স্ত্রী করেছিলেন প্রতারণা, পরিস্থিতির সঙ্গে লড়াই করে আজ ভারতের এক সফলতম ক্রিকেটার

নয়া দিল্লিঃ জাতীয় ক্রিকেট দলে দীনেশ কার্তিক এক অতিপরিচিত মুখ। তিনি বিখ্যাত অসাধারণ ব্যাটিং এবং উইকেট রক্ষক হিসেবে। বহুদিন ধরে রয়েছেন জাতীয় দলে। ২০০৪ সালে জাতীয় ক্রিকেট দলে যুক্ত হন কৃষ্ণ কুমার দীনেশ কার্তিক। কিন্তু শুরু থেকেই তার জন্য এই যাত্রা মোটেই সহজ থাকেকি। ১৯৮৫ সালের ১ লা জুন তামিলনাড়ুর চেন্নাইতে এক ক্রিকেটারের বাড়িতেই জন্মগ্রহন করেন তিনি।

ক্রিকেট প্রথম শিক্ষা তার বাবার কাছেই। ব্যাটসম্যান হিসেবে হাতে খড়ি শুরু তার বাবার কাছে। কার্তিকের বাবাও চেন্নাইয়ের হয়ে প্রথম শ্রেণীর ক্রিকেট খেলেছেন। বস্তুত তার বাবার অঙ্গুলিহেলনেই ক্রিকেটকে নিজের ক্যারিয়ার হিসেবে নির্বাচন করেন তিনি। এরপর কার্তিক তার ছোট বেলার বান্ধবী নিকিতা কে বিয়ে করেন। কিন্তু কয়েক বছর পরই তাদের বিবাহ বিচ্ছেদ হয়ে যায়, এবং এরপর দীনেশ বিয়ে করেন স্কোয়াশ খেলোয়াড় দীপিকা পাল্লিকালের সাথে ।

ক্যারিয়ারের প্রথম দিকে শুধুই ব্যাটসম্যান থাকলেও, পড়ে ভবিষ্যতে বৃহত্তর সুযোগের কথা মাথায় রেখে উইকেটরক্ষকের ভূমিকাতেও অবতীর্ণ হন তিনি। কিন্তু ভাগ্য বরাবরই দীনেশের বিরুদ্ধে গিয়েছে। জাতীয় দলে খেলার সুযোগ পেলেও কাজে লাগাতে পারেননি তা। ২০০৪ সালে পার্থিব প্যাটেল গুরুতর আহত হয়ে দল থেকে ছিটকে গেলে সেই জায়গায় সুযোগ আসে দীনেশের। কিন্তু সেই ইংল্যান্ড সফরে তার ব্যাট থেকে উঠে আসেনি কোনো ভালো স্কোর। মাত্র ১ রান করেন তিনি। কিন্তু গ্লাভস হাতে দুর্দান্ত ভালো পারফরম্যান্স করেন তিনি।

১৭ বছর বয়সে দীনেশ প্রথম শ্রেণীর ক্রিকেট খেলতে শুরু করেন। ২০০৪ সালে নিয়মিত দলের প্রধান উইকেটরক্ষক থাকলেও ২০০৫ সালে মহেন্দ্র সিং ধোনির আগমনের পর, কার্তিককে দল থেকে বাদ দেওয়া হয়।কিন্তু এরপর আবার রঞ্জিতে খুব ভালো পারফর্ম্যান্স করে ফিরে আসেন ভারতীয় দলে। ৫ সেপ্টেম্বর ২০০৪ এ ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে তার ক্যারিয়ার শুরু হয়। একই বছরে অস্ট্রেলিয়ার ভারত সফরে আন্তর্জাতিক টেস্ট ক্রিকেটে অভিষেক ঘটে তার। কিন্তু এত সুযোগ পেয়েও সেগুলিকে কাজে লাগাতে পারেননি তিনি। এবং তার এই জায়গার দখল নেন মহেন্দ্র সিংহ ধোনি।

তবে এর পর দীনেশ কার্তিক ব্যাট হাতে খুব ভাল পারফরম্যান্স করে শুধুমাত্র ধোনির ব্যাকআপ হিসেবেই নিজেতে টিকিয়ে রাখেন জাতীয় দলে। ২০০৭ সালে দীনেশ কার্তিক দুর্দান্ত ব্যাটসম্যান হিসাবে ভারতীয় দলে উঠে আসেন। এই সময়টাই ছিল দীনেশের কেরিয়ারের সবচেয়ে ভালো সময়। এরপর এই পারফর্ম্যান্স দেখেই ভারতীয় দলের ইংল্যান্ড সফরে বীরেন্দ্র শেহবাগের জায়গায় ওপেন করতে পাঠানো হয় দিনেশ কার্তিককে। ভারত জিতেছিল এই সিরিজটি এবং এই সিরিজে দীনেশ কার্তিক ভারতের হয়ে সবচেয়ে বেশি রান করেছিলেন। মোট কথায় এই সিরিজের জন্যই উঠে আসে তার নাম।

➦ আপনার জন্য বিশেষ খবর

Back to top button