হাওড়া, শিয়ালদা থেকে এক ট্রেনেই গ্যাংটক? ঠিক কতদূর যাওয়া যাবে সিকিমের! জানাল রেল

স্বাধীনতার পর এই প্রথম উত্তর-পূর্বের রাজ্য সিকিমে (Sikkim) ঢুকতে চলেছে রেল (Indian Railways) ব্যবস্থা। অর্থাৎ এবার এক ট্রেনেই পর্যটকরা খুব সহজেই সিকিমের মতো জায়গায় পৌঁছে জেতে পারবেন। এই রেল ব্যবস্থা নিয়ে পর্যটকদের মধ্যে আনন্দের শেষ নেই। গত ২৬ ফেব্রুয়ারি সিকিমের প্রথম রেল স্টেশন রেংপোর ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী।

এছাড়া ৫৫০টি অমৃত রেল স্টেশনের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন প্রধানমন্ত্রী। সিকিমে এখনও কোনও রেলস্টেশন নেই। এখনও পর্যন্ত সিকিমের নিকটতম রেলওয়ে স্টেশন হল পশ্চিমবঙ্গের নিউ জলপাইগুড়ি (১৮৭ কিমি), শিলিগুড়ি (১৪৬ কিমি)। রংপো রেলওয়ে স্টেশনের কাজ তিনটি পর্যায়ে শেষ হবে। প্রথম পর্যায়ে স্টেশনটি সিভক থেকে রংপো, দ্বিতীয় পর্যায়ে রংপো থেকে গ্যাংটক এবং তৃতীয় পর্যায়ে গ্যাংটক থেকে নাথুলা পর্যন্ত স্টেশন নির্মাণ করা হবে। হ্যাঁ ঠিকই শুনেছেন।

   

রেললাইন প্রকল্প সেবক-রংপো (৪৪ কিলোমিটার) ২০২২ সালে অনুমোদিত হয়েছিল। মোট ৪৪.৯৬ কিলোমিটার দৈর্ঘ্যের মধ্যে ৩৮.৬৫ কিমি (৮৬%) টানেলে, ২.২৪ কিমি (৫%) সেতুতে এবং ৪.৭৯ কিমি (৯%) স্টেশন ইয়ার্ডের খোলা কাটা/ভরাট। প্রস্তাবিত সেবক-রাংপো লাইনে ১৪ টি টানেল রয়েছে, যার মধ্যে ৫.৩০ কিলোমিটার দীর্ঘ টানেল এবং ক্ষুদ্রতম টানেলটি ৫৩৮ মিটার। সেবক এবং রংপো সহ রেলপথের পাঁচটি স্টেশন পরিকল্পনা করা হয়েছে। চারটি স্টেশন সেবক, রিয়াং, মেল্লি ও রংপোর মতো উন্মুক্ত ক্রসিং স্টেশন এবং তিস্তা বাজারের একটি ভূগর্ভস্থ হলস্টেশন করার প্রস্তাব করা হয়েছে।

sevok rongpo

উত্তর-পূর্বাঞ্চলের ৮টি রাজ্যের মধ্যে এখন ৭টি রাজ্যে রেল নেটওয়ার্ক চালু হয়েছে। সিকিমের জন্য, নতুন রেল লাইন প্রকল্প সেবক-রংপো (৪৪ কিমি) অনুমোদিত হয়েছিল। যদিও একটা প্রশ্ন থেকেই যাচ্ছে, ট্রেনে চড়ে সিকিমের কতদূর পর্যন্ত যেতে পারবেন পর্যটকরা? এই প্রসঙ্গে জানা যাচ্ছে, আপাতত কাজ সমাপ্ত করার পর পর্যটকরা নিউ জলপাইগুড়ি স্টেশনের পরিবর্তে সোজা পৌঁছে যেতে পারবেন রংপো স্টেশন পর্যন্ত।

বিগত ৭ বছর ধরে সাংবাদিকতার পেশার সঙ্গে যুক্ত। ডিজিটাল মিডিয়ায় সাবলীল। লেখার পাশাপাশি বিভিন্ন ধরনের বই পড়ার নেশা।

সম্পর্কিত খবর