মেধা তালিকার শীর্ষে থেকেও মেলেনি চাকরি, ৩০ বছর লড়াই করে মেলে ৮০ লাখ টাকা ক্ষতিপূরণ ও কাজ

নয়া দিল্লিঃ বাস্তব জীবনে দেরীতে হলেও একদিন মিলেই যায় ন্যায় বিচার। ঠিক সেরকমই এক ঘটনা ঘটে জেরাল্ড জনের সাথে। ছিলেন মেধা তালিকার শীর্ষে। কিন্তু তবুও মেলেনি চাকরি। কারণ জানতে চাইলে তাকে বলা হয় চাকরি পাওয়া প্রার্থীর স্টেনোগ্রাফিতে দক্ষতা থাকতে হবে। যেখানে জন শর্টহ্যান্ড জানতেন না। কিন্তু পত্রিকায় চাকরির বিজ্ঞাপন দেওয়ার সময় কোথাও শর্টহ্যান্ডের উল্লেখ থাকেনি।

ফারুখাবাদের বাসিন্দা জন ১৯৯০ সালে এলাহাবাদ হাইকোর্টে একটি মামলা করেছিলেন। তার বক্তব্য ছিল বিজ্ঞাপনে কোথাও শর্টহ্যান্ডের উল্লেখ ছিল না। তাহলে তাকে বাদ দেওয়া হলো কেন? এরপর ২০০০ সালে, যখন উত্তরাখণ্ড এবং উত্তরপ্রদেশ দুটি পৃথক রাজ্যে পরিণত হয়, তখন এই মামলাটি নৈনিতালের হাইকোর্টে স্থানান্তরিত হয়। এরপর তার ৫৫ বছর বয়সে মেলে ন্যায়বিচার। ২৪ বছর বয়সে করা মামলার বিচার পেতে লেগে যায় দীর্ঘ ২৪ বছর। ২০২০ সালের ডিসেম্বরে, উত্তরাখণ্ড হাইকোর্ট জনের পক্ষে রায় দান করে।

whatsapp image 2021 12 22 at 12.02.13 pm 2

আদালত তার পক্ষে রায় দিয়ে তাকে তার প্রাপ্য চাকুরী এবং ক্ষতিপূরণ হিসেবে মোট ৮০ লাখ টাকা দেওয়ার নির্দেশ দেয়। সম্প্রতি রিপোর্ট অনুসারে, কয়েক মাস আগে, ক্ষতিপূরণের পরিমাণের মধ্যে থেকে মোট ৭৩ লক্ষ টাকা উত্তরাখণ্ড সরকার জনকে প্রদান করেছে। এবং অবশিষ্ট ৭ লক্ষ টাকা উত্তর প্রদেশ সরকার শীঘ্রই জনকে প্রদান করবে।

whatsapp image 2021 12 22 at 12.02.13 pm

বর্তমানে জন দেরাদুনের সরকারী সাহায্যপ্রাপ্ত সংখ্যালঘু শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ‘সিএনআই বয়েজ ইন্টার কলেজে’ এর সবচেয়ে সিনিয়র শিক্ষক হিসেবে কাজ করছেন। এবং শুধু তাই নয়, তিনি বর্তমানে শিক্ষা বিভাগের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষও হয়েছেন।

➦ আপনার জন্য বিশেষ খবর

Back to top button