Jio-কে জোর ঝটকা দিল চুনোপুঁটি ভোডাফোন! VI-র এই পদক্ষেপে স্বস্তিতে কোটি কোটি গ্রাহক

ভারতে (India) 5G সংযোগের পরিধি ক্রমাগত বাড়ছে। রিলায়েন্স Jio এবং ভারতী এয়ারটেল (Bharti Airtel) এই দুই টেলিকম সংস্থা হাই স্পিড নেটওয়ার্ক দেওয়ার জন্য কাজ করছে। ভোডাফোন-আইডিয়াও (Vodafone Idea) 5G পরিষেবা চালু করতে চলেছে। এদিকে খবর আসছে, রিলায়েন্স জিও ভারত সরকারকে টুজি ও থ্রিজি নেটওয়ার্ক বন্ধ করার অনুরোধ করেছে। টেলিকম রেগুলেটরি অথরিটি অফ ইন্ডিয়ার (ট্রাই) প্রকাশিত একটি গবেষণাপত্রে এমনই দাবি করা হয়েছে। ‘ডিজিটাল ট্রান্সফরমেশন থ্রু ফাইভজি ইকোসিস্টেম’ শীর্ষক এক গবেষণাপত্রে এ কথা জানিয়েছে রিলায়েন্স। হঠাৎ ভারত থেকে টুজি ও থ্রিজি নেটওয়ার্ক চলে যাচ্ছে কেন, এবং এর প্রভাব কী হবে, আসুন তা বোঝার চেষ্টা করি।

ভারত থেকে কি ২জি ও ৩জি বিদায় নিচ্ছে?

রিলায়েন্স জিও ভারতে ২জি এবং ৩জি নেটওয়ার্ক বন্ধ করার জন্য সরকারকে অনুরোধ করেছে। এর ফলে দেশের টেলিকম খাত সর্বাধুনিক নেটওয়ার্কে শিফট করার সুযোগ পাবে। রিলায়েন্স জিও এবং এয়ারটেল ইতিমধ্যেই ভালো স্পিড সহ 5G কভারেজ দিচ্ছে। তারা আনলিমিটেড ৫জি ইন্টারনেট পরিষেবা দিচ্ছে। তবে শিগগিরই এই দুই টেলিকম অপারেটর 5G রিচার্জ প্ল্যান ঘোষণা করতে পারে।

   

জিও এবং এয়ারটেল ছাড়াও ভোডাফোন-আইডিয়া দেশজুড়ে 5G পরিষেবা দেওয়ার প্রস্তুতি নিচ্ছে। ভারতে Vi এর 5G সংযোগ পর্যায়ক্রমে মুক্তি পাবে। সরকারি টেলিকম সংস্থা বিএসএনএল বর্তমানে সারা দেশে 4G পরিষেবার সুযোগ সম্পূর্ণ করার চেষ্টা করছে। এরপরই শুরু হবে ফাইভ-জির কাজ। একই সঙ্গে টুজি ও থ্রিজি নেটওয়ার্ক বন্ধের পেছনে অপ্রয়োজনীয় খরচ কমানোর কথা বলা হচ্ছে। ভারতে এখনও কোটি কোটি ব্যবহারকারী টুজি ও থ্রিজি সেবা ব্যবহার করেন।

vodafone idea

রিপোর্ট অনুযায়ী, ভোডাফোন 2G/3G ফোন চালিত ব্যক্তিদের 5G ফোনে স্থানান্তরিত করার জন্য সরকারের কাছ থেকে ভর্তুকি দাবি করেছে। বর্তমানে টুজি বা থ্রিজি বন্ধের বিষয়ে কোনো সিদ্ধান্ত নেয়নি সরকার।

সম্পর্কিত খবর