কাজ নেই, হাতে টাকাও নেই! ইউটিউব থেকে মাত্র ২৫০০ টাকা উপার্জন! আক্ষেপ করেন রূপঙ্কর

রূপঙ্কর বাগচী (Rupankar Bagchi) মানে একসময় একটা ইমোশন কাজ করত সারা বাঙালিদের মধ্যে। নিজের দাপট চালিয়েছেন সারা সংগীত জগতে। জাতিস্মর তার কন্ঠ জিতে নিয়েছে সেরার পুরষ্কার। তার গান মানেই নস্টালজিয়া। কিন্তু এরপর তার জীবনে নেমে আসে একটা অভিশপ্ত দিন। সস্তায় পাবলিসিটি পেতে কটাক্ষ করেন কেকে-কে। আজও সেই বিতর্ক পিছু ছাড়েনি তার।

দিনকাল নিয়েই ভালো যাচ্ছেনা রুপঙ্কর বাগচীর। তবে এই ঘটনার বহু আগে গত বছর নভেম্বর মাসে তিনি এক সাক্ষাৎকারে তার ইউটিউব চ্যানেল থেকে প্রাপ্ত আয়ের কথা জানিয়েছিলেন। কত আয় করেন রূপঙ্কর বাগচী? জানলে অবাক হবেন আপনিও।

সাক্ষাৎকার পর্বে তাকে বেশ খোলামেলা মেজাজে দেখা গিয়েছিল। কিন্তু সেখানেই ইউটিউব থেকে নিজের আয় সম্বন্ধে জানান তিনি। রূপঙ্কর সেখানে বলেছিলেন যে, ইউটিউব চ্যানেলের জন্য তিনি ৫৪ টা কনটেন্ট বানিয়েছিলেন। আর সেজন্য তাকে খরচ করতে হয়েছিল ৫ লক্ষ টাকারও বেশি। কিন্তু তার উপার্জন হয় মাত্র আড়াই হাজার টাকা!

সেদিনের সাক্ষাৎকারে তার অভিযোগ যে, আজকাল আর কেও তার গান তেমন শুনছে না। শুধু তাই না, অভিমানী রূপঙ্কর বললেন তার শেষ জনপ্রিয় গান বের হয় ২০১৯ সালে। সেই ‘জাগো উমা’ গানের পর আর সেরকম বিখ্যাত হয়নি তার কোনো গান। তাকে শ্রোতারা এখনো তার পুরনো গানে মনে রাখায় গলার স্বরে তখনো অভিমান উঁকি দিচ্ছে।

তবে সেইসময় তিনি এই ঘটনার কারণ সম্পর্কে বলেন যে, পার্টিতে যাওয়ার অভ্যেস একেবারেই নেই তার। শুধুমাত্র নিজের কাজ নিয়েই থাকেন তিনি। তাই হয়তো সেভাবে জনপ্রিয় হতে পারছেন না আর। এদিকে সেদিন তিনি অভিমান করছিলেন তাকে কেও সেভাবে মনে রাখছে না। আর আজ তাকে সবাই মনে রেখেছে ঠিকই, কিন্তু এরকমভাবে জনতা তার উদ্দেশ্যে বিদ্বেষ পোষণ করবে, এটাও চাননি গায়ক রূপঙ্কর।

rupankar bagchi

গায়কের মতে জনসংযোগের বিষয় তিনি ততটাও পটু নয়। পার্টিতে যাওয়ার অভ্যেস নেই তাঁর। কাজ শেষ করে বাড়ি ফেরার অভ্যেস। তবে সংগীত শিল্পীর মতে, যাঁরা গান বাজনার মানুষের সঙ্গে বেশি সময় ওঠা বসা করেন, তাঁদের কাজের সুযোগ খানিকটা বেশি। পাশাপাশি এও মনে করিয়েছেন, অতীতেও এই

➦ আপনার জন্য বিশেষ খবর

Back to top button