৮৬ বছর বয়সে স্বপ্নপূরণ রতন টাটার! এবার তিনি যা করলেন, জেনে শ্রদ্ধায় মাথানত করবেন

রতন টাটা…অনেকের কাছে তিনি মাটির মানুষ, আবার অনেকের কাছেই তিনি অনুপ্রেরণার উৎস। রতন টাটা দেশের অন্যতম জনপ্রিয় শিল্পপতি। বছরের পর বছর ধরে তাঁর জনপ্রিয়তায় এক ফোঁটা ভাটা পরেনি, বরং বেড়েছে। এর একটি বড় কারণ তার দয়ালু মনোভাব। টাটা গোষ্ঠী বড় অঙ্কের অনুদান দেয় অনেক প্রতিষ্ঠানকে।

বিশেষ করে রতন টাটা কুকুর খুব পছন্দ করেন। তাঁর কাছে রয়েছে কুকুর। শুধু তাই নয়, মুম্বইয়ে টাটা গ্রুপের সদর দফতর বম্বে হাউসে কুকুরদের জন্য রয়েছে বিশেষ জায়গা অবধি তৈরি করা রয়েছে টাটার তরফে। তবে এবার ৮৬ বছর বয়সী রতন টাটার স্বপ্ন পূরণ হল। আপনিও যদি পশুপ্রেমী হয়ে থাকেন তাহলে এই খবর আপনার দিলখুশ করে দেবে। রতন টাটার পশুপ্রেম কারও কাছেই গোপন নয়। দীর্ঘ ১২ বছরের অপেক্ষার পর এবার তাঁর একটি স্বপ্ন পূরণ হল।

   

৮৬ বছর বয়সে এসে রতন টাটার স্বপ্ন পূরণ হতে চলেছে, যা তিনি শুরু করেছিলেন টাটাসনের চেয়ারম্যানের চেয়ার ছাড়ার সময়। রতন টাটার স্বপ্নের ‘পেট’ প্রজেক্টের কাজ শেষ হল। মহালক্ষ্মীতে পশু হাসপাতাল তৈরি করেছেন রতন টাটা। ২.২ একর জমির উপর গড়ে ওঠা এই হাসপাতালে কুকুর, বিড়াল, খরগোশের মতো প্রাণীর চিকিৎসা হবে। ২৪×৭ এই হাসপাতালে পোষ্য প্রাণীর চিকিৎসা দেওয়া হবে। বছর দুয়েক আগে টাটাসন ছেড়ে এই হাসপাতাল তৈরির স্বপ্ন দেখেছিলেন রতন টাটা। হাসপাতালটির নাম দেওয়া হয়েছে টাটা ট্রাস্ট স্মল অ্যানিম্যাল হসপিটাল।

১৬৫ কোটি টাকা ব্যয়ে হাসপাতালটি তৈরি করা হয়েছে। এক সাক্ষাৎকারে রতন টাটা জানান, তিনি একজন পোষ্য অভিভাবক। পোষ্যের বাবা-মায়ের দুর্দশা সম্পর্কে তিনি ওয়াকিবহাল। কুকুরের চিকিৎসা করতে গিয়ে বহুবার সমস্যায় পড়তে হয়েছে তাঁকে। তিনি জানিয়েছেন যে একবার তার কুকুরের একটি বড় সমস্যা হয়েছিল এবং ভারতে ভালো চিকিৎসা না মেলায় কুকুরকে আমেরিকায় নিয়ে যাওয়া তার পক্ষে চ্যালেঞ্জিং হয়ে পড়েছিল টাটার কাছে। মিনেসোটা বিশ্ববিদ্যালয়ে গিয়ে কুকুরের চিকিৎসার জন্য অনেক সমস্যার সম্মুখীন হতে হয় রতন টাটাকে। যার পরে তিনি ভারতে একটি বিশ্বমানের পশু হাসপাতাল খোলার সিদ্ধান্ত নেন। টাটার এই পশু হাসপাতালে পোষ্যরা পাবে বিশ্বমানের সুযোগ-সুবিধা।

বিগত ৭ বছর ধরে সাংবাদিকতার পেশার সঙ্গে যুক্ত। ডিজিটাল মিডিয়ায় সাবলীল। লেখার পাশাপাশি বিভিন্ন ধরনের বই পড়ার নেশা।

সম্পর্কিত খবর