অপেক্ষার অবসান, চুপিসারে বাংলার এই রুটে চালু নয়া ট্রেন! রেলের পদক্ষেপে খুশি জনতা

সাধারণ মানুষের কথা ভাবনা চিন্তা করে এবার বড় সিদ্ধান্ত নিল ভারতীয় রেল (Indian Railways)। বিশেষ করে বাংলার মানুষের কথা ভাবনা চিন্তা করে চুপিসারে একটি দীর্ঘ প্রতীক্ষিত রুটে শুরু হয়ে গেল ট্রেন পরিষেবা। কেউ ভাবতেও পারেননি যে লোকসভা ভোটের আগে এই কাণ্ড ঘটাবে পূর্ব রেল।

এমনিতেই বর্তমান সময় ভারতীয় রেলের উপর সাধারণ মানুষের আশা, ভরসা যেন বেড়েই চলেছে। এদিকে সকলের আশা, ভরসা, স্বাৰ্থের দাম দিয়ে ভারতীয় রেলও কোনোরকম ভাবে পিছিয়ে নেই। ইতিমধ্যে বাংলার বুকে ছুটে চলেছে বন্দে ভারত এক্সপ্রেস এর মতো সেমি হাই স্পিড ট্রেন। ফলে সাধারণ মানুষের এক্সপেক্টেশন যেন ভারতীয় রেলের থেকে আরো বেড়ে গিয়েছে। এহেন অবস্থায় ভারতীয় এমন এক চমক দিয়েছে যার জন্য তৈরি ছিলেন না কেউই।

   

কাটোয়া জংশন (Katwa Junction railway station) এবং আহমেদপুর জংশন (Ahmadpur Junction railway station) রুটে দুটি ট্রেন চালু হল। মূলত এই রুটের যাত্রীদের দীর্ঘদিনের আবদার শুনে এই রুটে নতুন মেমু ট্রেন চালু করল পূর্ব রেল (Easter Railway Zone)। সকল অপেক্ষার অবসান ঘটিয়ে চালু হয়ে গেল কাটোয়া-আহমেদপুর নতুন মেমু ট্রেন (Katwa Ahmadpur Memu Train)। রবিবার থেকে শুরু হল নতুন এই ট্রেনের পথ চলা।

এদিকে এই ট্রেন চালু হওয়ায় বেজায় খুশি সাধারণ আমজনতা। প্রথমদিন গুটি কয়েকজন যাত্রীকে নিয়েই পথচলা শুরু হয় দীর্ঘ প্রতীক্ষিত এই মেমু ট্রেনের। যাত্রাপথে এই ট্রেনটি কভার করেছে নবগ্রাম, অম্বলগ্রাম, পাচন্ডি, নিরোল, কোমারপুর, জনান্দাস, কুরমোডাঙ্গা হল্ট, ডাস্কলগ্রাম, কীর্নাহার, লাভপুর, গোপালপুরগ্রাম , চৌহাট্টা প্রমুখ।

memu train

এছাড়া পূর্ব রেল আরও জানাচ্ছে, কাটোয়া ও আহমেদপুরের মধ্যে নতুন যে মেমু স্পেশাল ট্রেন দেওয়া হয়েছে অর্থাৎ ট্রেন নম্বর ০৩০৪৯ সকাল ১০:৫৫ মিনিটে কাটোয়া থেকে আহমেদপুরের উদ্দেশ্যে রওনা দেবে। এই মেমু ট্রেনটি আহমেদপুর পৌঁছাবে দুপুর ১২টা ৩০ মিনিটে। কাটোয়া ও আহমেদপুরের মধ্যে দুটি প্রান্তিক স্টেশন ছাড়াও মোট ১২টি স্টেশনে স্টপেজ দেবে এই ট্রেনটি। কাটোয়া ও আহমেদপুরের মধ্যে মোট ৫১ কিলোমিটার রাস্তা যেতে সময় লাগবে ১ ঘন্টা ৩৫ মিনিট।

এরপর ফিরতি পথে ট্রেন নম্বর ০৩০৫০ আহমেদপুর কাটোয়া মেমু প্যাসেঞ্জার ট্রেনটি দুপুর ১২টা ৫০ মিনিটে কাটোয়ার উদ্দেশ্যে রওনা দেবে। এরপর এই ট্রেনটি কাটোয়া পৌঁছাবে দুপুর ২:২০ মিনিটে। মোট ৫১ কিলোমিটার রাস্তা যেতে সময় নেবে। ১ ঘন্টা ১৪ মিনিট। ফেরার পথেও ট্রেনটি কাটোয়া ও আহমেদপুর বাদে বাকি ১২টি স্টেশনে স্টপেজ দেবে।

বিগত ৭ বছর ধরে সাংবাদিকতার পেশার সঙ্গে যুক্ত। ডিজিটাল মিডিয়ায় সাবলীল। লেখার পাশাপাশি বিভিন্ন ধরনের বই পড়ার নেশা।

সম্পর্কিত খবর