লাক্ষাদ্বীপ চলো! ভারত বিরোধিতার জেরে মালদ্বীপের সমস্ত ফ্লাইট বুকিং ক্যান্সেল EaseMyTrip-র!

যারা ঘুরতে (Travel) ভালোবাসেন, বিশেষ করে যারা সমুদ্রপ্রেমী তাদের কাছে মালদ্বীপ (Maldives) স্বর্গের তুলনায় কম কিছু নয়। প্রত্যেক বছর কয়েক হাজার মানুষ এই দ্বীপরাষ্ট্রে ঘুরতে যেতে পছন্দ করেন। বলিউড, বলিউড সেলিব্রেটি থেকে শুরু করে হানিমুন দম্পতি…. অনেকেই যান এই মালদ্বীপে ঘুরতে।

তবে সম্প্রতি এই স্বর্গের মতো সুন্দর জায়গাটিকে ঘিরেও শুরু হয়েছে নানা বিতর্ক। রীতিমতো ক্ষোভে ফুঁসছেন ভারতীয়রা (Indians)। এক কথায় ঝপ করে যেন এই মালদ্বীপ সকলের চক্ষুশূল হয়ে উঠেছে বলা চলে। সোশ্যাল মিডিয়ায় (Social Media) ভারতের (India) বিরুদ্ধে আপত্তিকর মন্তব্য করার পর থেকেই মালদ্বীপের ওপর মানুষের ক্ষোভ ছড়িয়ে পড়েছে। এখন নেটিজেনরা #BycottMaldives দিয়ে টুইট করতে শুরু করেছে। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে মানুষ শুধু মালদ্বীপের সমালোচনাই করছেন না, তারা বলছেন, ভবিষ্যতে তারা মালদ্বীপে ঘুরতে অবধি যাবেন না। সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্ম এক্স-এ রবিবার সারাদিন #BycottMaldives ট্রেন্ড করেছে।

   

ভারত ও প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে (Narendra Modi) নিয়ে মালদ্বীপের নেতাদের আপত্তিকর মন্তব্যের প্রভাব দেখা দিতে শুরু করেছে। মালদ্বীপের বিরুদ্ধে অনলাইন বয়কট অভিযান শুরু হয়েছে। অনলাইন ভ্রমণ সংস্থা EaseMyTrip মালদ্বীপের জন্য সমস্ত ফ্লাইট বুকিং স্থগিত করেছে। প্রধানমন্ত্রী মোদীর লাক্ষাদ্বীপ (Lakshadweep) সফরের পরেই মালদ্বীপের নেতারা ভারত সম্পর্কে বিষাক্ত কথা বলতে শুরু করেন।

এদিকে ভারতীয় অনলাইন ট্রাভেল কোম্পানি ইজমাইট্রিপের সহ-প্রতিষ্ঠাতা ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) নিশান্ত পিত্তি (Nishant Pitti) ভারতের সমর্থনে সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্ম এক্স-এ ফ্লাইট বুকিং স্থগিত করার ঘোষণা করেন। তিনি জানান, “আমাদের দেশের সাথে সংহতি প্রকাশ করে ইজমাইট্রিপ মালদ্বীপে সমস্ত ফ্লাইট বুকিং স্থগিত করেছে।”

EaseMyTrip এর সদর দফতর দিল্লিতে অবস্থিত। ২০০৮ সালে নিশান্ত পিত্তি, রিকান্ত পিত্তি এবং প্রশান্ত পিত্তি এই সংস্থাটি প্রতিষ্ঠা করেছিলেন। ইজমাইট্রিপের তরফে জানানো হয়েছে, ‘আমরা লাক্ষাদ্বীপের প্রচারের জন্য অনন্য বিশেষ অফার নিয়ে আসব, যেখানে আমাদের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী সম্প্রতি সফর করেছেন।’ তাহলে কী এবার মালদ্বীপের পরিবর্ত-এ কি এবার সকলে লাক্ষাদ্বীপ যাবেন?

nishant pitti

একই সঙ্গে মালদ্বীপ সরকার মরিয়ম শিউনা, মালশা শরীফ ও মাহজুম মজিদের বক্তব্য থেকে নিজেকে দূরে সরিয়ে নিয়েছে। এই তিন মন্ত্রী সোশ্যাল মিডিয়ায় ভারত ও প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর বিরুদ্ধে আপত্তিকর মন্তব্য করেছিলেন। মালদ্বীপ বলেছে যে এগুলি তাদের ব্যক্তিগত মতামত এবং এগুলি সরকারের দৃষ্টিভঙ্গির প্রতিনিধিত্ব করে না।

বিগত ৭ বছর ধরে সাংবাদিকতার পেশার সঙ্গে যুক্ত। ডিজিটাল মিডিয়ায় সাবলীল। লেখার পাশাপাশি বিভিন্ন ধরনের বই পড়ার নেশা।

সম্পর্কিত খবর