ডার্বি জয়ের পরেই বড় ধাক্কা ইষ্টবেঙ্গলে! সেমিফাইনেলের আগে চরম দুশ্চিন্তায় লালহলুদ শিবির

১৯ তারিখ শুক্রবার মধুর প্রতিশোধ নিয়েছে ইষ্টবেঙ্গল (East Bengal FC)। কলিঙ্গ সুপার কাপে (Kalinga Super Cup) ১-০ গোলে পিছিয়ে থেকেও মোহনবাগান সুপার জায়ান্টকে (Mohun Bagan Super Giant) ৩-১ গোলে হারিয়েছে লাল হলুদ শিবির। অনেকেই এটাকে ডুরান্ড কাপের বদলা বলছেন। এই হারের পর কলিঙ্গ সুপার কাপ থেকে ছিটকে গিয়েছে সবুজ মেরুন শিবির। এই নিয়ে মোহন বাগানে চাপা বেদনা রয়েছে। অন্যদিকে, আত্মবিশ্বাসে টগবগ করে ফুটছে লাল হলুদ। তবে, জয়ের কয়েক ঘণ্টা পরেই ইস্টবেঙ্গলের জন্য এল খারাপ খবর।

ডার্বি পরাজয়ের পর প্রবল সমালোচনার মুখে পড়েছে বাগান। চাপের মুখে মাথা ঠান্ডা রাখছেন বাগানের প্রশিক্ষক ক্লিফোর্ড মিরান্ডা (Clifford Miranda)। ফুটবলারদের বকাঝকা না করে প্রশংসাই করলেন তিনি। ম্যাচের পর ক্লিফোর্ড বলেছেন, “আমরা ম্যাচ হেরেছি ঠিকই কিন্তু কোনও ফুটবলার বা কার বিরুদ্ধে কোনও অভিযোগ নেই। দল যেভাবে পারফরম্যান্স করেছে তাতে আমি খুশি। দলে একাধিক ফুটবলার তরুণ রয়েছে। ডার্বির চাপ নেওয়া ওদের পক্ষে সম্ভব নাও হতে পারে। সবাই জানেন যে বড় ম্যাচের চাপ সামলানো মুখের কথা নয়। তারপরেও ওরা যা খেলেছে, যে লড়াইটা লড়েছে তাতে আমি খুশি। ওরা নিজেদের সবটা উজাড় করে দিয়েছে হারলেও আমরা মাঠে যারপরনাই লড়াই করেছি। তাই কারও প্রতি আমার কোনও অভিযোগ নেই।’

   

মোহন বাগানকে হারানোর পর এবার সেমিফাইনালে ইস্টবেঙ্গলের প্রতিপক্ষ হবে জামশেদপুর এফসি (Jamshedpur FC)। তবে সেমিতে নামার আগে ইস্টবেঙ্গলের রিজার্ভ দল মুখোমুখি হয়েছিল মহামেডান স্পোর্টিং ক্লাবের (Mohammedan SC)। আর এই ম্যাচে একেবারে ল্যাজেগোবরে হয় লাল হলুদ শিবির। নির্ধারিত সময়ে ইষ্টবেঙ্গলের জালে ৫টি গোল ঢুকিয়ে ম্যাচ জিতে নেয় সাদা কালো শিবির। বলে দিই, এই ম্যাচ আগে থেকেই নির্ধারিত ছিল। আর পূর্বের সময়সূচী হিসেবে খেলাও হয়। কিন্তু এই ম্যাচে ইষ্টবেঙ্গল দাঁত ফোটানো তো দূর, দাঁড়াতেই পারেনি। যার কারণে কলিঙ্গ সুপার কাপের সেমি ফাইনালের আগে মন খারাপ লাল হলুদ শিবিরে।

ইষ্টবেঙ্গলকে দুরমুশ করে আই লিগের দ্বিতীয় লেগ শুরু হওয়ার আগে বাড়তি অক্সিজেন পেল মহামেডান। একের পর এক দলকে পরাজিত করে টেবিলের শীর্ষস্থানে রয়েছে ব্ল্যাক প্যান্থার্সরা। এবার সেই পারফরম্যান্স বজায় রাখি ট্রফি ঘরে তুলতে চাইছে এই ফুটবল ক্লাব।

সম্পর্কিত খবর