আধার বাতিল হলে নিষ্ক্রিয় রেশন কার্ডও? আতঙ্কের মধ্যেই নয়া নির্দেশিকা জারি রাজ্যের

মহা ফ্যাসাদে রাজ্যের সাধারণ মানুষ। কারণ আচমকাই বাতিল করে দেওয়া হয়েছে ৭০০-রও বেশি মানুষের আধার কার্ড (Aadhaar)। যদিও এই সংখ্যা আগামী দিনে আরও বাড়তে পারে বলে আশঙ্কা করছেন বেশিরভাগ মানুষ। UIDAI-এর তরফে বহু ললকের আধার নম্বর নিষ্ক্রিয় করে দেওয়া হয়েছে এবং দেশে থাকার প্রয়োজনীয়তা পূরণ করা হয়নি বলে চিঠি পাওয়ার পর গোটা বাংলায় আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়েছে।

ইউআইডিএআই বা ইউনিক আইডেন্টিফিকেশন অথরিটি অফ ইন্ডিয়া-র তরফে জারি করা আধার কার্ড প্রত্যেকটি ভারতের নাগরিকের জন্য একটি বাধ্যতামূলক নথি। নির্ভুল আধার কার্ড থাকা সকলের কাছে জরুরি। যদিও বাংলার কিছু মানুষ স্বস্তিতে নেই এই আধার কার্ড নিয়ে। কারণ বর্ধমানের জামালপুরের প্রায় ৭০০-টিরও বেশি পরিবারের কাছে চিঠি গিয়েছে এবং বলা হয়েছে যে তাঁদের আধার কার্ড নিষ্ক্রিয় করা হয়েছে।

   

এদিকে এই আধার কার্ড নিষ্ক্রিয় হকয়ে যাওয়ার কারণে রেশন কার্ড (Ration Card) থাকলেও, সামগ্রী পাওয়া থেকে বঞ্চিত হতে শুরু করেছেন ইতিমধ্যেই বহু মানুষ। ফলে স্বাভাবিকভাবেই সকলের মাথায় চিন্তার বাজে ভেঙে পড়েছে। সকলের একটাই কথা, ‘খাবো কি?’ তবে এবার এই সমস্যার সমাধান হতে চলেছে।

বড় সিদ্ধান্ত নিয়েছে প্রশাসন। আর প্রশাসনের এই নির্দেশিকা ইতিমধ্যেই রেশন ডিলারদের কাছে চলে গিয়েছে। রেশন ও আধার কার্ড এখন একে অপরের  পরিপূরক। নিশ্চয়ই ভাবছেন যে কি নির্দেশিকা জারি করেছে প্রশাসন? কারও আধার নিষ্ক্রিয় হয়ে গেলেও রেশন পরিষেবা যেন অব্যাহত থাকে বলে সাফ সাফ জানিয়ে দিয়েছে প্রশাসন।

free ration

আঙুলের ছাপ মিললে তবেই মিলবে কিন্তু রেশন। এই প্রসঙ্গে সংবাদমাধ্যমের মুখোমুখি হয়ে পূর্ব বর্ধমানের জেলাশাসক বিধান রায় বলেছেন যে, ‘পরিস্থিতির ওপর নজর রাখছে প্রশাসন। অবস্থা বুঝে ব্লক প্রশাসনকে নির্দেশ দেওয়া হচ্ছে।’

জামালপুরের বহু পরিবারের আধার কার্ড বাতিল করা হয়েছে আধার আইনের ২৮এ ধারা অনুযায়ী। অনেকেই ইতিমধ্যে প্রয়াহন তুলছেন যে কি এই ২৮এ ধারা কী? এই ধারা অনুযায়ী, যদি কোনও বিদেশি ভারতে থাকার ভিসার মেয়াদ শেষ হয়ে যায় বা ভারতে তাঁর প্রবেশ কিংবা বসবাসের শর্ত পূরণ না হয়ে থাকে, তাহলে তাঁর আধার নিষ্ক্রিয় হতে পারে।

বিগত ৭ বছর ধরে সাংবাদিকতার পেশার সঙ্গে যুক্ত। ডিজিটাল মিডিয়ায় সাবলীল। লেখার পাশাপাশি বিভিন্ন ধরনের বই পড়ার নেশা।

সম্পর্কিত খবর