একসময় সাইকেল বিক্রি করে চালাতেন কোম্পানি, পরিশ্রম করে আজ ২৬ হাজার কোটি টাকার মালিক

বর্তমানে সংবাদের শিরোনামে রয়েছেন পবন মুঞ্জাল। দেশের বৃহত্তম বাইক কোম্পানি Hero MotoCorp-এর সঙ্গে তার গভীর সম্পর্কর কারণেই তিনি বহুল চর্চার মধ্যে রয়েছেন। স্বাভাবিক ভাবেই প্রশ্ন আসে কী এই Hero MotoCorp এবং তাকে নিয়ে এতো আলোচোনাই বা কেন? আজ এই প্রতিবেদনে আপনাদের জানাবো গোটা কাহিনী।

হিরো কোম্পানির নাম শোনেনি এমন লোক বোধহয় এই দেশে পাওয়া দুষ্কর। হিরো এদেশের রাস্তায় সবচেয়ে দৃশ্যমান বাইক। উল্লেখ্য, এই কোম্পানিটি আজকের নয়, বহু পুরোনো এই কোম্পানির ইতিহাসও অনেক পুরোনো। একটি বিদেশি কোম্পানির সহযোগিতা নিয়ে কোম্পানিটি পথ চলা শুরু করলেও বর্তমানে দেশের সবচেয়ে বড়ো বাইক প্রস্ততকারী সংস্থায় পরিণত হয়েছে। তো চলুন জেনে নিই এই সংস্থার গল্প কাহিনী।

১৯৫৬ সালে এই কোম্পানির পত্তন হয় ব্রিজমোহন লাল মুঞ্জালের হাত ধরে। Hero MotoCorp শুরু থেকেই Hero-Honda বা Hero MotoCorp ছিল না। সেই সময় এই কোম্পানিটির নাম ছিলো হিরো সাইকেলস। সেই সময় দেশের অন্যতম চাহিদাসম্পন্ন সাইকেল, হিরো সাইকেল তৈরি করতো কোম্পানিটি। পরবর্তীকালে ১৯৮৪ সালে Hero Cycles জাপানী কোম্পানি Honda-এর সাথে যৌথভাবে বাইক তৈরি করা শুরু করে। তখন এই কোম্পানির নাম রাখা হয় Hero Honda। যা কয়েকবছর আগেও ভারতের রাস্তায় বহুল দৃশ্যমান ছিলো। প্রসঙ্গত, Hero Honda কোম্পানির তৈরি প্রথম বাইক ছিল Hero Honda CD 100। সেইসময় বহুল চাহিদাসম্পন্ন এই বাইকটি ছিলো কোম্পানির সেরা বাইক গুলির মধ্যে অন্যতম।

জানিয়ে রাখি, তৎকালীন এই কোম্পানিতে ২৬ শতাংশ শেয়ারের ভাগিদার ছিলো Honda। শুরু থেকে হাতে হাত মিলিয়ে কাজ করে এলেও ২০১০ সালে কোম্পানি দুটি আলাদা হওয়ার সিদ্ধান্ত নেন। হিরোর কাছে নিজের ২৬ শতাংশ শেয়ার বিক্রি করে দিয়ে Honda সম্পূর্ণ আলাদা হয়ে যায়। এর সাথে সংস্থাদ্বয় এই মর্মে চুক্তিবদ্ধ হয় যে পরবর্তীকালে হিরো তার বিক্রিত পণ্যের উপর একটা রয়্যালটি প্রদান করবে হন্ডাকে।

hhhhhhhh

Hero MotoCorp-এর সাথে পবন মুঞ্জাল কীভাবে যুক্ত হলেন?

পবন মুঞ্জাল হিরো সাইকেলের প্রতিষ্ঠাতা ব্রিজমোহন লালের ছেলে। ১৯৮০ সালে হিরো হন্ডার ডিরেক্টর হিসেবে যোগদান করেন তিনি। পরবর্তীকালে নিজের নিরলস পরিশ্রমের দ্বারা কোম্পানিটিকে সাফল্যের চূড়ায় নিয়ে যান তিনি। প্রসঙ্গত ব্রিজমোহন লাল এবং তার তিন ভাই মিলে প্রতিষ্ঠা করেন কোম্পানিটি। তারপরে হন্ডা কোম্পানি এতে যোগদান করলে কোম্পানিটি নাম পরিবর্তন করে রাখা হয় হিরো হন্ডা। এবং এর কিছুকাল পরে হন্ডা নিজেকে কোম্পানিটি থেকে আলাদা করে নেয়, সেই সময় হিরো কোম্পানির মালিক হন ব্রিজমোহন লালের ছেলে পবন মুঞ্জাল। এই মুহূর্তে দেশের প্রায় ৪০ শতাংশ মানুষ ভরসা করে হিরোকে । ফোর্বসের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী বর্তমানে পবন মুঞ্জাল মোট সম্পত্তির পরিমাণ ৩.২ বিলিয়ন ডলার।

➦ আপনার জন্য বিশেষ খবর

Back to top button