৩০ টাকার লটারিতেই খুলল কপাল! বাঁকুড়ার দরিদ্র রাজমিস্ত্রীর যা পেলেন, শুনে চমকে যাবেন

লটারি জিনিসটা এমনই যে কার কখন ভাগ্য বদলে যায় কেউ বলতে পারে না। অনেকেরই জীবনে Lottery কাটার নেশা থাকে। এমনও অনেক আছেন যারা প্রত্যেকদিন লটারির টিকিট কাটতে পছন্দ করেন। আবার অনেকেই আছেন যারা কিনা ৯ মাসে ৬ মাসে একবার লটারি কাটেন। বহু মানুষ এমন রয়েছেন যারা অল্প সময়ের মধ্যে বেশি টাকা লাভের আশায় লটারির টিকিট কাটেন। আপনি কোনটা করেন?

লটারির টিকিট কেটে লাখপতি বা কোটিপতি হয়েছেন বহু মানুষ। যাইহোক, লটারির টিকিট কেটে কারোর মালামাল হওয়ার ঘটনা নতুন কিছু নয়। কিন্তু আপনি কি জীবনে কখনও শুনেছেন কাউকে মাত্র ৩০ টাকার টিকিট কেটে এক ঘন্টার মধ্যে কোটিপতি হয়েছেন কেউ! কী শুনে চমকে গেলেন তো? কিন্তু এমনটাই ঘটেছে বাঁকুড়ার এক রাজমিস্ত্রির সঙ্গে। আর এই খবর চাউর হতে বেশিক্ষন সময় লাগেনি। রীতিমতো আগুনের গতিতে জায়গায় জায়গায় ছড়িয়ে পড়েছে পেশায় রাজমিস্ত্রির অবিশ্বাস্য গল্প।

লটারিতে এক কোটি টাকা জিতলেন রাজমিস্ত্রী

   

এই ঘটনা ঘটেছে বাঁকুড়ার খাতরার রাধামোহনপুর গ্রামের পেশায় রাজমিস্ত্রি রাবণ বাউড়ির সঙ্গে। তিনি কিন্তু এখন আর ছাপোষা রাজমিস্ত্রি নন, এখন তিনি কোটিপতি। পেশায় রাজমিস্ত্রি রাবণ বাউড়ির নেশা ছিল লটারির টিকিট কাটা, যদি ভাগ্য ফেরে সেই আশায়। কোটি টাকা জেতা প্রসঙ্গে, রাজমিস্ত্রি রাবণ বাউড়ি জানিয়েছেন, রবিবার রাজমিস্ত্রির কাজ সেরে বাড়ি ফেরার সময় তিনি খড়বন মোড়ে প্রতিদিনের মতো ৩০ টাকার লটারির টিকিট কেটেছিলেন। এর এক ঘন্টার মধ্যে রেজাল্ট বের হতেই দেখা যায় তার কাটা টিকিটে প্রথম পুরস্কার লেগেছে।

প্রথম পুরস্কার হিসাবে তিনি জিতে নিয়েছেন এক কোটি টাকা। যার থেকে রাজমিস্ত্রি রাবণ বাউরী টিকিট কেটেছিলেন সেই টিকিট বিক্রেতা শিবু বাউরী জানিয়েছেন, এর আগে অনেকবার ছোটখাটো পুরস্কার লাগলেও কখনো এমন বড় পুরস্কার লাগেনি। এদিকে মুশকিল হয়েছে আর একটা, এত পরিমাণে টাকা নিয়ে তিনি কী করবেন সেটা ভেবে কুল কিনারা পাচ্ছেন না। যদিও রাবণ জানাচ্ছেন, মনের মতো একটি বাড়ি আর ছেলে মেয়ের পড়াশোনা।

বিগত ৭ বছর ধরে সাংবাদিকতার পেশার সঙ্গে যুক্ত। ডিজিটাল মিডিয়ায় সাবলীল। লেখার পাশাপাশি বিভিন্ন ধরনের বই পড়ার নেশা।

সম্পর্কিত খবর