খোঁজ রাখেনি কেউ! নিঃশব্দে চলে গেলেন প্রাক্তন অধিনায়ক

এক প্রকার আচমকাই চলে গেলেন। বুধবার রাতেই মিলতে শুরু করেছিল এই প্রয়াণ সংবাদ। বৃহস্পতিবার সকাল থেকে ক্রিকেট মহলে শোকের ছায়া। সমস্ত মায়া কাটিয়ে পরলোকের পথে যাত্রা শুরু করলেন এক কিংবদন্তি। দেশের প্রাক্তন অধিনায়ক। প্রয়াত হয়েছেন পাকিস্তানের (Pakistan national cricket team) প্রাক্তন অধিনায়ক সইদ আহমেদ (Saeed Ahmed)। ৮৬ বছর বয়সে মৃত্যু হয়েছে তাঁর। পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ডের (Pakistan cricket board) পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে শোক সংবাদ। প্রাক্তন অধিনায়কের প্রয়াণে পরিবারের সকলের উদ্দেশ্যে শোকজ্ঞাপন করেছে পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ড।

যে কোনও মৃত্যুই বেদনাদায়ক। কিন্তু সইদ আহমেদের প্রয়াণ সংবাদ অনেকের হৃদয় বিদীর্ণ করেছে। শেষ জীবনে কার্যত একা জীবন কাটাতে হয়েছিল তাঁকে। সইদ আহমেদের শেষ জীবনের নিঃসঙ্গতার কথা এখন উঠে এসেছে বিভিন্ন মিডিয়া রিপোর্টে।

   

মিডিয়ায় প্রকাশিত খবর অনুযায়ী, অবসরের পর ক্রিকেট থেকে দূরে সরে গিয়েছিলেন সইদ। ক্রিকেট থেকে বিদায় নেওয়ার পর খেলার মাঠের সঙ্গে আরও তেমন তাঁর যোগাযোগ ছিল বলেই জানা যায়। বহু বছর ধরে লাহোরে একাই বসবাস করছিলেন বলে জানা গিয়েছে। সইদ আহমেদ তাঁর কিছু বন্ধু এবং পরিবারের সঙ্গে কাটিয়েছেন বাকি জীবন। শারীরিক অসুস্থতার কারণে বারবার হাসপাতালে ভর্তি হতে হয়েছে তাঁকে। দুই পুত্র ও এক কন্যাকে রেখে বিদায় নিলেন সইদ আহমেদ।

সইদ আহমেদের কেরিয়ার

সইদ পাকিস্তানের হয়ে ৪১টি টেস্ট ম্যাচ খেলে পাঁচটি সেঞ্চুরি ও ১৬ টি হাফ সেঞ্চুরির সাহায্যে ২,৯৯১ রান করেছেন। ডানহাতি অফ স্পিন বোলিংয়ের মাধ্যমে নিয়েছেন ২২ টি উইকেট। ১৯৫৮ সালে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে টেস্ট অভিষেক হয়েছিল তাঁর। ১৯৭২-৭৩ সফরে মেলবোর্নে পাকিস্তানের হয়ে সর্বশেষ টেস্ট খেলেছিলেন। সইদ আহমেদ পাকিস্তানের ষষ্ঠ টেস্ট অধিনায়ক ছিলেন। ১৯৬৯ সালে ইংল্যান্ড সফরের সময় হানিফ মহম্মদের জায়গায় অধিনায়ক হিসেবে দায়িত্ব নিয়েছিলেন তিনি। অধিনায়ক হিসেবে তাঁর মেয়াদ ছিল মাত্র তিন টেস্ট।

ছোটোবেলা থেকে খেলাধুলোর প্রতি ভালোবাসা। এখন পেশা। বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে লিখছে বিগত কয়েক বছর ধরে।

সম্পর্কিত খবর