অনেক রাত কাটিয়েছেন না খেয়ে! আজ তিন দেশে কোটি টাকার ব্যবসা মাধ্যমিক ফেল ছাত্রের

নয়া দিল্লিঃ প্রত্যেক মানুষই তার জীবনে সাফল্য পেতে চায়। যার জন্য ভাল পড়াশোনার সাথে সাথে করতে হয় কঠোর পরিশ্রমও। তবে শুধুই যে শিক্ষার মাধ্যমে একজন মানুষ সফলতা অর্জন করতে পারে এমন নয়, কারণ সাফল্যের সিঁড়ি বেয়ে উঠতে হলে প্রয়োজন দক্ষতা ও কঠোর পরিশ্রমের। তবে আজ যার কথা বলতে যাচ্ছি সেই রাজ সিংহ প্যাটেল, ব্যার্থ হন দশম শ্রেণির পরীক্ষাতে উত্তীর্ন হতে। তিনি আজ শুধুমাত্র তার ব্যবসা প্রতিষ্ঠাই করেননি ছড়িয়ে দিয়েছেন তিনটি ভিন্ন দেশে।

উত্তরপ্রদেশের উন্নাওতে শিবপুর (আচলগঞ্জ) নামে একটি ছোট্ট গ্রামে তার জন্ম। রাজ সিং-এর বাবা সুন্দরলাল প্যাটেল ছিলেন একজন ক্ষুদ্র কৃষক, যার জন্য পাঁচ ছেলে ও এক মেয়েকে বড় করা এবং তাদের সুশিক্ষায় শিক্ষিত করা ছিল খুবই কঠিন কাজ। তা সত্ত্বেও সুন্দরলাল প্যাটেল চেষ্টা করেছিলেন তার সন্তানদের ভাল শিক্ষা দেওয়ার।

কিন্তু রাজ সিংয়ের শুরু থেকেই পড়াশোনার প্রতি খুব টান না থাকলেও বাবার কথায় দশম শ্রেণি পর্যন্ত স্কুলে যেতে থাকেন তিনি। কিন্তু দশম শ্রেণির বোর্ড পরীক্ষার রেজাল্টে রাজ সিং ফেল করায় তার বাবা অনেক বকাঝকা করলে রাজ সিং বাড়ি থেকে পালিয়ে যান। বাড়ি থেকে পালিয়ে তিনি পৌঁছন হরিয়ানার রোহতক শহরে।

যেখানে তার একজন পরিচিত ইতিমধ্যেই কাজ করেছিল। রাজ কিছু দিনের জন্য রোহতকে একটি চাকরির সন্ধান করেছিলেন। তারপরে তিনি লেদ মেশিনে কাজ করেছিলেন। এ সময় তার কাছে খাবার খাওয়ার টাকাও ছিল না, যার কারণে তাকে অনেক রাত কাটাতে হয়েছে অনাহারে। কোম্পানিতে চাকরি পাওয়ার পর দিনরাত পরিশ্রম করে টাকা জমাতে শুরু করেন, কারণ তিনি চেয়েছিলেন নিজের ব্যবসা শুরু করতে। কিন্ত বিয়ে করে ফেলায় স্ত্রী এবং পরিবার এর জন্যও দায়িত্ব বেড়ে গিয়েছিল অনেকটাই। কিন্তু রাজ সিং সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন যে তিনি নিজের ব্যবসা শুরু করবেনই।

এমতাবস্থায়, নাট অ্যান্ড বোল্ড কোম্পানিতে প্রায় ৯ বছর কাজ করার পর রাজ সিং সাহস দেখিয়ে ৭৫ হাজার টাকা ঋণ নিয়ে একটি মেশিন ভাড়া নেন। এবং নিজেই নাট বোল্ট তৈরি করতে শুরু করেন। তার স্ত্রী আশা প্যাটেলও তাকে সমর্থন করেছিলেন এই কাজে। ব্যাবসা শুরুর দিকে শ্রমিকদের বেতন দেওয়ার মত টাকা না থাকায় স্বামী-স্ত্রী মিলেই চালাতেন কোম্পানি। পরবর্তী দুই বছরে ব্যবসা গতি লাভ করে। এসময়ই তিনি নিজের কারখানা খোলার সিদ্ধান্ত নেন, যার জন্য তাকে যেতে হয়েছিল তাইওয়ান।

এর পরে রাজ সিং প্যাটেল রোহতকে নাট বোল্ড মেকিং কোম্পানির ভিত্তি স্থাপন করেন এবং তার ব্যবসা বাড়ানোর জন্য অন্যান্য মেশিনের সন্ধানও শুরু করেন। এরই মধ্যে তিনি আমেরিকা এবং তাইওয়ান গিয়ে মেশিন তৈরি এবং তাদের কাজ করার পদ্ধতি দেখেছিলেন। পরবর্তিতে তিনি নিজেই মেশিন তৈরি করার সিদ্ধান্ত নেন। এরপর তার কঠোর পরিশ্রম এবং অভিজ্ঞতার জোরে একটি স্বয়ংক্রিয় মেশিন তৈরি করতে সফল হন, যা তৈরি করতে তাকে ব্যয় করতে হয়েছিল সাড়ে তিন লাখ টাকা। তার তৈরী মেশিন কাজ করে অনেক দ্রুত। এরপরই তিনি কর্মসংস্থান করে দিয়েছেন নিজের গ্রামের যুবকদের জন্য।

রাজ সিং এখন পর্যন্ত তার গ্রামের ১২ জন যুবককে শিখিয়েছেন কিভাবে করতে হয় এই কাজ। তাদের কেও কেও রোহতকেই গড়ে তুলেছেন নিজেদের ব্যবসা। রাজ সিং প্যাটেল বিশ্বাস করেন যে তিনি যদি সরকারের কাছ থেকে সাহায্য পান তবে তিনি এমন স্বয়ংক্রিয় মেশিন তৈরি করতে পারবেন যা কম সময়ে বেশি উৎপাদন দিতে পারে। এটি দেশে নাট বোল্ডের দাম কমিয়ে আনবে, পাশাপাশি ছোট গ্রাম এবং শহরেও সেই মেশিনগুলি ব্যবহার করা সহজ করে তুলবে৷

➦ আপনার জন্য বিশেষ খবর

Back to top button