ভারতীয় রেলে ব্রডগেজ, মিটারগেজ এবং ন্যারোগেজ লাইনের মানে জানেন? চমকে দেবে তথ্য

ভারতীয় রেল (Indian Railways) নিয়ে সবাইই বেশ কৌতূহল। এদেশে রেলকে জনজাতির লাইফলাইন বলা হয়ে থাকে। দেশের মধ্যে চলতে থাকা কিছু ট্র্যাক বেশ প্রশস্ত, আবার কিছু ট্র্যাক সেরকম চওড়া নয়। কিন্তু কেন এমন হয়? চলুন আজ দেশের রেলওয়ে ট্র্যাক গুলো নিয়ে একটু জেনে নিই।

ভারতে রয়েছে বিশ্বের দ্বিতীয় বৃহত্তম রেল নেটওয়ার্ক। দেশের বিভিন্ন প্রান্তিক জায়গা থেকেও ভারতীয় রেলের সুবিধা মেলে যাত্রীদের। রেলওয়ে ট্র্যাক সম্পর্কে জানার আগে চলুন জেনে নিই কি এই রেলগেজ। অনেকেই হয়তো নামটাই প্রথমবারের মত শুনছেন।

কী এই রেলগেজ : রেলগেজ হলো দুটি ট্র্যাকের ভিতরের মধ্যেকার ন্যূনতম উল্লম্ব দূরত্ব। সহজে বললে যেকোনও রেলপথে দুটি ট্র্যাকের মধ্যবর্তী দূরত্বকে বলা হয় রেলগেজ। বিশ্বের রেলপথের প্রায় ষাট শতাংশ 1,435 মিমি স্ট্যান্ডার্ড গেজ ব্যবহার করে। ভারতে 4 ধরনের রেলগেজ ব্যবহার করা হয় আর সেই কারনে 4 ধরনের রেল লাইন পাওয়া যায়, যেগুলি হলো ব্রড গেজ, মিটার গেজ, ন্যারো গেজ এবং স্ট্যান্ডার্ড গেজ (দিল্লি মেট্রোর জন্য)।

ব্রডগেজ : ব্রডগেজকে ওয়াইড গেজ বা বড় লাইনও বলা হয়। এই রেলগেজে দুটি ট্র্যাকের মধ্যে দূরত্ব হল 1676 মিমি (5 ফুট 6 ইঞ্চি)। ভারতে প্রথম রেল লাইন তৈরি হয় 1853 সালে, তখন বোর বন্দর (বর্তমানে ছত্রপতি শিবাজি টার্মিনাস) থেকে থানে পর্যন্ত একটি ব্রডগেজ লাইন তৈরি করা হয়েছিল।

স্ট্যান্ডার্ড গেজ : এই রেলগেজের দুটি ট্র্যাকের মধ্যে দূরত্ব হল 1435 মিমি (4 ফুট 8½ ইঞ্চি)। ভারতে এই স্ট্যান্ডার্ড গেজ ব্যাবহার করা হয় শুধুমাত্র মেট্রো, মনোরেল এবং ট্রামের মতো শহুরে রেল ট্রানজিট সিস্টেমের জন্য। 2010 সাল পর্যন্ত ভারতের একমাত্র স্ট্যান্ডার্ড গেজ লাইন ছিল কলকাতার ট্রাম সিস্টেমে। শহুরে এলাকার সমস্ত মেট্রো লাইন শুধুমাত্র স্ট্যান্ডার্ড গেজ নিয়মেই শুরু হচ্ছে। যেমন দিল্লি মেট্রো, র‌্যাপিড মেট্রো রেল গুরগাঁও, ব্যাঙ্গালোর মেট্রো এবং মুম্বাই মেট্রো।

মিটারগেজ : এই ক্ষেত্রে দুটি ট্র্যাকের মধ্যেকার দূরত্ব হল 1,000 মিমি (3 ফুট 3 3/8 ইঞ্চি)। রেলের খরচ কমাতে ব্যাবহার করা হয় এই মিটারগেজ লাইন। নীলগিরি মাউন্টেন রেলওয়ে বাদ দেওয়া হলে ইউনিগেজ প্রকল্পের অধীনে সমস্ত মিটারগেজ লাইন ব্রডগেজে রূপান্তরিত হবে।

ন্যারো গেজ : একে অনেক সময় ছোট লাইনও বলা হয়ে থাকে। ন্যারো-গেজ রেলপথের দুটি ট্র্যাকের মধ্যে দূরত্ব 2 ফুট 6 ইঞ্চি (762 মিমি) থেকে 2 ফুট (610 মিমি)। গত 2018 সালে বন্ধ হয়েছে দেশের শেষ ন্যারো গেজ লাইন। একমাত্র দার্জিলিং এই এখনো এই ধরনের ট্র্যাকে ট্রেন চলছে।

সবচেয়ে বেশি খরচ করতে হয় ব্রডগেজ বা স্ট্যান্ডার্ড গেজের রেললাইন বসাতে। তবে ট্রেনের উচ্চগতির জন্য মিটার গেজ বা ন্যারোগেজ ট্র্যাকের পরিবর্তে ব্রডগেজ ট্র্যাককে অগ্রাধিকার দেওয়া হয়।

➦ আপনার জন্য বিশেষ খবর

Back to top button