আর একঘেয়ে লাগবে না দিঘা, পুজোর আগেই খুলছে এই বিশেষ আকর্ষণ! দেখে চমকে যাবেন পর্যটকরা

মাঝে আর একটা মাস। তার পরেই বাঙালিদের শ্রেষ্ঠ উৎসব দুর্গাপুজো। পুজোকে সামনে রেখে অনেকে অনেক রকমের প্ল্যান করে থাকেন। অনেকে শহরের পুজো দেখতে ভালোবাসেন। আবার অনেকে শহরে থাকতে চান না, একটু অন্যভাবে পুজোর কটা দিন কাটাতে পছন্দ করেন। কাছেপিঠের মধ্যে বাঙালিদের এখনো ফার্স্ট চয়েস হল দীঘা (Digha)। সেই দীঘা পুজোর আগেই হয়ে উঠছে আরও সুন্দরী, মোহময়ী।

ঝড়, প্রাকৃতিক দুর্যোগের ফলে দীঘা বারংবার ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। অনেকটা শ্রী হারিয়েছিল বাংলার এই সৈকত কন্যা। পর্যটকদের কথা মাথায় রেখে সৈকত নগরীর জাঁকজমক ফেরাতে উদ্যোগ নিয়েছিল পশ্চিমবঙ্গ সরকার (Government Of West Bengal)। ইতিমধ্যে সেখানে করা হয়েছে একাধিক উন্নয়নমূলক কাজ, আগের থেকে অনেক বেশি গোছানো পরিপাটি হয়েছে দীঘা। পুজোর মরসুমে হোটেল মালিক থেকে শুরু করে পর্যটনের সঙ্গে যুক্ত শুরু করে প্রত্যেকে বাড়তি লাভের আশায় দিন গুনছেন। সাধারণ মানুষকে নিরাশ করতে চায় না রাজ্য সরকার। সেই উপলক্ষ্যে নিউ দীঘা ও ওল্ড দীঘায় ঘুরতে যাওয়া পর্যটকদের জন্য থাকছে নতুন একটা উপহার।

দীঘায় অত্যাধুনিক নতুন একটি পার্ক বা উদ্যান গড়ে তুলছেন সরকার। হয়তো পুজোর আগেই খুলে দেওয়া হবে পার্কের দরজা। মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায় (Mamata Banerjee) নিজে দীঘার নতুন পার্কটির উদ্বোধন করতে পারেন। এ ব্যাপারে সরকারের পক্ষ থেকে ইতিমধ্যে শুরু হয়েছে তৎপরতা। রাজ্যের পর্যটন মন্ত্রী বাবুল সুপ্রিয় (Babul Supriyo) নিজেও এই ব্যাপারে আশাবাদী। দিঘা-শঙ্করপুর উন্নয়ন পর্ষদের উদ্যোগে ২৯ কিলোমিটার দীর্ঘ পথ জুড়ে মেরিন ড্রাইভ গড়ে তোলা হয়েছে ইতিপূর্বে। কিছু দিন হল দীঘায় চালু হয়েছে আরও একটি নতুন আকর্ষণ ঢেউ সাগর।

সেই সঙ্গে দীঘায় বেআইনি কাজ বন্ধ করতে উদ্যোগ নিয়ে প্রশাসন। জেলাশাসক নিজে জানিয়েছেন, আইন মেনে সব কাজ করা হবে। যারা আইন অমান্য করবেন তাদের জন্য অপেক্ষা করে রয়েছে কড়া পদক্ষেপ। পরিচ্ছন্ন রাখতে সম্প্রতি একগুচ্ছ নির্দেশেকা জারি করা হয়েছিল। নির্দেশিকার মেয়াদ শেষ হতে সরজমিনে নেমেছেন প্রশাসনের কর্তারা।