ঘরে বসেই প্রতিমাসে পাবেন ২১ হাজার টাকা! আজই নাম লেখান কেন্দ্রের এই প্রকল্পে

সরকারি চাকরি মানেই অবসরের পর মোটা টাকার পেনশন। যদিও আমাদের দেশে সরকারি চাকুরিজীবী মানুষের সংখ্যা খুবই কম। যেহেতু ভারত একটা কৃষি নির্ভরশীল দেশ তাই মোট জনসংখ্যার একটা বড়ো অংশ মূলত কৃষক। এখন এই খেটে খাওয়া মানুষদের বৃদ্ধকালীন জীবন কে আর্থিক ভাবে সুরক্ষিত এবং সুনিশ্চিত করতে বেশ কয়েক বছর আগেই পেনশন প্রকল্প চালু করা হয়েছে।

২০১৪ সালে নরেন্দ্র মোদী প্রধানমন্ত্রীর মসনদে বসার পর থেকেই বেশ কিছু বড়ো প্রকল্প হাতে নেয়। মোদী নেতৃত্বাধীন বিজেপি সরকার এইসব প্রান্তিক মানুষের কথা মাথায় রেখে চালু করেন বেশ কিছু জনহিতকর প্রকল্প। তার মধ্যে রয়েছে অটল (atal pension yojna) পেনশন যোজনা, সুকন্যা সমৃদ্ধি যোজনা, পাবলিক প্রবিডেন্ট ফান্ডের মতো একাধিক জনমুখি প্রকল্প। এই প্রকল্পগুলি আসার পর যে, মানুষের সত্যিই সুবিধা হয়েছে তা আর বলার অপেক্ষা রাখেনা।

   

যদিও দেশ স্বাধীন হওয়ার পর থেকেই মানুষের জন্য চালু করা হয়েছিলো পিপিএফ (ppf)। পিপিএফ অর্থাৎ পাবলিক (public provident fund) প্রবিডেন্ট ফান্ডের সূচনা হয় আজ থেকে কয়েক দশক আগে। বৃদ্ধ বয়সে মানুষকে আর্থিকভাবে সুরক্ষা দেওয়ার জন্যই তৈরি হয়েছিলো এই প্ল্যান। দেশের অধিকাংশ মানুষই এই পিপিএফ অর্থাৎ পাবলিক প্রবিডেন্ট ফান্ডের সুবিধা নিয়ে নিয়েছেন।

এদিকে পিপিএফের মতোই অটল পেনশন যোজনার সুবিধাও নিচ্ছেন দেশের বহু প্রান্তিক দিন মজুর, শ্রমিক শ্রেণীর মানুষ। তবে এখনও বহু মানুষ আছেন যারা এই প্রকল্পের নাম শুনলেও এর প্রক্রিয়া প্রণালী সম্পর্কে অবগত নয়। জানিয়ে রাখি, এই পেনশন প্রকল্পে বৃদ্ধকালীন বয়সে ঘরে বসে আপনি পেতে পারেন ২১০০০ টাকা পেনশনের মতো সুবিধা।

সম্প্রতি কেন্দ্রীয় সরকারের তরফ থেকে জারি করা বিজ্ঞপ্তি অনুযায়ী, ১৮ থেকে ৬০ বছর বয়সী পর্যন্ত যে কোনো ব্যক্তি ৬০ বছর পূর্ণ হওয়া পর্যন্ত প্রতিমাসে একটা টাকা জমা করতে পারেন। এরপর আমানতকারীর ৬০ বছর পূর্ণ হতেই তিনি প্রতিমাসে একটা নির্দিষ্ট অঙ্কের টাকা পেনশন হিসেবে পাবেন। চলুন দেখে নিই এই প্রকল্পের যাবতীয় নিয়মাবলী।

1. ১৮ থেকে ৬০ বছর বয়সের মধ্যে আপনি যদি প্রতি মাসে ১০০০ টাকা করে জমা করেন তাহলে মোট সঞ্চয় হয় ৫ লক্ষ ৪ হাজার টাকা। পাশাপাশি এতে রয়েছে বার্ষিক ১০ শতাংশ রিটার্নের সুবিধা। অর্থাৎ মোট টাকা হবে ১.০৫ কোটি টাকা। এখন আপনি যদি কর্পাসের ৪০ শতাংশ বার্ষিকীতে রূপান্তর করেন তাহলে সেই মূল্য হবে ৪২.২৮ লাখ টাকা। সেখান থেকেই মাসিক পেনশন পাবেন ১০ শতাংশ হারে ২১ হাজার ১৪০ টাকা। পাশাপাশি এককালীন ৬৩.৪১ লক্ষ টাকা হাতে পাবেন আপনি।

2. প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, ৬০ বছর বয়স অবদি প্রতি মাসেই নিয়ম করে টাকা জমা করতে হবে আপনাকে। আপনার এই মোট সঞ্চয়ের উপর সরকার সুদসহ আপনাকে প্রতিমাসে একটা পেনশন দেবে।

3. উল্লেখ্য বিষয় হলো, কোনো কারণে যদি আমানতকারীর মৃত্যু হয় তাহলে তিনি যাকে নমিনি করে রাখবেন তাকেই এককালীন সমস্ত টাকা ফেরত দেওয়া হবে সরকারের তরফ থেকে।

4. এই জনমুখি প্রকল্পটি এখন দেশের সব পোস্ট অফিস এবং ব্যাঙ্কে উপলব্ধ রয়েছে। আপনার সামনাসামনি যে কোনো রাস্ট্রায়ত্ব ব্যাঙ্ক এবং পোস্ট অফিস মারফৎ দেশের যে কোনও ব্যক্তি এই প্রকল্পের সুবিধা গ্রহণ করতে পারবেন।

5. সবচেয়ে সুবিধার বিষয় হলো এই প্রকল্পে জমা হওয়া টাকা কর মুক্ত অর্থাৎ ট্যাক্স (tax free)ফ্রি।

6. তবে এই জন্য ঐ ব্যক্তির পোস্ট অফিস, বা সংশ্লিষ্ট ব্যাঙ্কে নিজের অ্যাকাউন্ট থাকা আবশ্যক।

সম্পর্কিত খবর