জমি ছাড়াই বাড়িতে হলুদ চাষ করে বছরে আয় করুন লাখ লাখ টাকা, রইল সবথেকে সহজ পদ্ধতি

ভারত (India) তথা সারা বিশ্বেই জনসংখ্যা প্রচুর পরিমাণে বেড়েই চলেছে। একইসাথে দেশে বাড়ছে বাড়ির সংখ্যা এবং সেই জনসংখ্যার প্রয়োজনীয় দ্রব্যাদির কারণে কলকারখানার সংখ্যাও বেড়ে চলেছে তরতর করে। তবে এই ক্ষেত্রে সমস্যা হয়ে দাঁড়িয়েছে চাষের।

ঘরবাড়ি এবং কলকারখানা বাড়ায় চাষাবাদ যোগ্য জমির সংখ্যাও কমে যাচ্ছে জলদি জলদি। এমতাবস্থায় চাষাবাদের পুরনো পদ্ধতি ছেড়ে অনেকে নতুনভাবে চাষ শুরু করছেন। আর এই নতুন পদ্ধতির একটি হলো ভার্টিক্যাল ফার্মিং। এই নতুন কৌশলের সাহায্যে খুবই কম জায়গায় খুব ভালো চাষ করা সম্ভব।

এই চাষ করেই নিজের নতুন ব্যবসা শুরু করতে পারেন আপনারা। আজ আমরা আপনাদের জানাবো কীভাবে ভার্টিক্যাল ফার্মিং করে হলুদ চাষ করবেন। এইভাবে হলুদ চাষ করলে কত রোজগার হয় সেই সম্পর্কেও জানাবো আপনাদের।

কীভাবে করবেন উল্লম্ব চাষ : ভার্টিক্যাল ফার্মিং এর জন্য জিআই পাইপগুলিকে লম্বা পাত্রের মধ্যে 2-3 ফুট গভীরে রেখে 2 ফুট পর্যন্ত চওড়া করে উল্লম্বভাবে সেট করে দিন। লক্ষ্য রাখবেন যাতে প্রতিটি পাত্রের উপরের অংশ খোলা থাকে। এবার এর মধ্যেই হবে হলুদের চাষ হয়। মহারাষ্ট্রের একটি কোম্পানি এভাবেই খুব বড় আকারের হলুদ চাষ করছে।

কীভাবে চাষ করবেন : প্রথমে 10 সেন্টিমিটার দূরত্বে জিগজ্যাগ পদ্ধতিতে ভার্টিক্যালি হলুদ রোপণ করা হয়। হলুদ গাছ বাড়লে দুই সারি হলুদের বীজ মাটির পাত্রে রোপণ করা হয়। এই ধরনের ভার্টিক্যালি চাষের জন্য হলুদ সবচেয়ে ভালো কারণ হলুদ চাষের জন্য বেশি সূর্যালোকের প্রয়োজন হয় না। ছায়াতেও দারুণ ভালোভাবে হলুদ জন্মে যায়। রোপণ করার প্রায় 9 মাসের মধ্যে হলুদ চাষ করা সম্ভব হবে।

কত লাভ করতে পারবেন আপনি : আপনি যদি খুব ভালোভাবে চাষ করতে পারেন তাহলে রোজগার হবে দারুণ। উদাহরণ হিসেবে আপনার কাছে যদি 250 টন হলুদ চাষ করতে পারেন এবং সেটি যদি 100 টাকা কেজি দরে বিক্রি হয়, তাহলে আপনি 2.5 কোটি টাকা আয় করতে পারবেন।

turmeric

আপনি যদি 70 লাখ টাকা খরচ করেন এই চাষে তাহলেও আপনি 1.8 কোটি টাকা লাভ করতে পারবেন। এছাড়া আপনি চাইলে হলুদ গুঁড়ো বানিয়ে বিক্রিও করতে পারেন।

➦ আপনার জন্য বিশেষ খবর

Back to top button