২০ লক্ষের প্যাকেজ ছেড়ে ছাদে মাটি ছাড়া সবজি চাষ শুরু করেন দুই IITians, এখন আয় ৪ কোটি টাকা

বর্তমানে ধীরে ধীরে বদলাচ্ছে দিন। মানুষ আবার চাকরি ছেড়ে ফিরে আসছে চাষবাসে। তেমনই আরো একটু উদাহরণ তৈরি করলেন দুই আইআইটিয়ান। বহুজাতিক কোম্পানিতে লাখ টাকার প্যাকেজ এবং বিলাসবহুল জীবনযাত্রা ছেড়ে দুই আইআইটিয়ান বাড়ির ছাদে শুরু করেন সবজি চাষ। এবং সবাইকে অবাক করে দিয়ে মাত্র ৪ বছরেই দুজনের টার্নওভার দাঁড়িয়েছে ৪ কোটি টাকায়।

শ্রী গঙ্গানগরের অমিত কুমার এবং রাওয়াতভাটার অভয় সিং মুম্বাইয়ের আইআইটি-তে পড়াশোনা করেছেন। দুজনেই পড়াশোনা করেছেন রোবোটিক্স নিয়ে। সেই সময় থেকেই দুজনেই খুব ভালো বন্ধু হয়ে ওঠে। অমিত ও অভয় চাকরি শুরু করেন ২০১৫ সালে। তখন দুজনের বার্ষিক প্যাকেজ ছিল প্রায় ১৫ লাখ টাকা। ২০১৭ সাল পর্যন্ত দুজনেই পুনে, মুম্বাই ব্যাঙ্গালোরে বিভিন্ন কোম্পানিতে কাজ করেছেন।

   

তিনি যখন বিভিন্ন রাজ্যে ভ্রমণ করেন, তখন দুজনেই সিদ্ধান্ত নেন যে তারা কৃষিতে কিছু একটা করবেন। এরপর তারা ২০১৮ সালে শুরু করেন কৃষিকাজ। এবং মাত্র ৪ বছরে কৃষিকে একটি কর্পোরেট ব্যবসায় পরিণত করেন তারা। আজ ৭৫ জনের একটি দল তাদের সাথে কাজ করছে। রয়েছে শ্রমিক থেকে শুরু করে মার্কেটিং টিম এবং ম্যানেজার। কোম্পানির প্রতিষ্ঠাতা অমিত বলেন, আমাদের কোম্পানির উদ্দেশ্য মানুষকে বিশুদ্ধ অর্গানিক সবজি সরবরাহ করা। কোটা, বুন্দি এবং ভিলওয়ারায় তাদের ৫টি পলিহাউস রয়েছে। একটি পলিহাউস থেকে মাসিক আয় প্রায় ১০ লাখ টাকা।

এমন পরিস্থিতিতে একটি পলিহাউস থেকে বছরে ১ কোটির বেশি এবং সব পলিহাউসে ৪ কোটির বেশি লেনদেন হয়। পলিহাউসে উৎপাদিত সবজি দেশের বহু বহুজাতিক ফুড ব্র্যান্ড ও ফাস্টফুড কোম্পানির কাছে বিক্রি হচ্ছে। তারা জানান যে, এটা তাদের কাছে যথেষ্ট চ্যালেঞ্জিং ছিল। তারা কৃষকদের সাথে দেখা করে তাদের আয় দ্বিগুণ করতে চেয়েছিলেন। সেই জন্য তারা দুজনেই দেশের বিভিন্ন রাজ্যের গ্রামে গ্রামে ৬ মাস ঘুরেছেন। সেখানে কৃষকদের সঙ্গে দেখা করে তিনি জৈব চাষের ধারণা বুঝে নেন।

এর থেকেই গ্রোয়িং চেম্বার্সের ধারণা আসে তাদের মধ্যে। অভয় ও অমিত জানান যে, তারা জমির মালিকের সঙ্গে অংশীদারিত্বে ভিলওয়ারায় ১ একর জমিতে পলিহাউস তৈরি করেছেন। এরপর ২০২১ সালে বুন্দির তালেরা ও নান্তায় দুটি পলিহাউস নির্মাণ করা হয়। তারা এও জানান যে, এখন তারা পানিপথে ৫ একর, জয়পুরে ৩ একর এবং কোটায় ২০ একর জমিতে পলিহাউস তৈরি করছেন। চলতি বছরের মধ্যে ১০০ একর জমিতে পলিহাউস নির্মাণের পরিকল্পনা রয়েছে তাদের।

সম্পর্কিত খবর