ঋণে ডুবে ছিল এই সরকারি কোম্পানি, ১২১০০ কোটি টাকায় কিনল টাটা গ্রুপ! এবার দৌড়বে তরতরিয়ে

সারা দেশেই বিলগ্নিকরনের জন্য কেন্দ্র সরকারের অনেক আলোচনা, সমালোচনা হয়েছে। কিন্তু এখন পাওয়া নতুন খবর অনুযায়ী দেশের এই বড় কোম্পানিটিরও এবার হাত বদল হতে চলেছে। কিন্তু কোন কোম্পানি বিক্রি হয়ে গেল এবার? কারাই বা কিনে নিল সেটি? বিস্তারিত ভাবে সবকিছুই রইলো এই প্রতিবেদনে।

ভারতের বৃহত্তম স্টিল উৎপাদন সংস্থা টাটা স্টিল। এর আগেও তারা দেশের অনেক প্রয়োজনে এগিয়ে এসেছে। এবার রতন টাটার সংস্থাই কিনে নিচ্ছে ঋণে ডুবে থাকা ওড়িশার নীলাচল ইস্পাত নিগম লিমিটেডকে (NINL)। জানা যাচ্ছে আগামী জুলাই মাসে আনুষ্ঠানিকভাবে সম্পুর্ন হস্তান্তর হতে চলেছে। রাষ্ট্রায়ত্ত ওই সংস্থাকে কেনার জন্য এর আগে বিড হয়, সেখানে জিন্দাল স্টিল অ্যান্ড পাওয়ার লিমিটেড, নলওয়া স্টিল অ্যান্ড পাওয়ার লিমিটেড এবং জেএসডব্লিউ স্টিল লিমিটেডের একটি কনসোর্টিয়াম কে পিছনে ফেলে প্রতিযোগিতায় জিতে ওই কোম্পানির মালিকানা নিশ্চিত করে টাটারা।

খবর অনুযায়ী জানুয়ারিতেই সম্পন্ন হয় বিড এর প্রক্রিয়া। সেখানে ১২,১০০ কোটি টাকার বিনিময়ে কোম্পানির ৯৩.৭১ শতাংশ শেয়ার অধিগ্রহণ করে টাটা স্টিল। এবার শীঘ্রই রতন টাটার কোম্পানি হাতে নেবে নীলাচল ইস্পাত নিগম লিমিটেডকে। সংস্থার এক আধিকারিক জানান লেনদেন চূড়ান্ত পর্যায়ে রয়েছে, আগামী মাসের মধ্যেই সবকিছু হস্তান্তর হয়ে যাওয়া উচিত। কিন্তু এই ব্যাপারে আরো একটি প্রশ্ন ওঠে যে, কোম্পানির এত পরিমাণ ঋণের কি হবে?

tata steel

আসলে এই কোম্পানি বিক্রির কারণই হলো বিশাল পরিমান ঋণে ডুবে থাকা। বহুদিন ধরে লাভের মুখ দেখেনি সংস্থাটি, সরকার বহুবার বাঁচানোর চেষ্টা করলেও বারবার মুখ থুবড়ে পড়ায় হাল ছেড়ে দেয় সরকারও। আপনাদের জানিয়ে রাখি যে, ২০২০ সালের ৩১ শে মার্চ থেকেই বন্ধ পড়ে আছে পুরো কারখানা। বিগত অর্থবর্ষের হিসেব অনুযায়ী প্রায় ৬,৬০০ কোটি টাকা দেনা রয়েছে নীলাচল ইস্পাত নিগম লিমিটেডের। এই টাকার মধ্যে রয়েছে প্রোমোটারদের বিশাল ৪,১১৬ কোটির বকেয়া এছাড়া ব্যাঙ্ক এবং অন্যান্য পাওনাদারদের পাওনা রয়েছে ১,৭৪১ কোটি টাকা। এমতাবস্থায় হাতি পুষে আর নিজেদের লোকসান বাড়াতে চায়নি সরকার।

➦ আপনার জন্য বিশেষ খবর

Back to top button