দিঘা জুড়ে নয়া আতঙ্ক, একে একে হোটেল ছাড়ছেন পর্যটকরা! ঘুরতে যাওয়ার আগে সাবধান

উইকএন্ডে কি দিঘা (Digha) যাওয়ার প্ল্যান? তাহলে সেখানে যাওয়ার আগে সাবধান হয়ে যান, নইলে ঘোর বিপদ নাচছে আপনার কপালে কিন্তু। দিঘায় এখন যারা ঘুরতে গিয়েছেন তাঁরা এক নয়া বিপদের রাম ঠ্যালার জেরবার হয়ে গিয়েছেন। সকলেই এখন বেশ কিছুদিন থাকার প্ল্যান বাতিল করে যে যার বাড়ি ফিরে যাচ্ছেন।

শীত, গ্রীষ্ম হোক বা বর্ষা, বছরের যে কোনও সময়ে মানুষ এই দিঘায় ঘুরতে চলে আসেন। কেউ কেউ হয়তো এই সমুদ্র নগরীতে প্রথমবারের মতো ঘুরতে আসেন তো কেউ কেউ এমনও রয়েছেন যারা ৫-১০ বার হয়েছে দিঘা ঘুরেছেন, তাও যেন নতুন লাগে সবকিছু। এদিকে বিপুল পরিমাণে পর্যটকের কথা ভাবনা চিন্তা করে এখন দিঘাকে ঢেলে সাজাচ্ছেন প্রশাসন।

   

যদিও সাম্প্রতিক সময়ে দিঘায় যারা ঘুরতে গিয়েছেন তাঁরা নাছোড়বান্দা মশার (Mosquito) জ্বালায় অতিষ্ঠ হয়ে উঠেছেন। এই মশার জ্বালায় কেউ কেউ আছেন হোটেল বদল করছেন আবার কেউ কেউ ব্যাগপত্তর গুছিয়ে বাড়ি ফিরে যাচ্ছেন। বর্তমান সময়ে যারা দিঘা গিয়েছেন সকলের মুখে একটাই কথা, দিঘা একদম নববধূর সাজে সেজে উঠেছে। যদিও এই ঝাঁ চকচকে রাস্তা,পথবাতি, অডিয়ো ভিজ্যুয়াল সাউন্ড সিস্টেম,পার্ক সহ বিনোদনের একাধিক উন্নয়ন মূলক কাজ হলেও দিঘায় ড্রেন নিয়ে সমস্যার কথা জানিয়েছেন বহু মানুষ। সেখানে নোংরা জল থেকে দুর্গন্ধ ছড়িয়ে পড়ছে এবং সেই নোংরা জলে মশার জন্ম নিচ্ছে। আর এমনই দাবি করছেন স্থানীয়দের একাংশ।

এদিকে মশার উপদ্রবের কারণে সমুদ্রের পাড়ে বসতে পারছেন না পর্যটকরা বলেও অভিযোগ তুলছেন অনেকে। এই বিষয়ে দিঘা শংকরপুর উন্নয়ন পর্ষদের এক্সিকিউটিভ অফিসার সৈকত হাজরা জানান, ‘এই বিষয়টি আগেও আমাদের নজরে এসেছে। যাতে ড্রেনের নোংরা জল জমে না থাকে তার জন্য দ্রুত ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে।‘

digha

অন্যদিকে কিছু কিছু পর্যটক বলছেন, ‘ড্রেনের মধ্যে জল জমে রয়েছে। ফলে মশা জন্মাচ্ছে। সেই মশা সমুদ্রের রূপ উপভোগ করতে আসা মানুষের কাছে বাধার কারণ হয়ে দাঁড়াচ্ছে। স্থানীয় প্রশাসনের কাছে আবেদন থাকবে যাতে ড্রেনের জমে থাকা জল পরিষ্কার করার ব্যবস্থা করা হয়।’

 

বিগত ৭ বছর ধরে সাংবাদিকতার পেশার সঙ্গে যুক্ত। ডিজিটাল মিডিয়ায় সাবলীল। লেখার পাশাপাশি বিভিন্ন ধরনের বই পড়ার নেশা।

সম্পর্কিত খবর