ফেল INS অরিহন্ত! বিশ্বের ৫টি সবথেকে শক্তিশালী সাবমেরিন, ধারে কাছে নেই ভারত! রইল লিস্ট

যে কোনো দেশ বিভিন্ন বিষয়ের ওপর ভিত্তি করে টিকে থাকে। তবে যে কোনো দেশের প্রাথমিক যে দুটি বিষয় গুরুত্বপূর্ণ, সেগুলো হল অর্থনৈতিক (Economy) ও প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা (Defence System)। ভারতের (India) ক্ষেত্রেও একই কথা কিন্তু প্রযোজ্য। যত সময় এগোচ্ছে ততই যেন ভারত আরও শক্তিশালী হচ্ছে।

কিন্তু আজ এই প্রতিবেদনটি একটু বিশেষ হতে চলেছে। কারণ আজ এই আর্টিকেলে বিশ্বের কয়েকটি শক্তিশালী সাবমেরিন (Submarine) সম্পর্কে আলোচনা হবে। সবথেকে বড় বিষয়, এই তালিকায় ভারতই নেই। হ্যাঁ ঠিকই শুনেছেন একদম।

   

শত্রুদের বুকে কম্পন ধরাতে বিশ্বের বিভিন্ন দেশ একাধিক সাবমেরিন তৈরি করছে। এর মধ্যে কিছু সাবমেরিন পারমাণবিক শক্তিচালিত এবং কিছু ডিজেল-বৈদ্যুতিক। অনেক দেশ এখন স্টিলথ সাবমেরিনও তৈরি করছে। এমন পরিস্থিতিতে জেনে নিন বিশ্বের সবচেয়ে শক্তিশালী ৫টি সাবমেরিন সম্পর্কে, যেগুলি কিনা চোখের পলকে একটি আস্ত শহর ধ্বংস করে দিতে পারে।

সিয়েরা ২ শ্রেণী – রাশিয়া

রাশিয়ার (Russia) সিয়েরা ২ শ্রেণীর সাবমেরিনগুলি প্রজেক্ট ৯৪৫এ কনডর ক্লাস নামেও পরিচিত। এটি রাশিয়ার সবচেয়ে ব্যয়বহুল এবং গভীর ডুবন্ত সাবমেরিনগুলির মধ্যে একটি। তাদের টাইটানিয়াম দিয়ে তৈরি একটি ডাবল হাল রয়েছে, যা তাদের খুব কম এবং শত্রু টর্পেডো এড়ানো সহজ করে তোলে। একে শত্রু ডুবোজাহাজের সময়কালও বলা হয়।

submarine

সিওল্ফ ক্লাস- মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র

সোভিয়েত ইউনিয়নের উপর প্রযুক্তিগত প্রান্ত অর্জনের জন্য মার্কিন নৌবাহিনীর সংকল্প থেকে সিওল্ফ ক্লাস সাবমেরিনের জন্ম হয়েছিল। ২০ নট গতিতে ভ্রমণ করার সময় এই সাবমেরিনটি সনাক্ত করা প্রায় অসম্ভব। আটটি টর্পেডো টিউব এবং একযোগে একাধিক লক্ষ্যবস্তুতে আক্রমণ করার ক্ষমতা সহ, সিওল্ফ শ্রেণীর সাবমেরিনটি জলের নীচে এক কথায় অতুলনীয়। তবে উচ্চ ব্যয়ের কারণে মাত্র তিনটি সিউলফ শ্রেণির সাবমেরিন তৈরি করা হয়েছে।

অ্যাস্টিউট ক্লাস- গ্রেট ব্রিটেন

অ্যাস্টিউট ক্লাস ব্রিটেনের রয়্যাল নেভির একটি গুরুত্বপূর্ণ সাবমেরিন। এটি তৈরি করেছে বিইএ সিস্টেম সাবমেরিন। বর্তমানে ব্রিটিশ নৌবাহিনীতে এ ধরনের পাঁচটি সাবমেরিন রয়েছে। অ্যাস্টিউট শ্রেণীর সাবমেরিনগুলি ৩৬টি টর্পেডো, জাহাজ-বিধ্বংসী হারপুন ক্ষেপণাস্ত্র, টমাহক ক্রুজ ক্ষেপণাস্ত্র এবং সমুদ্রমাইন দিয়ে সজ্জিত। এগুলো পারমাণবিক শক্তিচালিত সাবমেরিন।

গ্র্যানি ক্লাস- রাশিয়া

গ্র্যানি ক্লাস বা প্রজেক্ট ৮৮৫ ইয়াসেন ক্লাস রাশিয়ার সবচেয়ে শক্তিশালী অ্যাটাক সাবমেরিন। এটি আকুলা শ্রেণীর সাবমেরিন প্রতিস্থাপনের জন্য ডিজাইন করা হয়েছে। জাহাজ-বিধ্বংসী এবং স্থল আক্রমণকারী ক্ষেপণাস্ত্রের জন্য উল্লম্ব লঞ্চ টিউব দিয়ে সজ্জিত, গ্র্যানি শ্রেণি উপকূলে শত্রু যুদ্ধজাহাজ এবং তাদের সামরিক ঘাঁটিগুলিতে আক্রমণ করতে পারদর্শী বলে শোনা যায়।

ভার্জিনিয়া ক্লাস- মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র

লস অ্যাঞ্জেলেস ক্লাসের পরিবর্তে ভার্জিনিয়া শ্রেণির সাবমেরিন তৈরি করেছে যুক্তরাষ্ট্র। ভার্জিনিয়া শ্রেণীর সাবমেরিনটি অ্যান্টি-শিপিং, নজরদারি, স্থল আক্রমণ এবং বিশেষ কিছু ক্ষমতাসম্পন্ন মিশনের ক্ষেত্রে এটি ব্যবহার করা হয় । মার্কিন নৌবাহিনী ১৯৯৮ সাল থেকে ভার্জিনিয়া শ্রেণীর পারমাণবিক সাবমেরিন ব্যবহার করে আসছে। এই সাবমেরিনটি টর্পেডো ছাড়াও টমাহক ক্লাস ক্রুজ ক্ষেপণাস্ত্র এবং হারপুন অ্যান্টি-শিপ ক্ষেপণাস্ত্র দিয়ে সজ্জিত।

 

বিগত ৭ বছর ধরে সাংবাদিকতার পেশার সঙ্গে যুক্ত। ডিজিটাল মিডিয়ায় সাবলীল। লেখার পাশাপাশি বিভিন্ন ধরনের বই পড়ার নেশা।

সম্পর্কিত খবর