মিলবে বেশি বেতন, ভাতা! DA বৃদ্ধির পর ৩ লাখ কর্মীকে নিয়ে বড় সিদ্ধান্ত পশ্চিমবঙ্গ সরকারের

নতুন বছর অর্থাৎ ২০২৪ সালটা একটু অন্যরকমভাবে শুরু হয়েছে বাংলার সরকারি কর্মীদের (Employee)। টানা কয়েকশো দিন ধরে বকেয়া ও বর্ধিত হারে ডিএ (Dearness allowance) বৃদ্ধির দাবিতে অবস্থান বিক্ষোভ দেখানোর কিছুটা ফল পেয়েছেন হাতেনাতে সকলে। নতুন বছরে কয়েক লক্ষ সরকারী কর্মী থেকে শুরু করে পেনশনভোগীদের (Pention) DA বৃদ্ধির ঘোষণা করেছে পশ্চিমবঙ্গ সরকার (Government Of West Bengal)।

১ জানুয়ারি থেকে DA বৃদ্ধি করেছে পশ্চিমবঙ্গ সরকার

এক ধাক্কায় কয়েক লক্ষ সরকারী কর্মীর ৪ শতাংশ ডিএ বৃদ্ধির ঘোষণা করেছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় (Mamata Banerjee)। শুধুমাত্র তাই নয়, এবার থেকে বাড়তি টাকা পাবেন সিভিক ভলেন্টিয়াররা। কারণ এমন একটি সিদ্ধান্ত নিয়েছে নবান্ন যে কারণে বহু সিভিক ভলেন্টিয়ারের মুখে হাসি ফুটতে চলেছে নতুন বছরে।

সিভিক ভলান্টিয়াররাও পাবেন মোটা বোনাস

   

সিভিক ভলান্টিয়াররা এবার থেকে ৫৩০০ টাকা করে বোনাস পাবেন বলে বিজ্ঞপ্তি জারি করে জানিয়ে দিয়েছে নবান্ন। যদিও এরই মাঝে লটারি লাগল বহু কর্মীর। রাজ্য সরকার, মিল মালিক এবং কেন্দ্রীয় ট্রেড ইউনিয়নগুলির মধ্যে স্বাক্ষরিত ত্রিপাক্ষিক মজুরি চুক্তির পরে পশ্চিমবঙ্গের সমস্ত পাটকল শ্রমিকদের মজুরি ফেব্রুয়ারি থেকে বৃদ্ধির ঘোষণা করল সরকার। চুক্তি অনুযায়ী, ২০২৪ সালের ৩ ফেব্রুয়ারি থেকে সব শ্রেণির শ্রমিকদের মজুরি বৃদ্ধি কার্যকর করা হবে, যার ফলে পশ্চিমবঙ্গের ১১৩টি পাটকলের প্রায় ৩ লক্ষ শ্রমিক উপকৃত হবেন বলে মনে করা হচ্ছে।

জুট শ্রমিকদের জন্য বড় ভাবনা সরকারের

সূত্রের খবর, প্রায় দেড় বছর আলোচনার পর সব পক্ষ চুক্তিতে সই করতে সম্মত হয়। নয়টি ত্রিপক্ষীয় এবং বেশ কয়েকটি দ্বিপক্ষীয় বৈঠকের পরে ঐকমত্যে পৌঁছানো হয়েছিল। সর্বশেষ চুক্তি স্বাক্ষরিত হয় ২০১৯ সালে। বুধবার স্বাক্ষরিত সর্বশেষ চুক্তি অনুসারে, এন্ট্রি লেভেলে দৈনিক মজুরি প্রায় ৩০ শতাংশ বাড়িয়ে ৩৭০ টাকা থেকে ৪৮৫ টাকা করা হবে। পাটকলগুলিতে যোগদানকারী নতুন শ্রমিকদের মোট মাসিক বেতন হবে ১৪,০৬৬, যা পূর্ববর্তী কাঠামোর তুলনায় প্রায় ৩,৫৬২ টাকা বেশি। বিদ্যমান কর্মীদের মাসিক বেতন ১৬,৭১৮ টাকা থেকে বেড়ে হবে ১৭,২৭১ টাকা।

