মাত্র ১০০ টাকায় ক্যানসারের যম! যুগান্তকারী ওষুধ আবিষ্কার ভারতীয় বিজ্ঞানীদের, করে দেখাল টাটা

আমেরিকা ও চিনের পরেই বিশ্বে সবচেয়ে বেশি ক্যানসার (Cancer) রোগী রয়েছে ভারতে (India)। প্রতি ১০ জন ক্যান্সার রোগীর মধ্যে ৫ জন মারা যায়। চিকিৎসার পরও যে তা আবার রোগীর মধ্যে ছড়াবে না তার কোনো নিশ্চয়তা নেই। যদিও এবার ভারতের বৃহত্তম ক্যান্সার হাসপাতাল টাটা হাসপাতালের (Tata Cancer Hospital) চিকিৎসকরা ক্যান্সার রোগ নিয়ে একটি গভীর গবেষণা করেছেন এবং একটি ট্যাবলেট তৈরি করেছেন যা ক্যান্সারের চিকিৎসা করতে এবং দ্বিতীয় ক্যান্সার প্রতিরোধে সহায়তা করতে পারে। হ্যাঁ ঠিকই শুনেছেন।

ভারতে ক্যান্সারের ঘটনা আশঙ্কাজনকভাবে বৃদ্ধি পাওয়ায়, টাটা ইনস্টিটিউট অফ ফান্ডামেন্টাল রিসার্চ (Tata Institute of Fundamental Research) এর বিজ্ঞানীরা (Scientist) একটি ট্যাবলেট তৈরি করেছেন যা দ্বিতীয় মেয়াদী ক্যান্সারের চিকিৎসা এবং প্রতিরোধে সহায়তা করতে পারে। এই গবেষণাটি করার জন্য, মানব ক্যান্সার কোষগুলি ইঁদুরগুলিতে প্রবেশ করানো হয়েছিল, যার পরে তাদের মধ্যে টিউমার তৈরি হয়েছিল। এরপর রেডিয়েশন থেরাপি, কেমো থেরাপি ও সার্জারির মাধ্যমে তার চিকিৎসা করা হয়। দেখা গেছে, ক্যান্সার কোষ মারা গেলে খুব ছোট ছোট টুকরো হয়ে যায়, এই টুকরোগুলোকে বলা হয় ক্রোমাটিন কণা। ক্রোমাটিন কণাগুলি রক্ত প্রবাহের মাধ্যমে শরীরের অন্যান্য অংশে ভ্রমণ করতে পারে এবং যখন তারা স্বাস্থ্যকর কোষগুলিতে প্রবেশ করে তখন তারা তাদের ক্যান্সার কোষে পরিণত করতে পারে, যা ক্যান্সার দ্বারা ধ্বংস হওয়ার পরেও ফিরে আসতে পারে।

   

এই সমস্যার সমাধান খুঁজতে চিকিৎসকরা ইঁদুরকে রেসভেরাট্রল ও কপার কম্বিনেশন প্রো-অক্সিডেন্ট ট্যাবলেট দেন। ক্রোমাটিন কণার প্রভাব ঠেকাতে এই ট্যাবলেট উপকারী ছিল। জানা গিয়েছে, প্রায় এক দশক ধরে, টাটার ডাক্তাররা এই ট্যাবলেটটি নিয়ে কাজ করছিলেন এবং অবশেষে তারা সাফল্য পেয়েছিলেন। বর্তমানে ট্যাবলেটটি ফুড সেফটি অ্যান্ড স্ট্যান্ডার্ড অথরিটি এফএসএসএআই-এর অনুমোদনের অপেক্ষায় রয়েছে। অনুমোদনের পর এই ট্যাবলেটটি বাজারে পাওয়া যাবে। ক্যান্সার চিকিৎসার উন্নতিতে এই ট্যাবলেট অনেকাংশে সাহায্য করবে।

cancer

টাটা মেমোরিয়াল হাসপাতালের প্রাক্তন ডিরেক্টর তথা সিনিয়র ক্যান্সার সার্জন ডাঃ রাজেন্দ্র বাদভে জানিয়েছেন, এখনও পর্যন্ত ১০০ টাকা হল সবচেয়ে সস্তা চিকিৎসা, ৫০ শতাংশ এই থেরাপির পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া কমবে বলে আশা করা হচ্ছে। এই ট্যাবলেট ক্যান্সার চিকিৎসা থেরাপির পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া প্রায় ৫০ শতাংশ কমিয়ে দেবে এবং দ্বিতীয়বার ক্যান্সার প্রতিরোধে প্রায় ৩০ শতাংশ কার্যকর। লক্ষ থেকে কোটি টাকার বাজেটে চিকিৎসা হলেও মাত্র ১০০ টাকায় সর্বত্র পাওয়া যাবে এই ট্যাবলেট। জুন-জুলাইয়ের মধ্যে অনুমোদন মিলতে পারে বলে আশাবাদী চিকিৎসকরা।

বিগত ৭ বছর ধরে সাংবাদিকতার পেশার সঙ্গে যুক্ত। ডিজিটাল মিডিয়ায় সাবলীল। লেখার পাশাপাশি বিভিন্ন ধরনের বই পড়ার নেশা।

সম্পর্কিত খবর