চালান অতীত! এবার ট্রাফিক আইন ভাঙলেই লাইসেন্স বাতিল, বাজেয়াপ্ত গাড়ি! ঘোষণা মুখ্যমন্ত্রীর

আমাদের ভারতবর্ষে (India) ট্রাফিক (Traffic) নিয়ে নানা ধরণের নিয়ম বলা আছে। আর এই নিয়মগুলো যদি কেউ লঙ্ঘন করার চেষ্টাও করে তাহলে সেই ব্যক্তির অবস্থা খুবই শোচনীয় হয়ে যায়। করা হয় মোটা টাকার জরিমানাও। এমনকি গুরুতর কোনো ঘটনা ঘটলে জেল অবধি হয় অনেকের।

traffic

   

তবে এসব এখন অতীত, এবার আরও কড়া নিয়ম জারি করা হল। যে শুনে বুক কেঁপে যেতে পারে আপনারও। রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী (Chief Minister) ট্রাফিক নিয়ম লঙ্ঘনকারীদের উদ্দেশ্যে এমন ঘোষণা করেছে যা শুনে সকলের চোখ একপ্রকার কপালে উঠে গিয়েছে। যারা রাস্তায় বেরিয়ে বারবার ট্রাফিক নিয়ম মানেন না তাঁদের উদ্দেশ্যে কড়া বার্তা দিয়েছেন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী। আপনিও কি জানতে ইচ্ছুক যে রাজ্য সরকার কী সিদ্ধান্ত নিয়েছে? তাহলে আর দেরী না করে বিস্তারিত জানতে ঝটপট পড়ে ফেলুন এই প্রতিবেদনটি।

আসলে ট্রাফিক নিয়ম নিয়ে এবার কড়া বার্তা দিয়েছেন উত্তরপ্রদেশের (Uttar Pradesh) মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ (Yogi Adityanath)। তিনি ড্রাইভিং লাইসেন্স (Driver’s license) বাতিল করে দেওয়া থেকে শুরু করে যানবাহন বাজেয়াপ্ত করে নেওয়ারও হুঁশিয়ারি দিয়েছেন। সড়ক দুর্ঘটনায় মৃত্যুর হার কমাতে সরকার, প্রশাসন এবং জনসাধারণের একযোগে কাজ করার প্রয়োজনীয়তার উপর জোর দিয়ে মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ শনিবার ট্রাফিক আইন অমান্যকারীদের বিরুদ্ধে কঠোর হওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন।

উত্তর প্রদেশ রাজ্য সড়ক নিরাপত্তা কাউন্সিলের বৈঠকে নাকি মুখ্যমন্ত্রী প্রয়োজন অনুযায়ী ড্রাইভিং লাইসেন্স বাতিল এবং গাড়ি বাজেয়াপ্ত করার ব্যবস্থা নেওয়া উচিত বলে নির্দেশ দিয়েছেন। তিনি বলেন, “প্রথমে সচেতনতা তৈরি করুন, যদি বারবার লঙ্ঘন হয় তবে জরিমানা করুন, তারপরও যদি লঙ্ঘন হয় তবে ড্রাইভিং লাইসেন্স বাতিল করে দিন।” তিনি বলেন, ‘সড়ক দুর্ঘটনা ও দুর্ঘটনার কারণে অকাল মৃত্যু কমাতে সমন্বিত প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি। সড়ক দুর্ঘটনায় কারো অকাল মৃত্যু অত্যন্ত দুঃখজনক। এটি হ্রাস করতে আমাদের সচেতনতা, শিক্ষা, প্রয়োগ এবং জরুরি যত্নের দিকে মনোনিবেশ করে একসাথে কাজ করতে হবে।’

traffic 2

মুখ্যমন্ত্রী বলেন, ‘চালান বা অন্যান্য প্রয়োগকারী পদক্ষেপ ট্র্যাফিক আইন প্রয়োগের স্থায়ী সমাধান নয়। আমাদের সচেতনতার ওপর জোর দিতে হবে। ১৫ ডিসেম্বর থেকে ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত সময়কালকে ‘রোড সেফটি’ হিসেবে পালন করা উচিত।’

সম্পর্কিত খবর