বিরাট ক্ষতি! ভারত বিদ্বেষের জেরে মলদ্বীপে হাহাকার, বিপাকে মইজ্জু

ভারতের সঙ্গে দ্বন্দ্বে জড়ানোর জন্য কাল হলো দ্বীপ রাষ্ট্র মলদ্বীপের। বিগত কিছু সময় ধরে এই দুই দেশের মধ্যে যেন এক প্রকার ঠান্ডা লড়াই শুরু হয়েছে। ইতিমধ্যেই ভারতীয় পর্যটকরা এই দ্বীপ রাষ্ট্রের দিক থেকে মুখ ফিরিয়ে নিয়েছে। অন্যদিকে মলদ্বীপও পাল্টা দিয়ে ভারতের সেনাবাহিনীকে দ্বীপ খালি করার নির্দেশ দিয়েছে। তবে এরই মাঝে প্রকাশ্যে এলো আরো বড় তথ্য, যা শুনলে চমকে যেতে পারেন আপনিও।

বছরে পর বছর ধরে ভারতীয়দের কাছে অন্যতম আকর্ষণীয় এবং পছন্দের ডেস্টিনেশন ছিল এই দ্বীপ রাষ্ট্র মলদ্বীপ। যদিও কিছু মাস আগে মলদ্বীপের কিছু মন্ত্রীদের ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে নিয়ে কটাক্ষের জেরে মলদ্বীপের প্রতি ক্ষোভে ফুঁসতে শুরু করেছেন ভারতীয়রা। ফলে ইতিমধ্যেই এই দ্বীপরাষ্ট্রে আসা যেন এক প্রকার বন্ধই করে দিয়েছেন ভারতীয়রা। আর এর জেরে প্রচন্ড আর্থিক ক্ষতির সম্মুখীন হচ্ছে মলদ্বীপ।

   

কারণ এই মলদ্বীপ পর্যটন ব্যবসার উপর ভিত্তি করেই বিশেষ করে দাঁড়িয়ে ছিল। এক রিপোর্ট অনুযায়ী, ২০২৩ সালের মার্চ মাসে ৪১,০০০ এরও বেশি ভারতীয় পর্যটক মলদ্বীপ ভ্রমণ করেছিলেন, সেখানে এক বছরের মধ্যে চিত্রটা এক ধাক্কায় অনেকটাই পাল্টে গেল। ২০২৪ সালের মার্চ মাসে এখনও পর্যন্ত মাত্র ২৭,২২৪ জন ভারতীয় পর্যটক মলদ্বীপ ভ্রমণ করেছেন। গত মার্চ মাসের তুলনায় এবারে ভারতীয় পর্যটকদের সংখ্যা ৩৩ শতাংশ কমেছে।

muizzu maldives

২০২৩ সালের মার্চ পর্যন্ত ১০ শতাংশ বাজার শেয়ার নিয়ে ভারত মলদ্বীপের দ্বিতীয় বৃহত্তম পর্যটন অংশীদার ছিল। এখন ভারতের সঙ্গে কূটনৈতিক টানাপোড়েনের কারণে ৬ শতাংশ শেয়ার নিয়ে ষষ্ঠ স্থানে রয়েছে ভারত।

তবে ভারতীয় পর্যটকরা মলদ্বীপ থেকে মুখ ফেরালেও চীনের পর্যটকদের সংখ্যা দ্রুত হারে বাড়তে শুরু করেছে। জানা যাচ্ছে, ২০২৪ সালে এখন পর্যন্ত চীন থেকে ৫৪ হাজার পর্যটক মালদ্বীপ ভ্রমণ করেছেন। ২০২৪ সালের ফেব্রুয়ারিতে মোট ২ লাখ ১৭ হাজার ৩৯৪ জন পর্যটক মলদ্বীপে এসেছিলেন, যার মধ্যে চীন থেকে এসেছিলেন মাত্র ৩৪ হাজার ৬০০ জন।

বিগত ৭ বছর ধরে সাংবাদিকতার পেশার সঙ্গে যুক্ত। ডিজিটাল মিডিয়ায় সাবলীল। লেখার পাশাপাশি বিভিন্ন ধরনের বই পড়ার নেশা।

সম্পর্কিত খবর