পড়াশোনা চালাতে বাবার সাথে করতেন ফুচকা বিক্রি! এবার NEET পাশ করে ডাক্তার হতে চলেছেন অল্পেশ

গুজরাটের আরাবল্লী জেলার মেঘরাজ নামের একটি এলাকার বাসিন্দা অল্পেশ রাঠোড সম্প্রতি NEET পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়েছেন, যার কারণে তার পরিবারে আনন্দের ঢেউ বইছে। এই কৃতিত্ব অর্জন করা অল্পেশের রাঠোডের জন্যও বিশেষ, কারণ তিনি একটি দরিদ্র পরিবারের অন্তর্গত এবং তার বাবা ফুচকা বিক্রেতার কাজ করেন।

পরীক্ষার প্রস্তুতির জন্য রাতে পড়াশোনা করার সময় অল্পেশ তার বাবাকে ফুচকা বিক্রি করতে সাহায্য করতেন। অবশেষে অল্পেশের কঠোর পরিশ্রম ফলপ্রসূ হয় এবং তিনি NEET পরীক্ষায় 700 এর মধ্যে 613 নম্বর পেতে সক্ষম হন।

অল্পেশ একজন কার্ডিওলজিস্ট হতে চেয়েছিলেন, যার জন্য তাকে একটি সরকারি মেডিকেল কলেজে ভর্তি হতে হবে। এই ভর্তি প্রক্রিয়ার জন্য NEET পরীক্ষা পাস করা বাধ্যতামূলক, এর পরে দরিদ্র পরিবারের যুবকরা কম ফি দিয়ে সরকারি কলেজে পড়াশোনা করে তাদের স্বপ্ন পূরণ করতে পারে।

অল্পেশ মূলত গুজরাটের কেন্থওয়া গ্রামের অন্তর্গত এবং এখনও পর্যন্ত তার গ্রাম থেকে কেউ ডাক্তারি পড়াশোনা করেন নি, তাই অল্পেশই হবেন তার গ্রামের প্রথম ডাক্তার। দশম শ্রেণি পাশ করার পর থেকে অল্পেশ তার বাবার সাথে একটি ফুচকার দোকানে কাজ করতেন, যার জন্য তাকে ভোর 4 টায় উঠতে হত।

অল্পেশ পড়াশোনায় ভালো ছিল, তাই তার স্কুলের শিক্ষকরা তাকে কেরিয়ারের ক্ষেত্রে অনেক পথ দেখিয়েছিলেন। এমন পরিস্থিতিতে, যখন অল্পেশ তার পরিবারের সদস্যদের সাথে ডাক্তার হওয়ার স্বপ্ন ভাগ করে নিয়েছিলেন, তখন তার বাবা NEET পরীক্ষার প্রস্তুতি এবং কোচিং ফিতে ব্যয় করা অর্থ নিয়ে খুব চিন্তিত হয়ে পড়েন।

আসলে, অল্পেশের বাবা ফুচকা বিক্রি করে 15,000 টাকা উপার্জন করেন, তাই পরিবারের খরচ চালানোর পাশাপাশি অল্পেশের কোচিং ফি এর ব্যবস্থা করা তার পক্ষে খুব কঠিন ছিল। কিন্তু অল্পেশ তার বাবাকে আশ্বাস দেন যে তিনি NEET পরীক্ষায় পাস করবেন এবং তিনি তার প্রতিশ্রুতি পূরণ করেছেন।

➦ আপনার জন্য বিশেষ খবর

Back to top button