গান শুরু হতেই ছন্দপতন, বারবার হোঁচট! ভরা মঞ্চে প্রেস্টিজ বাঁচাতে যা করলেন রূপঙ্কর

কিংবদন্তি সঙ্গীতশিল্পী ‘কেকে’-র (KK) মৃত্যুর সাথে সাথে চলে গিয়েছিলো রূপঙ্কর বাগচীর (Rupankar Bagchi) মান সম্মানও। ‘কেকে’র প্রতি করা বিতর্কিত মন্তব্য কার্যত ঝড় তুলে দিয়েছিলো গোটা রাজ্যে। সোশ্যাল মিডিয়ায় তো বটেই পাশাপাশি কোথাও স্টেজ শো করতে গেলেও জুটতো গালাগালি, কটাক্ষ। একদা জাতীয় পুরস্কারপ্রাপ্ত সঙ্গীত শিল্পীর মান সম্মান সবই গেছিলো বানের জলে।

তবে গত রবিবার সেই ভূলুণ্ঠিত সম্মান যেন কিছুটা হলেও পুনরুদ্ধার করতে পেরেছেন তিনি। বন্ধু তথা কাউন্সিলর সজল ঘোষের সন্তোষ মিত্র স্কোয়ারের বিজয়া সম্মিলনী অনুষ্ঠান। মাঠ ভর্তি মানুষের মাঝে মাইক হাতে গাইতে শুরু করলেন ‘ও চাঁদ…..’। দর্শক যেই গানের আমেজ নিতে যাবে অমনি হলো ছন্দপতন। গিটারে কোনোভাবেই সুর ওঠেনা যে।

এমতাবস্থায় ও চাঁদ… গাইতে গিয়ে বারবার হোঁচট খাচ্ছেন গায়ক। গোটা মাঠের সামনে গিটার হাতে বৃথা চেষ্টা করে যাচ্ছিলেন গিটারিস্ট। বিজেপি নেতার পাড়ার অনুষ্ঠান বলে কথা। যেখানে উপস্থিত অনেক ছোটো বড়ো নেতাও। এমতাবস্থায় এরকম বিপত্তিতে একটু ঘাবড়েই গিয়েছিলেন আয়োজকরা।

পরিস্থিতি বেগতিক দেখে অবশেষে নিজের কাঁধেই সমস্ত দায়ভার তুলে নিলেন রূপঙ্কর। আর ঝুঁকি না নিজেই তুলে নিলেন গিটার। একসঙ্গে গিটারে সুর তুলে গাইলেন একগুচ্ছ গান।‌ আসলে স্টেজ পারফরমেন্স খারাপ হলে গায়ক থেকে শুরু করে আয়োজক প্রত্যেকেরই যে কী ক্ষতি হয় তা কি ভালো করেই জানেন রূপঙ্কর। আর তাই সকলের সম্মান রক্ষার্থেই শেষ মুহূর্তে তুলে নেওয়া গিটার এবং নিজের গলায় নিজের গানের সুর তোলা।

2027527 con img 20221016 214419

সত্যি বলতে কি লেবুতলার মানুষ জনের কাছে এটাও একটা স্মরণীয় অভিজ্ঞতা হয়ে থেকে যাবে বৈ কী। অনুষ্ঠানের উদ্যোক্তা সজল ঘোষ জানান, ‘ রুপঙ্করের সঙ্গে আমার কলেজজীবন থেকে বন্ধুত্ব। ওর আজকের দায়িত্ব নিয়ে করা পারফরম্যান্স মনে রাখার মতন।’ এদিকে রূপঙ্করকে জিজ্ঞেস করা হলে তিনি বলেন, “আসলে যন্ত্র অনুষঙ্গিক, যিনি বাজাচ্ছেন তিনি নতুন। তাই একটু সমস্যা হচ্ছিল। নিজেই তাই গিটার তুলে নিলাম।” তবে গান গেয়ে বাহবা কুড়োলেও ‘কে কে’ বিতর্ক কি এখানেই থামাতে পারলেন রূপঙ্কর?

➦ আপনার জন্য বিশেষ খবর

Back to top button