‘রামকৃষ্ণও অনেক খিস্তি দিয়েছে’, গালাগালি প্রসঙ্গে মনিষীদের টেনে এনে বিস্ফোরক রুপম ইসলাম

সংগীতশিল্পী রূপম ইসলামকে (Rupam Islam) নিয়ে যেন বিতর্ক থামতেই চাইছে না। সম্প্রতি ৫০ বছর বয়সে পা দিয়েছেন রূপম ইসলাম। সম্প্রতি তার একটি ভিডিও কে ঘিরে যথেষ্ট বিতর্কের সৃষ্টি হয়েছে। কয়েকদিন আগেই সোশ্যাল মিডিয়ায় একটি ভিডিও ভাইরাল হয়েছিল যেখানে রূপম ইসলামকে একজন ভক্তকে উদ্দেশ্য করে গালাগালি দিতে দিয়ে দেখা গিয়েছিল।

তবে এবারও ফের একবার শিরোনামে উঠে এলেন রূপম ইসলাম। এবার তিনি রামকৃষ্ণকে (Ramakrishna) নিয়ে এমন একটি মন্তব্য করেছেন যা শুনে সকলেই এক প্রকার থ হয়ে গিয়েছেন।  বাংলা রক প্রেমীদের প্রজন্মের কাছে এক বিশাল সংগীতশিল্পী হলেন এই রূপম। তাঁর ফ্যান ফলোয়িং এতটাই বেশি যে ভাবা যায় না। রূপম ইসলাম এই রক দুনিয়ায় ২৫ বছর পূরণ করে ফেলেছেন।

   

দীর্ঘ ২৫ বছরের এই যাত্রাটা যে সহজ ছিল না তা বারবারই বিভিন্ন সাক্ষাৎকারে বলেছেন রূপম ইসলাম। এদিকে সম্প্রতি সোশ্যাল মিডিয়ায় যে ভিডিওটি ভাইরাল হয়েছিল তাতে দেখা গিয়েছিল, কালো জ্যাকেট পরে রাস্তায় হাঁটছেন রূপম ইসলাম। চোখে মুখে ক্লান্তির ছাপ। এদিকে পেছন থেকে ধাওয়া করছে ভক্ত এবং ছবি শিকারীরা। তারই মাঝে কারও কারও আবদার, ‘একটা ছবি তুলতে দিন স্যার।’ রূপমের পিছু পিছু তার বাড়ি অবধি পৌঁছে যায় এই ভক্তরা। আর তারপরেই চিৎকার করে ওঠেন রূপম। তাঁকে গালাগালি অবধি দিতে দেখা যায়।

এদিকে এবার এই ঘটনা প্রসঙ্গে নীরবতা ভাঙলেন রূপম। তিনি জানালেন, ‘আমি দেওয়ার পর থেকে ওটাই বিখ্যাত হয়ে গেছে। বাংলায় কিন্তু আরও কুৎসিত কুৎসিত গালাগালি আছে। আমি কিন্তু সেইসব দেই না। আমি এটাই দিই, কারণ এটা আমার বাবা দিতেন। এটা পৈত্রিক সূত্রে পেয়েছি। এবার আমি যদি খারাপ হই, আমার বাবাও খারাপ। আমার বাবা যদি খারাপ হন, তাহলে আমি যেখান থেকে আসছি সেটা খারাপ। তাহলে পুরোটাই খারাপ।’

rupam

রূপমের বক্তব্য, ‘রামকৃষ্ণ পরমহংস দেব যেমন অনেক ভালো কথা বলেছেন। তেমন খিস্তিও দিয়েছেন। তুমি ওটা বাদ দিয়ে ওঁকে পাবে না। তুমি যদি মনটা খুলতে না পারো। তাহলে মন খোলা কথা কোনওটাই আসবে না। খারাপটাও আসবে না ভালোটাও আসবে না। এই যে তোমরা এসেছ, আমি তো চুপ করে থাকিনি। তোমরা কী বলেছ আমাকে, কথা বলতেই হবে! কিন্তু আমি তো বলছি। এইটাই আমি। আমি কথা বলব। আমাদের সমাজে যে সব কথা আছে, তার মধ্যে খুব খারাপ বলব না। তবে মাঝারি খারাপ বলব। কারণ সেটা আমি গানেও লিখি। আমার অনুষ্ঠানেও বলি। মঞ্চ থেকে ওই গালাগালি আমি বহুবার করেছি।’

সবশেষে নিজের হয়েই বলেন, ‘আমরা যদি আমাদের মানুষ-সত্তাকে ভালো না বাসি, সবসময় দেবত্ব চাই! আমি দেবত্বে বিশ্বাস করি না। আমি বলি, ভালো হও, খারাপ হও, শয়তান নয়, মানুষ হও। কেউ যদি তোমাকে আঘাত করে ঘুরে দাঁড়াতে হয়। সততার বিলাসিতা আর নয়। অনেক সময় পরিস্থিতি আসে, উপযুক্ত জবাব দিতে হয়। সেটা সেই ভাষাতেই দেওয়া উচিত।’

বিগত ৭ বছর ধরে সাংবাদিকতার পেশার সঙ্গে যুক্ত। ডিজিটাল মিডিয়ায় সাবলীল। লেখার পাশাপাশি বিভিন্ন ধরনের বই পড়ার নেশা।

সম্পর্কিত খবর