আকাল LPG সিলিন্ডারের, রান্না করতে গিয়ে বিপাকে মায়েরা! আচমকাই বাংলায় গ্যাসের হাহাকার

দেশে এখন খাবার রান্না (Cooking) করার জন্য গ্যাস (Gas Cylinder) একটি অপরিহার্য বিষয় হয়ে উঠেছে সকলের কাছে। এখন দেশের এমন কোনো হেঁশেল হয়তো বাকি নেই যেখানে এই গ্যাস সিলিন্ডারের মাধ্যমে রান্না হয় না। আপনার বাড়িতেও আছে নিশ্চয়ই? আপনিও কি পশ্চিমবঙ্গের (West Bengal) বাসিন্দা? তাহলে আজকের এই খবরটা রইল শুধুমাত্র আপনার জন্য।

সাম্প্রতিক সময়ে একটি খবর প্রকাশ্যে এসেছে, যা শুনে সকলের রাতের ঘুম উড়ে গিয়েছে রীতিমতো। এলপিজি (Liquefied petroleum gas) গ্যাস সিলিন্ডার নিয়ে একপকথায় নাজেহাল অবস্থা হয়ে গিয়েছে হাজার হাজার মানুষের। আর সমস্যার সম্মুখীন হয়েছেন বাংলার ঘরে ঘরের মানুষজন। এখন আপনিও নিশ্চিয়ই ভাবছেন যে কী হয়েছে? তাহলে আপনাদের জানিয়ে রাখি, বাংলায় গ্যাস সিলিন্ডারের জন্য হাহাকার পরে গিয়েছে।

   

বহু মানুষ এখন হেঁশেলে গিয়ে রান্না করার সময়ে আঁতকে উঠছেন। ভুরিভুরি মানুষের অভিযোগ, এক, দু সপ্তাহ আগে থেকে গ্যাস বুক করলেও বাড়িতে আসছে না গ্যাস। ফলে রান্না করা একপ্রকার দুঃসহ হয়ে উঠছে। আর মূলত এই সমস্যায় জেরবার হচ্ছেন উত্তরবঙ্গের (North Bengal) মানুষজন। হ্যাঁ ঠিকই শুনেছেন। সেখানে রান্নার গ্যাসের রীতিমতো আকাল দেখা দিয়েছে।

এক রিপোর্ট দেখে সকলের চোখ ছানাবড়া হয়ে গিয়েছে। রিপোর্ট অনুযায়ী, আলিপুরদুয়ার (Alipurduar) জেলা জুড়ে ইন্ডিয়ান অয়েলের (Indian Oil Corporation) LPG সিলিন্ডার সরবরাহ কেন্দ্রের সংখ্যাই বেশি। ব্লকে ব্লকে গ্যাস ডিলারদের দোকান আছে। এই জেলায় সিলিন্ডার আসে জলপাইগুড়ি (Jalpaiguri) রানিনগর প্ল্যান্ট থেকে।

lpg gas

গ্যাস ডিলারদের মতে, বর্তমানে যেহেতু আসামে এবং মালদায় ইন্ডিয়ান অয়েলের যে সিলিন্ডারের প্ল্যান্ট রয়েছে, তার সংস্কারের কাজ চলছে। সেই কারণে বড় এই সুতি প্ল্যান্টগুলি থেকে সিলিন্ডারের সরবরাহ ব্যাহত হচ্ছে। সেই ঘাটতি মেটাতে জলপাইগুড়ির প্ল্যন্ট থেকেই এই দুই জায়গায় সিলিন্ডার পাঠানো হচ্ছে। আর এর ফলে আলিপুরদুয়ারের মতো জায়গায় গ্যাস সিলিন্ডারের হাহাকার দেখা দিয়েছে। প্রত্যন্ত গ্রাম থেকে শহর, সর্বত্র এই সমস্যা দেখা দিয়েছে। তবু চিন্তা নেই, খুব দ্রুত এই সমস্যার সমাধান ঘটবে বলে আশ্বাস দেওয়া হয়েছে গ্যাস প্ল্যান্টগুলির তরফে।

বিগত ৭ বছর ধরে সাংবাদিকতার পেশার সঙ্গে যুক্ত। ডিজিটাল মিডিয়ায় সাবলীল। লেখার পাশাপাশি বিভিন্ন ধরনের বই পড়ার নেশা।

সম্পর্কিত খবর