বিধাননগর স্টেশন একসময় ছিল ভারত-বাংলাদেশের অংশ, অজানা তথ্য জানাল ভারতীয় রেল

শিয়ালদহ ডিভিশনের অন্যতম ব্যস্ত রেল স্টেশন বিধাননগর রোড। স্থানীয় বাসিন্দারা অবশ্য এখনো এই স্টেশনকে উল্টোডাঙা বলতেই বেশি অভ্যস্ত। কিন্তু জানেন কি এই স্টেশনের নাম শতাব্দী প্রাচীন। জানা যায় ১৮৬২ সালে ইস্টার্ন বেঙ্গল রেলওয়ে তৈরি করে ‘উল্টোডাঙা হল্ট’ স্টেশনটি।

যে সময়ের কথা বলছি তখন দেশভাগ হতে প্রায় ১০০ বছর বাকি। তখনকার ‘উল্টোডাঙা হল্ট’ বা আজকের বিধাননগর রোড ছিল কলকাতা – কুষ্টিয়া রেলপথের অংশ। অধুনা বাংলাদেশে অবস্থিত কুষ্টিয়ার সাথে কলকাতার যোগাযোগের পথ ছিল এই উল্টোডাঙা। যদিও দেশভাগের পর প্রথমে পূর্ব পাকিস্তানে আর পরবর্তী সময়ে ১৯৭২ সালে বাংলাদেশের অন্তর্ভুক্ত হয় কুষ্টিয়া।

দিন বদলের কারণে নাম বদলেছে ‘উল্টোডাঙা হল্ট’ স্টেশনের। কিংবদন্তী চিকিৎসক বিধানচন্দ্র রায়ের নামে ‘উল্টোডাঙা হল্ট’ স্টেশনের নামকরণ করা হয়। এটা অবশ্য দেশ স্বাধীন হওয়ার পরের কথা। কিন্তু নামবদল হলে কী হবে, স্থানীয় বাসিন্দাদের মধ্যে এই জায়গার নাম আজও উল্টোডাঙা।

শিয়ালদহ ডিভিশনের ব্যস্ততম রেল স্টেশনের একটি হলো বিধাননগর রোড। শিয়ালদহ থেকে মাত্র ৪ কিমি দূরে অবস্থিত এই স্টেশন অত্যন্ত ব্যস্ত এবং গুরুত্বপূর্ন। স্টেশনে প্ল্যাটফর্ম শেড, ফুট ওভারব্রিজ, সাবওয়ে, পানীয় জল-সহ যাত্রী স্বাচ্ছন্দ্যের নানা পরিষেবা আছে।

1200px bidhannagar station

আসলে পশ্চিমবঙ্গের বেশিরভাগ IT কোম্পানির অফিস রয়েছে সল্টলেকে। তাই সল্টলেকে কর্মরত প্রত্যেকেই শিয়ালদহ থেকে ট্রেন ধরে এখানে পৌঁছান। বহু IT কর্মচারী এই রুটেই অফিস যাওয়ার কারণে এখানে সর্বদাই মানুষের ভীড় লেগেই থাকে। কিন্তু বর্তমানে শিয়ালদা থেকে সল্টলেক মেট্রো চালু হতেই বিধাননগর স্টেশনে যাত্রী চাপ কমেছে।

➦ আপনার জন্য বিশেষ খবর

Back to top button