অপেক্ষার দিন শেষ, এই দিন লঞ্চ হচ্ছে ৫ দরজার Thar! জানাল মহিন্দ্রা

সম্প্রতি সময়ে মেড ইন ইন্ডিয়া প্রোডাক্টের প্রতি মানুষের আগ্রহ বেড়েছে। সেই সঙ্গে অটোমোবাইল বা গাড়ির প্রতিও সাধারণ মানুষের আগ্রহ বেড়েছে উত্তরোত্তর। মধ্যবিত্ত পরিবারের মধ্যেও নতুন গাড়ি কেনার ঝোঁক তৈরি হয়েছে উল্লেখযোগ্যভাবে। এই সুযোগ কাজে লাগাতে চাইছে একাধিক গাড়ি প্রস্তুতকারক সংস্থা। ভারতীয় গ্রাহকদের জন্য যেটা দরকার বা জরুরি, সেই অনুযায়ী গাড়ি প্রস্তুত করতে কোম্পানি। যার অন্যতম উদাহরণ মাহিন্দ্রা থার এর পাঁচ দরজার সংস্করণ। মাহিন্দ্রা থারের ক্লাসিক ও আধুনিক সংস্করণে রয়েছে তিনটি দরজা। থারকে নিয়ে মানুষের মধ্যে ক্রেজ থাকে ১২ মাস। বিশেষত কম বয়সী ব্যক্তিদের মধ্যে মাহিন্দ্রা থারকে নিয়ে রয়েছে আলাদা ক্রেজ। গাড়ির লুক নিয়ে কোনও কথা হবে না।

কিন্তু থারকে নিয়ে কিছু অভিযোগ রয়েছে। গাড়িতে মাত্র তিনটি দরজা থাকায় যাত্রীদের ঢোকা বেরোনোর ক্ষেত্রে সমস্যা রয়েছে। নিন্দুকেরা বলে থাকেন এই গাড়িটি নাকি ‘ইমপ্র্যাক্টিক্যাল’। এই অভিযোগ দূর করার জন্য নতুন সংস্করণে থার নিয়ে আসছে মাহিন্দ্রা। ভারতীয় বাজারে দ্রুত লঞ্চ করা হবে মাহিন্দ্রা থারের পাঁচ দরজার সংস্করণ। ফাইভ ডোর মাহিন্দ্রা থার কবে ভারতে লঞ্চ করা হবে সে ব্যাপারে করা হয়েছে ঘোষণা। বিশেষ দিনেই বাজারে ছাড়া হবে গাড়ি। লঞ্চ ডেটের পাশাপাশি ফাইভ ডোর মাহিন্দ্রা থারের কিছু ফিচার নিয়েও প্রকাশ্যে এসেছে তথ্য।

   

মাহিন্দ্রা থার ফাইভ ডোর দুই লিটার টার্বো পেট্রোল এবং ২.২ লিটার ডিজেল ইঞ্জিন সহ বাজারে লঞ্চ করা হবে বলে মনে করা হচ্ছে। মাহিন্দ্রা স্করপিও মডেলের সঙ্গে নতুন সংস্করণের কিছু মিল লক্ষ্য করা যেতে পারে বলেও অনেকের অনুমান। উভয় ইঞ্জিন ম্যানুয়াল এবং অটোমেটিক ট্রান্সমিশন অপশন দিতে পারে কোম্পানি। রিয়ার হুইল ড্রাইভ, ফোড় হুইল ড্রাইভ উভয় বিকল্পের সঙ্গে লঞ্ছ করা হতে পারে মাহিন্দ্রা থার ফাইভ ডোর।

রিপোর্ট অনুযায়ী, নতুন মাহিন্দ্রা থার ফাইভ ডোর একটি সিঙ্গল প্যান সানরুফ এবং রিমুভেবল প্যানেল সহ একটি হার্ড-টপ ভেরিয়েন্ট হিসেবে লঞ্চ করা হতে পারে। এখন যে থার রয়েছে তাতে সানরুফ দেওয়া নেই। নতুন থার স্করপিও-এন এর ল্যাডার ফ্রেম চ্যাসিসের উপর ভিত্তি করে তৈরি করা হবে বলে মনে করা হচ্ছে।

কবে হচ্ছে লঞ্চ?

গাড়ির লঞ্চ হওয়ার ব্যাপারে তথ্য প্রকাশ্যে এসেছে। আগামী ১৫ আগস্ট লঞ্চ করা হতে পারে মাহিন্দ্রা থার ফাইভ ডোর ভেরিয়েন্ট।

ছোটোবেলা থেকে খেলাধুলোর প্রতি ভালোবাসা। এখন পেশা। বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে লিখছে বিগত কয়েক বছর ধরে।

সম্পর্কিত খবর