যোগাযোগ সহজ হবে দক্ষিণবঙ্গে! বাংলায় চালু হল আরও একটি নতুন রেল পথ

দীর্ঘ প্রতিক্ষার অবসান ঘটল আজ শনিবার। অবশেষে আরো একটি নতুন রেল রুট (Rail Route) পেল বাংলা (West Bengal)। বাংলা সফরে এসেছেন দেশের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। এদিকে বাংলায় এসেই কয়েক হাজার কোটি টাকার প্রকল্পের উদ্বোধন করেছেন প্রধানমন্ত্রী। এদিন পশ্চিমবঙ্গে ১৫ হাজার কোটি টাকার উন্নয়নমূলক প্রকল্পের উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী।

প্রধানমন্ত্রী নদিয়া জেলার কৃষ্ণনগরে (Krishnanagar) এক সরকারি অনুষ্ঠানে প্রকল্পগুলোর উদ্বোধন করেন। অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখতে গিয়ে তিনি বলেন, পশ্চিমবঙ্গকে উন্নত রাজ্য হিসেবে গড়ে তুলতেই এই উদ্যোগ। এই প্রকল্পগুলি পশ্চিমবঙ্গের অর্থনৈতিক বৃদ্ধিকে গতি দেবে এবং কর্মসংস্থানের সুযোগ তৈরি করবে। প্রধানমন্ত্রী পুরুলিয়া জেলায় দামোদর ভ্যালি কর্পোরেশনের রঘুনাথপুর তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্রের দ্বিতীয় পর্যায়ের (২x৬৬০ মেগাওয়াট) শিলান্যাস করেন।

   

মেজিয়া তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্রে ৬৫০ কোটি টাকা ব্যয়ে গড়ে ওঠা ফ্লু গ্যাস ডিসালফারাইজেশন (এফজিডি) ব্যবস্থার উদ্বোধন করেন তিনি। এর পাশাপাশি ১,৯৮৬ কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মিত ১২১২ নম্বর জাতীয় মহাসড়কের ১০০ কিলোমিটার দীর্ঘ ফারাক্কা-রায়গঞ্জ সেকশনটি চার লেনের রাস্তায় উন্নীত করার কাজেরও উদ্বোধন করেন তিনি।

rail line

প্রধানমন্ত্রী রাজ্যে ৯৪০ কোটি টাকারও বেশি মূল্যের চারটি রেল প্রকল্প জাতির উদ্দেশে উৎসর্গ করেছেন। এগুলি হ’ল দামোদর-মহিশিলা লাইনের ডবল লাইন, রামপুরহাট ও মুরারাইয়ের মধ্যে তৃতীয় লাইন, বাজারসাউ-আজিমগঞ্জ রেললাইন ডবল করা এবং আজিমগঞ্জ ও মুর্শিদাবাদের মধ্যে একটি নতুন লাইন। বিশেষ করে এই আজিমগঞ্জ ও মুর্শিদাবাদের মধ্যে একটি নতুন লাইনের জোরালো দাবি উঠেছিল।

এই রেল লাইনটির মোট দৈর্ঘ্য ৭ কিলোমিটার। ১৬০ কোটি টাকার বেশি ব্যয়ে এই লাইনটি তৈরি হয়েছে। এখন আপনিও নিশ্চয়ই ভাবছেন যে এই রেল লাইনটি তৈরি করার উদ্দেশ্য কী? দক্ষিণবঙ্গ (South Bengal) থেকে উত্তরবঙ্গের (North Bengal) বিকল্প পথ তৈরি করা। সেইসঙ্গে ভাগীরথী নদীর তীরে অবস্থিত শহরগুলির সংযুক্তি।

বিগত ৭ বছর ধরে সাংবাদিকতার পেশার সঙ্গে যুক্ত। ডিজিটাল মিডিয়ায় সাবলীল। লেখার পাশাপাশি বিভিন্ন ধরনের বই পড়ার নেশা।

সম্পর্কিত খবর