jute mill

২০১৯ সালে নিয়োগ প্রাপ্ত পাট শ্রমিকদের মোট মাসিক বেতন ৫৮৬ টাকা বৃদ্ধি পেয়ে ১৪,১৩২ টাকা হবে। রাজ্য সরকারের কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, ২০০২ সাল থেকে কর্মরত শ্রমিকদের মাসিক বেতন ৬২৭ টাকা বাড়িয়ে ১৫,৮৩৭ টাকা করা হবে। এক বিজ্ঞপ্তি অনুসারে, ‘মিলগুলিতে কর্মরত শ্রমিকদের বিষয়ে, ম্যানেজমেন্ট বিদ্যমান সমস্ত শ্রেণীর শ্রমিকদের প্রতি মাসে ১৩০ টাকা (২০৮ ঘন্টার জন্য) এককালীন অ্যাডহক পেমেন্ট দিতে সম্মত হয়েছে। বিদ্যমান মৌলিক মজুরিতে অতিরিক্ত অর্থ যোগ করা হবে।’

বাড়ছে শ্রমিকদের আবাসন ভাতাও

শুধু তাই নয়, সব শ্রেণির শ্রমিকদের আবাসন ভাতা ৫ শতাংশ থেকে বাড়িয়ে ৭.৫ শতাংশ করা হয়েছে। এই প্রসঙ্গে ইন্ডিয়ান জুট মিলস অ্যাসোসিয়েশনের (আইজেএমএ) চেয়ারম্যান রাঘবেন্দ্র গুপ্তা বলেন, ‘এই মজুরি বৃদ্ধি পাট শিল্পের জন্য একটি ব্যয়ের বোঝা যা আমাদের গ্রহণ করতে হবে। আমাদের দেখতে হবে কীভাবে আমরা আমাদের দক্ষতা এবং অন্যান্য খরচের প্যারামিটারগুলি উন্নত করতে পারি।’ তিনি আরও বলেন, মজুরি বৃদ্ধির পর একটি পাটকলের সামগ্রিক মজুরি বিল গড়ে ৫ শতাংশ বৃদ্ধি করা হবে। মজুরি বিল একটি পাটকলের মোট ব্যয়ের প্রায় ২৫ শতাংশ।

আইজেএমএ’র প্রাক্তন চেয়ারম্যান সঞ্জয় কাজারিয়া বলেন, ত্রিপক্ষীয় মজুরি চুক্তির একটি ‘ঐতিহাসিক ও সামগ্রিক’ দৃষ্টিভঙ্গি রয়েছে। তিনি বলেন, ‘এই চুক্তিতে দীর্ঘদিন ধরে ঝুলে থাকা অনেক সমস্যার সমাধান করা হয়েছে। চুক্তি অনুযায়ী, শ্রমিকদের অত্যন্ত দক্ষ, দক্ষ, আধা-দক্ষ এবং অদক্ষ হিসাবে শ্রেণিবদ্ধ করা হয়েছে এবং প্রতিটি বিভাগকে একটি নির্দিষ্ট ফিটমেন্ট ভাতা দেওয়া হয়েছে।’ চুক্তি অনুসারে, রাজ্য উত্পাদনশীলতা কাউন্সিল আগামী ছয় মাসের মধ্যে শ্রমিকদের গ্রেডিং এবং স্কেলিং নির্ধারণ করবে।

বিগত ৭ বছর ধরে সাংবাদিকতার পেশার সঙ্গে যুক্ত। ডিজিটাল মিডিয়ায় সাবলীল। লেখার পাশাপাশি বিভিন্ন ধরনের বই পড়ার নেশা।

সম্পর্কিত খবর