ৪০ মাইক্রন এর ইনসেক্ট নেটও ব্যবহার করা হয়। সমস্ত মরসুমেই ফলপ্রসূ এই পলিহাউস।

নিজে তো সাফল্য পেয়েছেনই, কিন্তু এবার সেই সাফল্য সবার সাথে ভাগ করে নিতে চাইছেন লক্ষ্য, তাই তিনি তার খামারে অনেক শিক্ষার্থীকে একজন প্রশিক্ষণও দিচ্ছেন। এরপর ওই পলিহাউসে তার বহু ছাত্র চাষের জন্য প্রয়োজনীয় সমস্ত কিছু শিখে সেখানে। এছাড়া লক্ষ্যের তৈরি করা এই পলিহাউসটিরবিশেষ বৈশিষ্ট্য হলো যে, আপনার প্রয়োজন অনুযায়ী আপনি এটিকে বড় বা ছোট করতে পারেন। এছাড়া সেখানে আপনার প্রয়োজনীয় সমস্ত কাজের জিনিসও রাখতে পারেন। তার প্রশিক্ষণের ফলে শুধু লক্ষ্য একাই নন, বহু মানুষ এই পলিহাউস এর সুযোগ সুবিধা নিতে পারছে।

➦ আপনার জন্য বিশেষ খবর

Back to top button