ক্রিকেট বিশ্বে ফের ভয়ঙ্কর বেইজ্জত পাকিস্তান! আইসিসির এক ঘোষণায় মুখ পুড়ল বাংলাদেশেরও

সময়টা ভালো যাচ্ছে না পাকিস্তান দলের (Pakistan national cricket team)। বিশ্বকাপে চূড়ান্ত ব্যর্থ হয়ে বাবর আজমকে (Babar Azam) অধিনায়কত্ব থেকে বাদ, একের পর এক কর্মকর্তা ও কোচের পদত্যাগের মাঝেই আবার অস্ট্রেলিয়া ও নিউজিল্যান্ডে গিয়ে লজ্জাজনক হার। চারিদিকে নাকানিচোবানি খাচ্ছে পাকিস্তান দল। আর এরই মধ্যে আইসিসির (International Cricket Council) ঘোষণায় ক্রিকেট বিশ্বে ফের নাক কাটল পাকিস্তানের (Pakistan)। তবে শুধু পাকিস্তানই নয়, হতাশ হয়েছে বাংলাদেশও (Bangladesh)।

খেলার মাঠে প্রায়ই অপমানিত হয় পাকিস্তান ক্রিকেট দল। বারবার এমন হওয়ায় এখন মনে হচ্ছে যে, এটা তাঁদের জন্য একটা সাধারণ ব্যাপার হয়ে দাঁড়িয়েছে। ভারতে অনুষ্ঠিত আইসিসি ওয়ানডে বিশ্বকাপ ২০২৩-র পর পাকিস্তান ক্রিকেটের বিশাল পরিবর্তন এসেছে! কিন্তু ফলের ফল কিছুই পাওয়া যাচ্ছে না। এরই মধ্যে আইসিসি তিনটি দল ঘোষণা করেছে, যেখানে পাকিস্তানের কোনো খেলোয়াড় নেই। এর থেকে বোঝা যায়, পাকিস্তান ক্রিকেট এই সময়ে কতটা সমস্যার সম্মুখীন।

বর্ষসেরা দল ঘোষণা করেছে আইসিসি

   

আসলে প্রতি বছরের জানুয়ারি মাসেই আগের বছরের একটি দল ঘোষণা করে আইসিসি। এটি টেস্ট, ওডিআই এবং টি-টোয়েন্টি আন্তর্জাতিক দল নিয়ে গঠিত। এবারও তাই হয়েছে। ICC প্রথম ২২ জানুয়ারী T20 টিম ঘোষণা করেছিল, যার অধিনায়ক ছিলেন ভারতের সূর্যকুমার যাদব। কিন্তু এই দলে একজনও পাকিস্তানি খেলোয়াড়কে অন্তর্ভুক্ত করা হয়নি। একদিন পর ২৩শে জানুয়ারি ওয়ানডে ও টেস্ট দলও ঘোষণা করে ICC। ওডিআই দলের নেতৃত্ব দেওয়া হয়েছে রোহিত শর্মাকে, যেখানে ভারতের মোট ছয়জন খেলোয়াড় এই দলে অন্তর্ভুক্ত। প্যাট কামিন্স টেস্টে অধিনায়ক এবং ভারতেরও দুইজন খেলোয়াড় রয়েছে। কিন্তু আশ্চর্যের বিষয় হলো এই দুই দলেও পাকিস্তানের কোনো খেলোয়াড় জায়গা করে নিতে পারেননি।

শুধু ভারতই নয়, শ্রীলঙ্কার কাছেও হেরেছে পাকিস্তান

পাকিস্তান ছাড়াও বাংলাদেশ ও আফগানিস্তানের খেলোয়াড়রাও এই দলে নেই। তবে শ্রীলঙ্কার দামুথ করুণারত্নে অবশ্যই জায়গা করে নিতে সফল হয়েছেন। এর থেকে এটা স্পষ্ট যে শুধু ভারতই নয়, শ্রীলঙ্কার থেকেও খারাপ পাকিস্তানের দলও। পাকিস্তানের প্রাক্তন অধিনায়ক বাবর আজমকে ভারতের বিরাট কোহলির সঙ্গে তুলনা করা হলেও আইসিসির এই দলটি স্পষ্ট করে দিয়েছে বাবর কোহলির ধারে কাছে নেই।

পাকিস্তান ক্রিকেটের কথা বলতে গেলে ওয়ানডে বিশ্বকাপের পর দলে নতুন দুই অধিনায়ক নিয়োগ করা হয়েছে। শান মাসুদকে টেস্ট অধিনায়কত্ব দেওয়া হয়, আর শাহীন শাহ আফ্রিদি টি-টোয়েন্টি অধিনায়ক হন। শান মাসুদ এখনও তার প্রথম জয়ের জন্য চাতক পাখির মতো অপেক্ষা করছেন। অন্যদিকে, নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে টানা চারটি টি-টোয়েন্টি ম্যাচ হেরে প্রথম জয়ের স্বাদ পেয়েছেন শাহীন শাহ আফ্রিদি। কিন্তু এক সময়ের ওয়ানডে ও টি-টোয়েন্টির এক নম্বর দলের এমন অবস্থা হবে, তা কেউ ভাবেনি।

সম্পর্কিত খবর