গঙ্গার নীচে মেট্রোয় মোবাইলের নেটওয়ার্ক থাকবে তো! চলে এল পাক্কা খবর, জানুন কী বলছে কর্তৃপক্ষ

গঙ্গার (Ganges) নীচে দিয়ে কবে মেট্রো (Kolkata Metro) ছুটবে? এই প্রশ্নের উত্তরের অপেক্ষায় রয়েছেন কলকাতা শহরবাসী থেকে শুরু করে মেট্রোপ্রেমীরা। শোনা যাচ্ছে, সবকিছু ঠিকঠাক থাকলে আগামী মার্চ মাসের প্রথম সপ্তাহের দিকেই এই মেট্রো লাইনটির উদ্বোধন হয়ে যেতে পারে।

এদিকে একদিকে যখন প্রথম আন্ডারওয়াটার মেট্রোর (Underwater Metro) জন্য সকলে অপেক্ষা করছেন তখন একটি প্রশ্ন বারবার সকলের মাথায় আসছে। যেহেতু গঙ্গার নীচে, সেক্ষেত্রে মেট্রোতে ওঠার পর মোবাইল ফোনের নেটওয়ার্ক থাকবে তো? ইস্ট-ওয়েস্ট মেট্রোর (Kolkata Metro Line 2) এসপ্ল্যানেড-হাওড়া ময়দান সেকশন চালু হওয়ার জন্য প্রস্তুত। টানেল এবং ৪.৮ কিলোমিটার প্রসারিত চারটি স্টেশনের মধ্যে তিনটি ২০১৯ সালে কাঠামোগতভাবে সম্পন্ন হয়েছিল। ৪৩.৫ মিটার গভীর ভেন্টিলেশন-কাম-ইভাকুয়েশন শ্যাফটটি ২০২০ সালের আগস্টে সম্পন্ন হয়েছিল।

   

হাওড়া ময়দান থেকে বিবাদি বাগ পর্যন্ত ছুটবে মেট্রো। গঙ্গার উপরের জলস্তর থেকে প্রায় ৩৩ মিটার নীচ দিয়ে গিয়েছে এই টানেল। তবে ফোনের নেটওয়ার্ক থাকবে কী? এই বিষয়ে বড় তথ্য দিয়েছে কলকাতা মেট্রো কর্তৃপক্ষ। জানা গিয়েছে, নদীর তলায় বসানো হচ্ছে অপটিকাল ফাইবার। এক্ষেত্রে একেবারে উন্নত প্রযুক্তি ব্যবহার করা হচ্ছে। সেক্ষেত্রে গঙ্গার নীচে দিয়ে যখন মেট্রো যাবে তখন ফোনের (Mobile Phone) টাওয়ার থাকবে। এমনকি ইন্টারনেটও (Internet Access) ব্যবহার করতে পারবেন মেট্রো রেল যাত্রীরা। ফোনের নেটওয়ার্ক পুরো চালু থাকবে। সেই রকম করেই উন্নত প্রযুক্তির ব্যবস্থা করা হচ্ছে।

under water metro

এদিকে ভারতের প্রথম নদীগর্ভস্থ সুড়ঙ্গ হওয়ার পাশাপাশি, কলকাতা ও হাওড়ার মধ্যে সংযোগকারী আসন্ন ইস্ট-ওয়েস্ট মেট্রো অংশটি আরও একটি ইঞ্জিনিয়ারিং বিস্ময় দেখাবে। এটিতে দেশের গভীরতম বায়ুচলাচল-নির্গমন শ্যাফ্ট থাকবে, যা ১৫ তলা বিল্ডিংয়ের সমান। ব্র্যাবোর্ন রোড ফ্লাইওভারের কাছে নির্মিত শ্যাফটের পুরো উচ্চতা (২৭৩ ধাপ) বেয়ে যাত্রীদের বের করে আনতে হবে।

বিগত ৭ বছর ধরে সাংবাদিকতার পেশার সঙ্গে যুক্ত। ডিজিটাল মিডিয়ায় সাবলীল। লেখার পাশাপাশি বিভিন্ন ধরনের বই পড়ার নেশা।

সম্পর্কিত খবর