এই সুস্বাদু খাবারের উপর নিষেধাজ্ঞা জারি করল পশ্চিমবঙ্গ সরকার! আপনি খাচ্ছেন না তো?

দই (Dahi) খেয়ে বিপত্তি। অসুস্থ বহু মানুষ। পূর্ব বর্ধমানের (Purba Bardhaman) অনুষ্ঠান বাড়িতে নামী কোম্পানির মিষ্টি দই খেয়ে শতাধিক মানুষ অসুস্থ বয়ে পড়েছেন বলে খবর। এরপরেই নড়েচড়ে বসে জেলা স্বাস্থ্য দফতর (Department of Health and Family Welfare – West Bengal)। পরীক্ষার জন্য দইয়ের নমুনা পাঠানো হয় ল্যাবে। দইয়ের নমুনায় ব্যাকটেরিয়া পাওয়া গিয়েছে বলে খবর। পরিস্থিতি বুঝে জেলা স্বাস্থ্য দফতরের পক্ষ থেকে পূর্ব বর্ধমান জেলায় নির্দিষ্ট ওই কোম্পানির মিষ্টি দই বিক্রির উপরে নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে। জানা গিয়েছে আমূল (Amul) কোম্পানি দই খাওয়ার পরেই হয়েছে এই বিপত্তি।

পূর্ব বর্ধমানের রায়নায় বিষক্রিয়া

সংবাদ মাধ্যমে প্রকাশিত খবর অনুযায়ী, দিনকয়েক আগে রায়না ২ নম্বর ব্লকের ছোটো বৈনান গ্রামে একটা শ্রাদ্ধবাড়িতে খাবার খেয়ে ১০৫ জন অসুস্থ হয়ে পড়েন। খাবার খাওয়ার পর দেখা দিতে শুরু করে শারীরিক অসুস্থতা। একে একে যেতে হয় স্বাস্থ্য কেন্দ্রে। ধরা পড়ে ডায়রিয়া। এরপর প্রায় ৬৮ জন অসুস্থ ব্যক্তিকে ভর্তি করা হয় স্থানীয় মাধবডিহি ব্লক স্বাস্থ্যকেন্দ্রে। আর দশজনকে পাঠানো হয় হুগলি জেলার আরামবাগ মহকুমা হাসপাতালে।

   

এই খবর চাউর হওয়ার পরেই মেডিক্যাল টিম ছুটে যায় মাধবডিহি স্বাস্থ্যকেন্দ্রে। স্থানীয় মাধবডিহি স্বাস্থ্যকেন্দ্রে যাওয়ার পর সেখান থেকে সংগ্রহ করা হয় নমুনা। মেডিক্যাল টিমের সংগ্রহ করা নুমান পরীক্ষা করা হয় ল্যাবে। এরপরেই জানা যায়, ওই মিষ্টি দইয়ে রয়েছে ব্যাকটেরিয়া। মেমারিতেও অনুরূপ একটি ঘটনা ঘটেছে বলে পরে জানা যায়।

আমূল মিষ্টি দইতে ব্যাকটেরিয়া

জেলা স্বাস্থ্য দফতরের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, ‘পূর্ব বর্ধমান জেলার দু’টি ব্লকে খাদ্যে বিষক্রিয়ার ঘটনা ঘটেছে। ইন্ডিয়ান ডেয়ারি প্রোডাক্ট, যার ব্র‍্যান্ড নাম ‘আমূল মিষ্টি দই’ (Amul Misti Doi) ব্যাচ নম্বর কেপিভি ৩৬৫৩ থেকেই এই বিষক্রিয়ার ঘটনা ঘটেছে। ওই দইয়ের নমুনা সংগ্রহ করে ব্যাকটেরিয়ার সন্ধান পাওয়া গিয়েছে সেই কারণে জেলার সমস্ত ডিস্ট্রিবিউটর, রিটেলারদের আমূলের মিষ্টি দই বিক্রি বন্ধ রাখতে নির্দেশ দেওয়া হচ্ছে।’ সেই দই বাঁকুড়ার ইন্ডিয়ান ডেয়ারি প্রোডাক্ট লিমিটেডে তৈরি হয়েছিল বলে জানা যায়।

Amul Doi

দইয়ের নমুনার মাইক্রোবায়োলজিক্যাল টেস্ট করানো হয়। টেস্টে ‘স্টেফাইলোকক্কাস অরাস’ নামে একটি ব্যাকটেরিয়ার সন্ধান মিলেছে বলে খবর। এই ব্যাকটেরিয়া মানুষের দেহের জন্য ক্ষতিকর। যার ফলে অসুস্থ হয়ে পড়েছিলেন অনুষ্ঠান বাড়িতে এই ব্যাচ নম্বরের দই খাওয়া ব্যক্তিরা। জেলায় আপাতত নিষিদ্ধ এই নামী কোম্পানির দই বিক্রি। খবর পৌঁছে দেওয়া হয়েছে সাধারণ মানুষের আছে।

সম্পর্কিত খবর