৫০ বছরে প্রথম! ৭.৫ মিনিট থাকবে চারিদিক অন্ধকার, এই দিন হবে বিরল সূর্যগ্রহণ

ঢেকে যেতে চলেছে সূর্য। হবে পূর্ণ গ্রাস। দিনের বেলায় নামবে রাত। ঘটবে ঐতিহাসিক ঘটনা। জীবনে একবারই এমন ঘটনার সাক্ষী থাকার সুযোগ। ৫০ বছরে এই প্রথম এতো দীর্ঘ সূর্য গ্রহণ হতে চলেছে। মিনিটের কাঁটা বারবার অতিক্রম করলেও গ্রহণ ছাড়ার নাম নেবে না।

ঐতিহাসিক সূর্য গ্রহণের সাক্ষী থাকতে চলেছেন বিশ্ববাসী। দীর্ঘতম সূর্য গ্রহণ দেখার সুযোগ আসতে চলেছে খুব তাড়াতাড়ি। প্রায় ৭.৫ মিনিট পর্যন্ত এই গ্রহণ চলবে বলে মনে করা হচ্ছে। গ্রহণ আগেও মানুষ বহুবার দেখেছে। কিন্তু এতো বেশিক্ষণ ধরে গ্রহণ হওয়া বাস্তবিক এক অভাবনীয় ঘটনা। তবে এম্ন ঘটনা যে এই প্রথম ঘটতে চলেছে এমন না। এর আগেও এরকম দীর্ঘ গ্রহণের সাক্ষী থেকে বিশ্ববাসী। তাই দুশ্চিন্তা বা আতঙ্কিত হওয়ার কোনও কারণ নেই।

কীভাবে হচ্ছে এতো দীর্ঘ একটা সূর্য গ্রহণ?

   

আগামী ৮ এপ্রিল মেক্সিকোর প্রশান্ত মহাসাগরীয় উপকূল অঞ্চলে সকাল ১১টা বেজে ৭ মিনিটে প্রথম এই মহাজাগতিক ঘটনা দেখা যাবে দেখা যাবে বলে জানিয়েছে মার্কিন মহাকাশ গবেষণা সংস্থা নাসা। চাঁদ যখন সূর্যকে পুরোপুরি ঢেকে ফেলবে তখনই দিনের বেলায় নেমে আসবে রাতের মতো অন্ধকার। গ্রহণ নিয়ে মানুষের মধ্যে অনেক রকমের কুসংস্কার রয়েছে। কিন্তু চন্দ্র, সুর্য গ্রহণে কুসংস্কারের কোনও জায়গা নেই। বিজ্ঞান বুঝিয়ে বলেছেন, গ্রহণ কেন হয়?

কেমন করে হয় সূর্যগ্রহণ?

আসন্ন এই সূর্যগ্রহণের সময় চাঁদ পৃথিবী ও সূর্যের মাঝখানে চলে আসবে। এর ফলে ঢেকে যাবে সুর্যের আলো, চাঁদের ছায়া পড়বে পৃথিবীতে। ধীরে ধীরে ঘটবে এই ঘটনা। চাঁদ সুর্যকে পুরোপুরি ঢেকে ফেললে তখনই বলা হবে পূর্ণ গ্রাস সূর্য গ্রহণ। বলা হচ্ছে, আলোচ্য পূর্ণগ্রাস সূর্যগ্রহণটি প্রায় সাড়ে সাত মিনিট স্থায়ী হবে। যার ফলে এটিকে একটি বিরল ঘটনা বলেই ধরে নেওয়া হচ্ছে। আফ্রিকা মহাদেশে শেষবার এত দীর্ঘ সূর্যগ্রহণ দেখা গিয়েছিল সেই ১৯৭৩ সালে।

ছোটোবেলা থেকে খেলাধুলোর প্রতি ভালোবাসা। এখন পেশা। বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে লিখছে বিগত কয়েক বছর ধরে।

সম্পর্কিত খবর