সবথেকে বিধ্বংসী ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষা রাশিয়ার, জানুন বিশ্বের সেরা ৫টি ক্ষেপণাস্ত্রের মধ্যে ভারত কত নম্বরে

চলছে রাশিয়া ইউক্রেন যুদ্ধ। তার মধ্যেই একটি নতুন পারমাণবিক সক্ষম ICBM (আন্তঃমহাদেশীয় ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র) ক্ষেপণাস্ত্রের পরীক্ষা করেছে রাশিয়া। ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষার পর রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন দাবি করেছেন যে, এরপর শত্রুরা তাকে হুমকি দেওয়ার আগে দুবার ভাববে। বিশেষজ্ঞদের মতে এই ক্ষেপণাস্ত্রটি বিশ্বের দীর্ঘতম পাল্লার ক্ষেপণাস্ত্র।

দীর্ঘ প্রতীক্ষার পর উত্তর-পশ্চিম রাশিয়ার প্লেসেটস্ক থেকে সরমাট ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষা করা হয়। এই ক্ষেপণাস্ত্রটি একসঙ্গে ১৫টি পারমাণবিক বোমা ফেলার ক্ষমতা রাখে। অত্যাধুনিক সামরিক ও প্রযুক্তিগত বৈশিষ্ট্যে সজ্জিত এই অস্ত্র। এমনকি ক্ষেপণাস্ত্র-বিরোধী প্রতিরক্ষা ব্যবস্থাকে ফাঁকি দিতেও এই অস্ত্রের জুড়ি মেলা ভার। কিন্তু বিশ্বজুড়ে অস্ত্র প্রতিযোগিতায় পিছিয়ে নেই কোনো দেশই। তাহলে দেখে নেওয়া যাক পৃথিবীর ভয়ংকর ৫টি ক্ষেপণাস্ত্র

১) প্রথমেই আসবে আমেরিকার ট্রাইডেন্ট II :- অস্ত্রের কথা হচ্ছে এবং আমেরিকা থাকবে না, তেমনটা হতেই পারেনা। ট্রাইডেন্ট II একটি ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র। এই ক্ষেপণাস্ত্রের  প্রথম পরীক্ষা হয় ১৯৯০ সালে। সম্পূর্ণ ওজন সহ ট্রাইডেন্ট II ক্ষেপণাস্ত্রের রেঞ্জ ৭,৮০০ কিমি। এবং ওজন কম থাকলে এই পাল্লা বেড়ে গিয়ে হয় ১২,০০০ কিমি। এই ক্ষেপণাস্ত্রটি একসাথে ১৪টি ওয়ারহেড বহন করতে পারে। Trident II একটি অত্যন্ত নির্ভুল ক্ষেপণাস্ত্র। একদম সঠিক লক্ষ্যে হানা দেয় এটি

২) রাশিয়ার R-36M2 বা SS-18 শয়তান :-  SS-18 শয়তান একটি খুব সক্ষম মিসাইল। SS-18 শয়তান ক্ষেপণাস্ত্রের সীমা ১১,০০০ কিলোমিটার এবং এটি ১০ টি ওয়ারহেড বহন করতে পারে। তাই ক্ষেপণাস্ত্র প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা থেকে এর পারমাণবিক অস্ত্র প্রতিরোধ করা কঠিন। SS-18 শয়তান ক্ষেপণাস্ত্রকে মাটি থেকে আক্রমণ করা হয়। ন্যাটো এই সিস্টেমের নাম রেখেছে SS-18 শয়তান

৩) রাশিয়ার RS-24 Yars :- এই ক্ষেপনাস্ত্র ব্যবস্থাটিও একটি আন্তঃমহাদেশীয় ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র।ন্যাটো এই ক্ষেপণাস্ত্রের নাম রেখেছে SS-29। ২০১০ সালে এই ক্ষেপনাস্ত্রটি রাশিয়ান সেনাবাহিনীতে অন্তর্ভুক্ত হয়। ইয়ারসের পাল্লা ১২,০০০ কিমি। এবং এটি ১০টি ওয়ারহেড বহন করতে সক্ষম। 

৪) LGM-30G Minuteman III :- এরপরই আসে  মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে LGM-30G Minuteman III। বর্তমানে সারা বিশ্বেএই ক্ষেপনাস্ত্র সবচেয়ে বেশি নিয়োজিত ICBM। ১৯৭০ সালে সেনাবাহিনীতে অন্তর্ভুক্ত হয়। পুরানো হওয়া সত্ত্বেও, পরিষেবায় রাখার সাথে সময়ে সময়ে প্রয়োজনীয় উন্নতি করা হয়েছে Minuteman III মিসাইলের সর্বোচ্চ রেঞ্জ ১৩০০০ কিমি। একইসাথে তিনটি ওয়ারহেড বহন করতে পারে এই সিস্টেমটি।

৫) R-29RMU2.1 লাইনার। এটিও রাশিয়ার তৈরি ক্ষেপনাস্ত্র। এটি একটি ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র যা রাশিয়ান সেনাবাহিনীতে অন্তর্ভুক্ত হয়ে ২০১৪ সালে। সাবমেরিন থেকে লঞ্চ করা হয় এই মিসাইল। সম্পূর্ণ ওজন সহ এই মিসাইলের সর্বোচ্চ পরিসীমা ৮,৩০০ কিমি। এবং কম লোড সহ ১২,০০০ কিমি। ক্ষেপণাস্ত্রটি ১২টি ওয়ারহেড বহন করতে পারে।

তবে এছাড়াও রয়েছে ভারতের অগ্নি 5। যদিও অগ্নি-5 শীর্ষ 5 মিসাইলের মধ্যে আসেনি, তবে এটিও একটি ভয়ংকর মিসাইল। মাটি থেকে এই ব্যালিস্টিক মিসাইল ৫,০০০ কিমি দূরেও আঘাত হানতে সক্ষম। অগ্নি-5 একটি পারমাণবিক ক্ষেপণাস্ত্র এবং এটি প্রায় ১,৫০০ কেজি ওয়ারহেড বহন করতে পারে। প্রায় সমগ্র চীন এর পরিসরে চলে আসে। তবে অনেক বিশেষজ্ঞের মতে যে কম ওজনের ওয়ারহেড সহ অগ্নি-5-এর পাল্লা ৮,০০০ কিলোমিটার। 

➦ আপনার জন্য বিশেষ খবর

Back to top button